রফিক সুলায়মান: সহিংস রাজনৈতিক পরিবেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারেনা উল্লেখ করে যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা কাউন্সিলের কৌশলগত যোগাযোগ সমন্বয়ক জন কিরবি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য সহিংসতা, হয়রানি এবং ভীতি মুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।’ তাঁর বক্তব্যের কোথাও ‘মার্কিন নিষেধাজ্ঞা’র কথা বলা হয় নি।

গত অক্টোবর ২৮, ২০২২ যুক্তরাষ্ট্রের ফরেন প্রেস সেন্টারে বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসনের পররাষ্ট্রনীতির অগ্রাধিকার সংক্রান্ত এক প্রেস ব্রিফ্রিংয়ে বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন নিয়ে দেশটির অবস্থান প্রসঙ্গে উত্থাপিত এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন বাইডেন প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন এই নিরাপত্তা কর্মকর্তা।

প্রশ্নকারী ছিলেন বিতর্কিত সাংবাদিক মুশফিকুল ফজল চৌধুরী। ২০০১-০৬ সালে তিনি বেগম খালেদা জিয়ার উপ-সহকারী প্রেস সচিব ছিলেন। বর্তমানে স্টেট ডিপার্টমেন্ট প্রেস উইং এ কাজ করছেন।

ব্রিফ্রিংয়ে জন কিরবির কাছে তিনি জানতে চান, ‘বাংলাদেশের জনগণ গণতন্ত্র, ভোটাধিকারের জন্য সংগ্রাম করছে। নোবেল বিজয়ী ড. মোহাম্মদ ইউনূস মিথ্যা মামলায় হয়রানির শিকার, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এখনো কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে। বর্তমান শাসকগোষ্ঠী মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় জিরো টলারেন্স দেখাচ্ছে। তারা ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট নামে কালা কানুনের প্রয়োগ ঘটাচ্ছে। বাংলাদেশে ইতিমধ্যে আমরা ২ টি প্রহসনের নির্বাচন দেখেছি। নির্বাচনে প্রহসনের কথা উঠে এসেছে স্টেট ডিপার্টমেন্ট, মানবাধিকার সংস্থার রিপোর্ট এবং আন্তর্জাতিক বিশ্বের সমালোচনায়। আরেকটি জাতীয় নির্বাচন আসন্ন। সে নির্বাচনটি কী আরেকটি সাজানো নিবার্চন হবে নাকি অংশগ্রহণমূলক হবে তা নিয়ে জনগণের মনে ব্যাপক সংশয়। বাংলাদেশের বড় অংশীদার দেশ হিসেবে আগামী নির্বাচনের বিষয়ে আপনার মন্তব্য কী? বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে বাইডেন প্রশাসনের অবস্থান কী?’

জবাবে জন কিরবি বলেন, ‘আমাদের অবস্থান একেবারে স্পষ্ট। বাংলাদেশ এবং পৃথিবীর সব জায়গাতেই স্বাধীন মতপ্রকাশের সুযোগ থাকা দরকার। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করার সুযোগ থাকতে হবে। জনগণের প্রত্যাশাকে সম্মান দেখাতে সরকারকে মুক্তমত এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশের ক্ষেত্র তৈরি করে দিতে হবে।’

বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে জন কিরবি বলেন, ‘রাজনৈতিক সহিংস পরিবেশে অবাধ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারেনা। বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের জন্য এমন পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে যে পরিস্থিতি হবে সহিংসতা, হয়রানি এবং ভীতি মুক্ত। প্রার্থীরা যাতে নির্বিঘ্নে প্রচারণা চালাতে পারে। আমরা এটাই চাই।’

জন কিরবি তাঁর বক্তব্যে embargo কিংবা sanction কথাটি উচ্চারণ না করলেও বিএনপি-জামাতপন্থী কয়েকটি মিডিয়া এবং ইউটিউব চ্যানেল মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আসছে বলে লম্ফঝম্ফ শুরু করে দিয়েছে। এসবের মাধ্যমে সাধারণ জনগণকে ভুল বার্তা দেয়া হচ্ছে।

কে এই মুশফিকুল ফজল চৌধুরী?

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশের জনগণ ও নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র করছেন মুশফিকুল ফজল চৌধুরী। খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মেয়াদের সরকারের সময় তাঁর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি ছিলেন তিনি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে মুশফিক নিজের পরিচয় দিয়ে থাকেন খালেদা জিয়ার ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটির সদস্য সচিব। মুশফিক ফজল আনসারী ২০১৫ সাল থেকে আমেরিকার নিউইয়র্ক সহ বিভিন্ন রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে বিএনপি ও সমমনাদের সভা-সমাবেশে নিয়মিত বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। ২০১৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশন অভিযোগ করে মুশফিক ফজল আনসারী জাতিসংঘের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিং গুলোতে হাজির হয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করে আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছেন তিনি। মুশফিক বিএনপি-জামাতের লবিস্ট হয়ে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ানের বিরুদ্ধে ২০১৫ সাল থেকেই জাতিসংঘে অভিযোগ করে আসছে এবং আরও অভিযোগ করেছে জাতিসংঘ মিশনে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যদের দিয়ে RAB গঠিত হয়েছে।

মুশফিকুল ফজল আনসারী বিভিন্ন অনৈতিক ও গুজব প্রচার করার কারনে নিউ ইয়র্কে কর্মরত বাংলাদেশের সাংবাদিকরা বিব্রত। উল্লেখ্য মুশফিকুল ফজল আনসারী বিতর্কিত বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরীর নিকটাত্মীয়। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত জাস্ট নিউজ বিডি.নেট নামে অনলাইন পত্রিকার সম্পাদক পরিচয় দিয়ে জাতিসংঘ, হোয়াইট হাউস ও ওয়াশিংটন প্রেসক্লাবের সদস্যপদ লাভ করে। ২০১৭ সালে হোয়াইট হাউজের প্রেস কোরের খণ্ডকালীন ক্রেডেনশিয়াল লাভ করে। এখানে উল্লেখযোগ্য একটি দিক হচ্ছে বিএনপি-জামাতের অর্থায়নে পরিচালিত মুশফিক ফজল আনসারী ওয়াশিংটনে বসবাস করে নিয়মিত অনুষ্ঠান আয়োজন করে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে যাচ্ছেন।

কয়েক সপ্তাহ আগে মুশফিকুল ফজল আনসারী জাতিসংঘে মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডোজারিকের এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উস্কানিমূলক প্রশ্ন করেছিলেন। জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন ডোজারিক অবশ্য তাঁর প্রশ্নটি এড়িয়ে যান। তিনি একবাক্যে বলেন, ‘আমি আপনাকে হাইকমিশনারের দেয়া বক্তব্যের প্রতি আবারো দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই।’ এরকম চপেটাঘাতের পর সেদিন থামলেও গত বুধবার তিনি সফল হন।

রফিক সুলায়মান : লেখক ও শিল্প-সমালোচক

Previous articleঝিমানো পৃথিবী – আবদুল হাকিম
Next articleপাঁচবিবিতে ভার্মি কম্পোস্ট সার তৈরী করে স্বাবলম্বী দুই নারী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।