কোভিড ১৯ মোকাবিলায় সম্পদ ব্যর্থ, সচেতনতা সফল

নাজমুল হক: যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় ইরানের অর্থনীতি খুবই নাজুক ইরানের ১০০০ রিয়াল = বাংলাদেশের ২ টাকা। কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব চীনের পরেই ইরানে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। কোনো পূর্বপ্রস্তুতির সুযোগ না দিয়ে হঠাৎ করেই করোনার তাণ্ডব শুরু হয় চীনের ঘনিষ্ঠ ইরানে। ফলে প্রথমদিকে পরিস্থিতি সামলাতে কর্তৃপক্ষকে হিমশিম খেতে হয়েছে। তবে দ্রুতই ঘুরে দাঁড়ায় মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটি। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে সংকটে থাকা ইরান করোনা পরিস্থিতি খুব দক্ষতার সঙ্গেই সামলে দিচ্ছে। সংকটের কয়েক মাস পর যুক্তরাজ্যের মতো দেশকে যেখানে স্বাস্থ্যকর্মীদের পিপিই দিতে হিমশিম খেতে হয়, সেখানে ইরানে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। ইরান মৃত্যুর হার নিয়ন্ত্রণে ইউরোপ-আমেরিকার চেয়ে সফলতা দেখিয়েছে।অথচ কঠিন এ সময়টাতে আইএমএফের কাছে ঋণ চেয়েও ইরান পায়নি যুক্তরাষ্ট্রের বাধার কারণে। ইরানে দ্রুত আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকলেও মৃত্যু ছিল সে তুলনায় অনেক কম। তার মানে হল, অসুস্থদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে সক্ষম হয়েছে ইরান।জনসংখ্যার অনুপাতে ইরানে মৃত্যুর হার ইউরোপ-আমেরিকার চেয়ে অনেক কম।
মৃত্যুর হার নিয়ন্ত্রণে দেশটি ইউরোপের সবচেয়ে সফল দেশে জার্মানির চেয়েও সাফল্য দেখিয়েছে। তাছাড়া বেলজিয়ামে যেখানে প্রতি ১ হাজারে মারা গেছে ১৬৪, স্পেনে ১০১ জন , ফ্রান্সে ১৪৯, ব্রিটেন ১৪৮, ইতালিতে ১৩৯, সুইডেন ১২৩ কানাডায় ৬৮ আর ইরানে মাত্র ৬২ জন। এতে বোঝা যাচ্ছে, অর্থনৈতিক সংকটে পর্যুদস্ত থাকলেও ইরানে স্বাস্থ্যসেবার মান এসব দেশের চেয়ে কোনো অংশে কম নয় (তথ্যসূত্র ইউরো নিউজ)।
মহামারী মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নির্মাণে ইরান প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ইরানের তৈরি ভেন্টিলেটর কেবল নিজেদের চাহিদা মেটাতেই সক্ষম হয়েছে তা নয়; বরং এর চাহিদা বাড়ছে বিশ্বের অনেক দেশেই। রাশিয়া, ইতালি ও স্পেনসহ কয়েকটি দেশ ইতোমধ্যে ভেন্টিলেটর রফতানির জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ইরানকে।বর্তমানে ইরানের বিশেষজ্ঞরা করোনা নির্ণয়ের কিট তৈরি করছেন এবং সপ্তাহে এক লাখ কিট তৈরিতে তারা সক্ষম। এ রোগ মোকাবেলায় অন্য দেশের তুলনায় ইরান অনেক বেশি সফল (তথ্যসূত্র যুগান্তর)। চীনের সাথে লাগোয়া সীমান্ত অর্থাৎ গা ঘেঁষে থাকা এবং অর্থনৈতিক ভাবে অনেকটা বিধ্বস্ত নেপাল। করোনায় ধ্বংস-বিধ্বস্ত হয়ে যাওয়ার কথা ছিল অথচ আজ দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে নিরাপদ সেই নেপাল । উহান শহরে প্রথম এ ভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ১১ জানুয়ারি , এর দুদিন পর ১৩ জানুয়ারিতে চীনের বাইরে নেপালে প্রথম ভাইরাসটির সংক্রমণ ধরা পড়ে এপ্রিলের ২২ তারিখ তাদের সংক্রমণের ১০০ দিন হবে অথচ আক্রান্ত এতই কম যে , নাই বললেই চলে। ১৮ এপ্রিল শনিবার পর্যন্ত মোটআক্রান্ত ৩১জন আর এই পর্যন্ত মারা যায়নি কেউ। আর আমাদের ৬৩ দিনের চিত্র অনেক ভয়ঙ্কর আক্রান্ত প্রায় ১৪০০০ এবং মৃত্যু ২০৭ জন। নেপালের সাথে আমাদের সম্পর্ক অত্যান্ত গভীর আমাদের ভাষা ও সাহিত্যের প্রাচীনতম নিদর্শন চর্যাপদ নেপাল থেকে পাওয়া।আয়তনে বাংলাদেশ ও নেপাল প্রায় সমান-সমান , বাংলাদেশের আয়তন ১,৪৭,৫৭০ বর্গকিলোমিটার (ছিটমহল ছাড়া) আর নেপালের আয়তন ১,৪৭,১৮১ বর্গকিলোমিটার। সাইজে সমান হলেও অর্থনৈতিক ও মানসিক পার্থক্য অনেক।
২০১৮ এর অর্থনৈতিক তুলনামূলক চিত্র(হিসাব ডলারে)
বাংলাদেশ নেপাল
মাথাপিছু GDP ১৭৮৮ ডলার ১০৩৪ ডলার
বার্ষিক আয় ১৪ বিলিয়ন ৩.৫ বিলিয়ন
বার্ষিক রপ্তানি ২৫ বিলিয়ন ১ বিলিয়ন
মোট GDP ১১৬ বিলিয়ন ১৯ বিলিয়ন
বেকারত্ব ৫% ৪৬%
অর্থনীতি র‍্যাঙ্কিং ৭৬ তম ১১৯ তম অর্থনৈতিক শক্তিতে আমরা নেপাল থেকে অনেক দূর এগিয়ে কিন্তু মানসিক শক্তিতে অনেক পিছিয়ে। আমাদের মাথাপিছু শিক্ষা ব্যায় ২৩ ডলার আর নেপালের মাথাপিছু শিক্ষাব্যায় আমাদের দ্বিগুণ অর্থাৎ ৪৬ ডলার তাছাড়া আমাদের মাথাপিছু স্বাস্থ্য ব্যায়ও নেপালের অর্ধেকের কিছু বেশি(হিসাব – ২০১৬)।এছাড়া বাংলাদেশের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ব্যায় দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে নিচে। আর নেপালের অর্থনীতি যদি আমেরিকার সাথে তুলনা করি তবে সম্পর্কটা হবে আকাশ আর পাতাল। কিন্তু সম্পদের শীর্ষে থাকা এই দেশটির মৃত্যুর মিছিল যেন থামছেই না আজ তাদের মৃত্যুর সংখ্যা ৮০ হাজারের বেশি আর আক্রান্ত প্রায় ১৩ লক্ষ ৫০০০০। তার মানে সম্পদ ভাইরাসকে রুখতে পারেনি কিন্তু সচেতনতা তা পেরেছে এইটি এখন প্রমাণিত।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ