মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা: আজ ২৮ ফেব্রুয়ারি তেজগাঁও শাহীনবাগের সাবেক সফল চেয়ারম্যান মরহুম হাজী মফিজুল ইসলাম এবং হাজেরা খাতুনের ঘর আলোকিত করে সাজেদুল ইসলাম সুমন জন্মগ্রহণ করেছিল। পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন ছিল। ছোট্ট সুমন যখন বড় হতে শুরু করলো তখনই সকলের হৃদয়ে ঠাঁই নিতে শুরু করলো তার কর্মের মধ্য দিয়ে। আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা সকলের কাছেই প্রিয় মুখ হয়ে উঠলো সুমন। বাবার হাত ধরে সমাজ সেবার পাশাপাশি রাজনীতি শুরু করলো। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির হাতেখড়ি হলেও যখন সাবেক ৩৮নং ওয়ার্ড বর্তমান তেজগাঁও থানার ২৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত হল দলীয় প্রার্থী তখন তার পদ ছিল ৩৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক। ২০১৩ সালের ৬ ডিসেম্বর সাজেদুল ইসলাম সুমন সহ একই দিনে ঢাকা শহর থেকে ৮ জন নিখোঁজ হয়ে গেল। সুমনের স্ত্রী ও আর দুই কন্যা সন্তান তারপর থেকে সুমনের পথের দিকে চেয়ে থাকে। এই বুঝি প্রিয় মানুষটি কড়া নেড়ে ডাকলো।

আজকের এই দিনে সুমনের শুভ জন্মদিন। আনন্দহীন জন্ম উৎসব কান্না ছাড়া আর কিছু নেই। সুমনের ছোট বোন সানজিদা ইসলাম তুলি তার ফেসবুক স্টাটাসে আবেগঘন হৃদয়ে লিখলো ‘ভাই, তুই কবে আসবি? তোর জন্মদিন আমরা কি পালন করতে পারবো? এদেশে তো কারাগারেও লাশ হয়ে ফিরতে হয়। তুই কেমন আছিস?’ সুমনের ছোট্ট মেয়ে আরোয়া এখন স্কুলে যায়। সে কাছে যেতেই চাচ্চু বলে ডেকে বলে, ‘কোথায় চাচ্চু বাবা কে নিয়ে আসোনি কেন? বাবা কবে আসবে?’ এর উত্তর দিতে গেলে চোখের কোনায় অজ¯্র জল এসে পড়ে। কন্ঠ থেকে কোন কথা বের হয় না। তার বৃদ্ধ মা হাজেরা খাতুন সন্তানের অপেক্ষায় থাকতে থাকতে অন্ধ হয়ে গেছে। এখন কোন কথা বলতে পারে না। কেউ গেলে বোবার মত তাকিয়ে আর কি যেন খোঁজে। অথচ আজ যদি সুমন থাকতো তাহলে এই পরিবারে আনন্দের কোন সীমা থাকতো না। সুমনদের মতো যারা গুম হয়ে গেছে তাদের সকলের পরিবারে গুম হওয়া ব্যক্তিদের জন্মদিন এলে কান্নার দিন হিসেবেই পালিত হয়। অজানা প্রতীক্ষা আর অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে তাদের দিন যেন শেষই হয় না। এভাবে আর কত বছর তারা অপেক্ষা করবে। কেউ কি ফিরে আসবে না?

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর উৎসব পালন করবে বাংলাদেশ। আমরা বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষ এই উৎসবের সাথে শামিল হতে চাই বুক ভরা ভালবাসা, আনন্দ ও দেশপ্রেম নিয়ে। কিন্তু যাদের পরিবারের প্রিয় সদস্য গুম হয়েছে তাদের কেউ কি এই উৎসবে আনন্দ নিয়ে শামিল হতে পারবে?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি তো স্বপ্নের পদ্মা সেতু বাস্তবে রূপ দিয়েছেন, ঢাকায় মেট্রোরেল উপহার দিয়েছেন, গুম হওয়া পরিবারের সদস্যদেরকে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিব জন্মশত বার্ষিকীতে ফিরিয়ে দিয়ে সবাইকে মহাউৎসবে মিলিত করার সুযোগ করে দিন। জন্ম উৎসবে আর কান্নার রোল দেখতে চাই না। দেখতে চাই ফিরে আসবে আমাদের সকলের প্রিয় সাজেদুল ইসলাম সুমন সহ গুম হওয়া সকল সদস্যবৃন্দ।

লেখক,
চেয়ারম্যান
বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি

Previous articleরাস্তার মাঝে বেষ্টনী কমিয়েছে সড়কের মৃত্যু
Next articleরংপুরে মানবতার সেবক মিলনমেলা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।