কোভিড ১৯ চুড়ান্ত আক্রান্তের ক্ষন গণনা শুরু

নাজমুল হক: করোনাভাইরাস সংক্রমণের আজ ৪৩ তম দিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ৭৬ দিনের মাথায় একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত পাওয়া যায় ৩২,১০৫ জন। এছাড়া যুক্তরাজ্য ৬৭তম দিনে, ফ্রান্স ৬৬, জার্মানি ও স্পেনে ৬১, ইতালি ৫৩, ইরানে ৪২, এবং নেদারল্যান্ডসে ৩৮ তম দিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ধরা পরে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশের আক্রান্তের সব ধরণের বৈশিষ্ট্য বিশ্লেষণ করলে ধারণা করা যেতে পারে যে, মে মাসের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বোচ্চ হতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে চুড়ান্ত বা সর্বোচ্চ আক্রান্ত হতে (বর্তমান হিসেবে) মেক্সিমাম যদি ৭৬ দিন ধরি। সেক্ষেত্রে আমাদের ঈদের দিন হবে ৭৬ বা ৭৭তম দিন। করোনার জ্যামিতিক আক্রান্তের হার খুবই ভয়ঙ্কর যেমন- ৮ মার্চ থেকে ৭ এপ্রিলের ১ মাসে আক্রান্ত ছিল ১৬৪ জন মৃত্যু ১৮ জন। আজ ১ দিনে আক্রান্ত ৩১২ জন অর্থাৎ ১ মাসে আক্রান্তের দ্বিগুণ আর গতকালের আগে একদিনে ১৫ জনের মৃত্যু ১ মাসের মৃত্যুর কাছাকাছি। আজ ৩০০ আক্রান্ত আমাদের কাছে সাধারন বিষয় কিছুদিন পর ৩০০০ হয়তো সাধারন হয়ে যাবে। আজ ১০ জনের মৃত্যু সাধারন হয়ে গেছে কিছুদিন পর ১০০ মৃত্যু সাধারন হয়ে যাবে। বিশ্বে প্রথম ১০ লক্ষ আক্রান্ত হয় ৪ মাসে পরবর্তী ১০ লক্ষ আক্রান্ত হয় ২ সপ্তাহে তারপরবর্তী হয়তো ১ সপ্তাহে আক্রান্ত হবে। গতকালের আগের দিন বিশ্বে ১ দিনে মারা যায় ১১,৩৭৫ জন যা পূর্বের প্রায় ২ মাসের মৃত্যুর সমান। সুতরাং বুঝা যাচ্ছে তারাবি ও ঈদের নামাজ পরতে হবে বাসায় (এমন না হউক)। ঈদ আনন্দময় হওয়ার সম্ভবনা নেই তাই ঈদের বোনাস সরকার নিঃস্বদের মধ্যে বিতরন করা উচিত (ব্যাক্তিগত মতামত)। কি ভাবতেছেন , আপনি ঝুঁকিমুক্ত মানে আপনি আক্রান্ত হবেন না ? দীর্ঘ সময় থাকবে এই করোনা সংক্রমণ হতে পারে ২/৩ বছর , পারবেন এতোদিন সচেতনতার সাথে নিজেকে নিরাপদ রাখতে ? পরিবার সহ গৃহবন্দির আজ ১ মাস পূর্তি হলো। আরো কতদিন গৃহবন্দি থাকতে হয় কেউ জানিনা। সহসাই লকডাউন উঠানোর মতো ঝুঁকি সরকার নিবে কিনা জানিনা ? যদি লকডাউন আরো দীর্ঘ হয় তবে শ্রমজীবী বা নিম্নমধ্যবিত্ত বা মধ্যবিত্তদের অবস্থা শোচনীয় হবে। ভেঙ্গে যেতে পারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সাপ্লাই চেইন। তখন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যর ক্রয়মূল্য হবে আকাশচুম্বী , তৈরি হবে ভয়াবহ খাদ্যে সংকট। যার দরুন অনেকে আগেভাগে “প্যানিক বায়িং” বা প্রয়োজন অতিরিক্ত কেনাকাটা করছে যার জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যেমূল্য ইতোমধ্যে উর্ধ্বমুখি। অথচ দেশে খাদ্যে মজুত আছে পর্যাপ্ত তাই প্যানিক বায়িং এর প্রয়োজন নেই। এতে খেটে খাওয়া মানুষকে বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে তার নিত্যপ্রয়োজনীয় আহারের জন্য। আশাকরি সরকার দ্রুত সময়ে চাহিদা-যোগানের ভারসাম্য করে ফেলবে। আড্ডাবাজী ছেড়ে সবাই ঘরে থাকি। নিরাপদ থাকি নিজে , নিরাপদ থাকুক পরিবার , নিরাপদ থাকুক দেশ।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ