রফিক সুলায়মান: আমার অন্যতম পছন্দের লেখকদের মধ্যে তিনি সম্মুখ কাতারে। ‘আজব ও জবর-আজব অর্থনীতি’ এবং ‘পরার্থপরতার অর্থনীতি’ – এই দুটো অমর গ্রন্থের জন্য তিনি প্রাতঃস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। আর তাঁর সাহস ছিলো দুঃসাহসিক। সাবেক রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন-এর কেয়ার-টেকার সরকারের উপদেষ্টা থাকার সময় তাঁর বিভিন্ন বক্তব্য জাতিকে অনুপ্রাণিত করতো। তাঁর অনেক উক্তি সমকালকে অতিক্রম করেছে। আকবর আলি খান এক লেখায় বলেছিলেন, জলের মাছ জল পান করে কিনা এটা জলের বাইরের কারো পক্ষে কোনদিনই জানা সম্ভব নয়। সরকারের আমলাদের করাপশনও তেমনি সাধারণ মানুষের পক্ষে জানা অসম্ভব।

প্রশাসক হিসেবে আকবর আলি খান কেমন ছিলেন – এটি বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ জানেন। রাজস্ব বোর্ডের সভাপতি, অর্থসচিব, মন্ত্রীপরিষদ সচিব এবং কেয়ার-টেকার উপদেষ্টার বাইরে সরকারি পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে তিনি শিক্ষকতাও করেছেন বেশ ক’বছর।

এখানে একটা ঘটনা ঘটেছিলো। স্বাধীনতার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষকের বিরুদ্ধে দালালির অভিযোগ উঠেছিলো। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য দারোগাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু ভিসি চাচ্ছিলেন একটি একাডেমিক কাউন্সিল করে বিষয়গুলো নিষ্পত্তি করতে। বঙ্গবন্ধু শিক্ষামন্ত্রী ইউসুফ আলীকে ডেকে তাই করতে বললেন। উপসচিব আকবর আলি খান নোট লিখলেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি বরাবর। নোটে তিনি যুক্ত করে দিলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর আদেশটি নির্বাহী আদেশ। আর আগের আদেশটি আইন মন্ত্রণালয়ের। তাই এই বিষয়টি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত গ্রহণ করা প্রয়োজন।’ (স্মৃতি থেকে, পুরানো সেই দিনের কথা)

রাষ্ট্রপতি ফাইল আটকে দিলেন। কয়েকদিনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীও অবগত হলেন। স্বাধীনতার পর যেসব আমলা বঙ্গবন্ধুর সব আদেশকে জী হুজুরের মতো পালন করতেন, আকবর আলি খান তেমন ছিলেন না। তিনি প্রকৃত চিত্র তুলে ধরতেন। এই ঘটনায় বঙ্গবন্ধু খুশী হয়েছিলেন। এর প্রমাণ নিচে।

শিক্ষামন্ত্রী ইউসুফ আলীর সাথে দূরত্ব বাড়ছিলো তাঁর। সরকারি চাকুরিতে তিনি ক্লান্ত। তাই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিলেন। তিনি জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার সিদ্ধান্ত নিলেন। এবার বেঁকে বসলেন বঙ্গবন্ধু। তিন বছর পর প্রশাসনে ফিরে আসার শর্তে আকবর আলি খানকে তিনি ছুটি দিলেন। কারণ প্রশাসনে তাঁর মতো আমলা দরকার। বঙ্গবন্ধু সেদিন পদত্যাগ পত্রকে ছুটিতে পরিণত না করলে দেশ প্রশাসক আকবর আলি খানকে হয়তো পেতো না।

মুক্তিযোদ্ধা, আমলা, লেখক এবং সাবেক কেয়ার-টেকার উপদেষ্টা আকবর আলি খানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি। তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করি। আমীন।

রফিক সুলায়মান: লেখক ও শিল্প-সমালোচক

Previous articleকলাপাড়ায় নামাজ শেষে বাড়ি ফেরা হল না বৃদ্ধের, বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায় মৃত্যু
Next articleতারাগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস-অ্যাম্বুলেন্সের মুখোমুখি সংঘর্ষে নবজাতকসহ নিহত ৩, আহত ৬
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।