আক্রান্ত যতো বাড়ছে শিথিলতাও ততো বাড়ছে কেন?

নাজমুল হক: গত দুইমাসের ১০দিন করে পর্ব বিশ্লেষণে দেখাযায় ০৮ -১৮ মার্চ ১০দিনে মোট শনাক্ত ১৪ জন ১৯ – ২৮ মার্চ ১০দিনে মোট শনাক্ত ৩৪ জন ২৯ -০৭এপ্রিল ১০দিনে মোট শনাক্ত ১১৬ জন ০৮ -১৭এপ্রিল ১০দিনে মোট শনাক্ত ১৬৭৪ জন ১৮ -২৭এপ্রিল ১০দিনে মোট শনাক্ত ৪০৭৫ জন ২৮ – ০৭ মে ১০দিনে মোট শনাক্ত ৬৫১২ জন

৮ মার্চ প্রথম শনাক্তের একমাস পর ৮ এপ্রিল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২১৮ জন। পরবর্তী একমাস অর্থাৎ ৮ মে পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১৩১৩৪। তারমানে গত একমাসে আক্রান্ত হয়েছে ১% এর কিছুবেশি আর এই মাসেই আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৯৯% , কি সাংঘাতিক ব্যাপার। সামনে পরিস্থিতি আরো ভয়ঙ্কর হতে পারে , নেতাকর্মীদের মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে বলেছেন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ২ এর নামতা (১৪→৩৪) শুরু হয়েছে বহু আগে পরবর্তীতে ৩,৪,৫ এর নামতা (৩৪→১১৬→১৬৭৪) শুরু হয়েছে। মানুষ সচেতন না হলে গুণিতক হার শুধু বাড়তেই থাকবে। ইতোমধ্যে মৃত্যর ডাবল সেঞ্চুরি হয়েছে। আরো অনেক মৃত্যর জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। সকল দেশিই ধাপে ধাপে লকডাউন তুলে হার্ড ইমিউনিটির দিকে হাটছে। যেখানে বেশিরভাগ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাকৃতিক ভাবে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যাবস্থা গড়ে তুলবে। তবে এই জন্য অনেক মৃত্যু মেনে নিয়ে চড়া মূল্য দিতে হবে। আমাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে করোনার জন্য সম্পূর্ণ ডেডিকেট করা , সকল বড় বড় হাসপাতাল প্রস্তুত করা , ২০০০ ডাক্তার ও ৫০০০ নার্স দ্রুত সময়ে নিয়োগ দেয়া তারই লক্ষন। জীবন নাকি জীবিকা ? এই প্রশ্ন থেকে সব দেশই এখন জীবিকাকে বেছে নিয়েছে। কারন লকডাউনের জেরে অর্থনৈতিক ধ্বস শুরু হয়ে গেছে। বিশ্বে দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা করছে জাতিসংঘ যেখানে লক্ষ লক্ষ শিশু খাদ্যাভাবে মারা যাবে। অনাহারে তিন কোটি মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা করছে বিশ্ব খাদ্যে সংস্থা (WFP)। তাছাড়া ILO জানিয়েছে ১৬০ কোটি কর্মক্ষম মানুষ আংশিক বা পুরোপুরি বেকার হওয়ায় সম্ভবনা রয়েছে। তাদের হিসেবে সারাবিশ্বের কয়েক ট্রিলিয়ন ডলার ইতোমধ্যে হাওয়ায় মিশে গেছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (IMF) দাবি ৬০ বছরের মধ্যে এই প্রথম এশিয়ায় শূন্য প্রবৃদ্ধি হবে। বিশ্লেষকদের মতে অনেক দেশের ক্ষতির পরিমাণ হবে তাদের GDP এর ২-১০ শতাংশ। ১৯৩০ সালের গ্রেট ডিপ্রেশন বা মহামন্দার চেয়েও ভয়ঙ্কর হতে পারে এবারের মহামন্দা , যার চাপে ২০% শিল্প দেউলিয়া হতে পারে। আমাদের ৩০০ বিলিয়ন ডলার জিডিপির ১০০ বিলিয়ন ডলার জড়িত আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের সাথে । আমাদের অর্থনীতির মূল দুটি উপাদান রেমিটেন্স ও তৈরিপোশাক আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের অংশ , যা বর্তমানে অত্যান্ত ঝুঁকিতে আছে। আমাদের তৈরি পোশাকের মূল ক্রেতা ইউরোপ ও আমেরিকার অবস্থা টালমাটাল তাদের অর্থনীতিও বেসামাল। আমাদের তৈরি পোশাকের বাজারও এখন ভয়াবহ চ্যালেঞ্জে। যার কিছু নমুনা আমরা দেখতে পাচ্ছি ইতোমধ্যে তৈরি পোশাক খাতে ৩০০ কোটি ডলার বা ২৫০০০ কোটি টাকার ক্রয়াদেশ বাতিল হয়েছে। এপ্রিলের ১৫ দিনে পোশাক রফতানি কমেছে ৮৪%। আর রেমিটেন্সের স্বর্গরাজ্য বলা হয় যে মধ্যপ্রাচ্যকে সেখানে তৈরি হয়েছে আরেক নতুন সংকট। কিছুদিন আগে যে তেলের ব্যারেল ছিল ৬৫ ডলার , বিশ্বব্যাপী টানা লকডাউনের জেরে তা এখন শূন্য ডলারে নেমে গেছে। বিশ্লেষকদের মতে চরম অর্থ সংকটে পরতে যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্য। এর জেরে চাকরি হারিয়ে বাংলাদেশের ফিরে আসতে পারে লক্ষাধিক শ্রমিক। যার কিছু লক্ষণ ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে কিছুদিন আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন ১৫০০০ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাতে চায় মধ্যপ্রাচ্য। আমাদের আরেকটি বড় দুর্বলতা অর্থনীতিকে গ্রামমুখী করতে না পারা অর্থাৎ এক কেন্দ্রিক বা ঢাকা কেন্দ্রিক অর্থনীতি। আর করোনাভাইরাস সংক্রমণের হটস্পট এখন ঢাকা , দেশে কোভিড ১৯ আক্রান্তের অর্ধেকের বেশি রোগী এখানে। ঢাকা অবরুদ্ধ বা লকডাউন মানে বাংলাদেশই অচল। আমাদের দেশের অর্থনীতি ঢাকা নির্ভর , তাছাড়া ব্যাংক তহবিলের ৬০% বিনিয়োগ হয় ঢাকায় ২০% চট্টগ্রামে বাকি ২০% সমগ্র বাংলাদেশে। অর্থনীতির প্রান কেন্দ্র ঢাকা এখন করোনাভাইরাসের ছুবলে বেসামাল। তাই সরকার দীর্ঘ লকডাউন যাবেনা এটাই স্বাভাবিক। তাছাড়া সব দেশের সরকার চাচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগটি মোটামুটি গুছিয়ে সমন্বয় করতে পারলেই তাদের স্বস্তি। কারন রোগের মৃত্যু মানুষ মেনে নিলেও ক্ষুধায় মৃত্যু মানুষ মানবে না। তাছাড়া ক্ষুধার যন্ত্রণায় মানুষ রাস্তায় নামলে সরকারের জন্য যতটা অস্বস্তিকর রোগের যন্ত্রণায় রাস্তায় নামলে বা মৃত্যু বরণ করলে ততটা অস্বস্তিকর নয়। তাই বিশ্বব্যাপী সরকার গুলো জীবন থেকে জীবিকাকে গুরুত্ব দিবে এটাই স্বাভাবিক। কিছুদিন আগে সংক্রমণে সংকটাপন্ন রোগীর হার ছিল ৬% এখন তা কমে ২% অর্থাৎ ৯৮% রোগীর সংক্রমণই মৃদু মাত্র ২ % গুরুতর। তাই হার্ড ইমিউনিটি অর্জনের আগ পর্যন্ত , অল্প কিছুদিন বয়স্ক ও পূর্বে থেকে জটিল রোগে আক্রান্তদের একটু সামলে রাখতে পারলে হয়তোবা সম্মিলিত ভাবে পরিত্রাণ পাবো ভয়াবহ এই মহামারি থেকে।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ