রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeসম্পাদকীয়জয় বাংলা' স্লোগানটি আমার, আমাদের - রফিক সুলায়মান

জয় বাংলা’ স্লোগানটি আমার, আমাদের – রফিক সুলায়মান

‘জয় বাংলা’ আমাদের স্বাধিকার এবং মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান। ‘জয় বাংলা’ আমাদের প্রিয় বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠতম মহাকাব্য। ‘জয় বাংলা’ নজরুলের কবিতায় চয়িত শব্দবন্ধ।
অথচ প্যারিসে বসে এক স্বঘোষিত সোশ্যাল ইনফ্লুয়েন্সার প্রতিনিয়ত এই স্লোগান নিয়ে ইয়ার্কি ফাজলামো করে যাচ্ছে। তার ইয়ার্কির নমুনা ‘রিজার্ভের টাকার জয়বাংলা হইয়া গেছে’ ‘গণতন্ত্র জয়বাংলা হইয়া গেছে’ ‘শেখ হাসিনার ক্ষমতার জয়বাংলা হইয়া গেছে’ ‘র‍্যাবের জয়বাংলা হইয়া গেছে’ ইত্যাদি।
মাওলানা পিনাকী ভট্টাচার্য্যকে বলছি, জয় বাংলা স্লোগান নিয়ে আপনার ইয়ার্কি ফাজলামো বন্ধ করুন। জয় বাংলা জাতির এক অহংকার। আপনি যাদের পক্ষে কাজ করছেন তারা পূর্ণিমা রাণীর গগণবিদারী চিৎকারেও নির্বিকার ছিলো। তারা একুশে আগস্ট সৃষ্টি করেছিলো। তারা ১০ ট্রাক অস্ত্র এনেছিলো দেশে নারকীয় তাণ্ডব সৃষ্টি করতে। তারা হাওয়া ভবন সৃষ্টি করে সমান্তরাল সরকার সৃষ্টি করেছিলো।
জয় বাংলা’র ইতিহাস
“জয় বাংলা” স্লোগানটির জন্ম ঠিকুজি সম্পর্কে নানা গ্রন্থে বলা আছে। ১৯৬৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভায় রাষ্ট্রবিজ্ঞানের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ও ছাত্রলীগ নেতা আফতাবউদ্দিন আহমদ অনেকটা আকস্মিকভাবেই ‘জয় বাংলা’ স্লোগান প্রথম উচ্চারণ করেন। সেই স্লোগানের প্রথম প্রত্যুত্তর করেন আরেক ছাত্রলীগ নেতা ও দৈনিক আজাদ পত্রিকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি শহীদ চিশতী শাহ হেলালুর রহমান।
দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটে এর তিন মাস পরে, ৪ জানুয়ারি ১৯৭০। ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। সকালে রমনা বটমূলে আলোচনা ও র‌্যালি। আলোচনা সভার সভাপতি মোজাফফর আহমেদ চৌধুরী এবং প্রধান অতিথি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পাকিস্তানি সামরিক জান্তা আইয়ুব খান প্রকাশ্যে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করার পরে এই প্রথম জনসম্মুখে শেখ মুজিব। মঞ্চে উপবিষ্ট বঙ্গবন্ধুর পেছনে দেবদারু পাতায় ছাওয়া ব্যানারে হলুদ গাঁদাফুল দিয়ে লেখা দুটি শব্দ: ‘জয় বাংলা’। খুব ছোট্ট দুটি শব্দ অতি দ্রুত সমাবেশে উপস্থিত জনতার মাঝে ছড়িয়ে যায়। আলোচনা শেষে ছাত্রলীগ ‘জয় বাংলা’ লেখা ওই ব্যানারটি নিয়ে র‌্যালি বের করে, যা শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। পরদিন সংবাদপত্রে বঙ্গবন্ধুর বক্তৃতার পাশাপাশি ‘জয় বাংলা’ ব্যানারটির কথাও উল্লেখ করা হয়। এর কয়েকদিন পরেই ১১ জানুয়ারি পল্টনে আওয়ামী লীগের জনসভায়ও এই স্লোগানটি ব্যবহৃত হয়। মহিউদ্দিন আহমদ (প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ২৭) লিখেছেন, ধীরে ধীরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান জনপ্রিয় হতে থাকে। ওই সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ছাত্র সংসদ নির্বাচন হচ্ছিলো। সত্তরের ৬ মে ডাকসু ও হল সংসদগুলোর নির্বাচনের সময়ে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান ছিল চেখে পড়ার মতো। মহিউদ্দিন আহমদ জানাচ্ছেন, ওই বছরের ৭ জুন রেসকোর্স ময়দানের বিশাল জনসভায় বঙ্গবন্ধু প্রথমবারের মতো তাঁর ভাষণে এই স্লোগানটি উচ্চারণ করেন।
আবার কেউ, কেউ ‘জয় বাংলা’ স্লোগানের জন্ম ঠিকুজি খুঁজতে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘পূর্ণ-অভিনন্দন’ কবিতার উল্লেখ করেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের নেতা মাদারীপুরের স্কুল শিক্ষক পূর্ণচন্দ্র দাস ১৯২২ সালে গ্রেফতার হন এবং পরবর্তীতে কারামুক্ত হন। তাঁর কারামুক্তি উপলক্ষ্যে নজরুল লিখেছিলেন আলোচ্য কবিতাটি। “এই কবিতায় কাজী নজরুল ইসলাম প্রথম ‘জয় বাংলা’ শব্দটি ব্যবহার করেন। তার রচিত ‘বাঙালির বাঙলা’ প্রবন্ধেও জয় বাংলা পাওয়া যায়। নিচে ‘পূর্ণ-অভিনন্দন’ কাব্য থেকে উদ্ধৃত হল:
‘জয় বাঙলা”র পূর্ণচন্দ্র, জয় জয় আদি অন্তরীণ,
জয় যুগে যুগে আসা সেনাপতি, জয় প্রাণ অন্তহীন।’
কিছুদিন আগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও জানিয়েছিলেন যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘জয়বাংলা’স্লোগানটি নজরুলের কবিতা থেকেই চয়ন করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে “জয় বাংলা” স্লোগানটি একটি ভিন্ন মাত্রা অর্জন করে এবং বাংলাদেশের বাঙ্গালীদের মহান মুক্তি সংগ্রামের অমর কাব্য হয়ে ওঠে। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে যে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেছিলেন তার শেষে তিনিও বলেছিলেন “জয় বাংলা”। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা একটি সফল অপারেশন শেষে চিৎকার করে বলতেন, “জয় বাংলা”। তবে সিনিয়র সাংবাদিক সোহরাব হাসানের মতে, “একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় এটি প্রধান রণধ্বনিতে রূপান্তরিত হলেও সব মুক্তিযোদ্ধা এই স্লোগান দেননি। অনেকে সমাজ বিপ্লবের পক্ষে স্লোগান দিয়েছেন” (প্রথম আলো: জুলাই ১৯, ২০১৪)। অর্থাৎ, মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশ নিয়েও একদল মুক্তিযোদ্ধা তাঁদের ভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শের বিচারে “জয় বাংলা”কে একটি নির্দিষ্ট দলের স্লোগান হিসেবেই দেখেছেন এবং এ কারণে তাঁদের দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা কতটুকু যৌক্তিক তাও ভেবে দেখার বিষয়। কিন্তু, পরিতাপের বিষয় হলো এই যে, আমরা স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে তাঁদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্বলিত ভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শের চর্চাকে ডালপালা মেলতে দেইনি, যা না হলে আজ হয়তো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রশ্নে আমরা এমন লৌহকঠিন বাইনারীর ফাঁদে পতিত হতাম না। তবে, তাঁদেরও দায়িত্ব ছিল মুক্তিযুদ্ধকালীন এই স্লোগানের গণরণধ্বনিতে রূপান্তরিত হওয়ার বিষয়টিকে বিবেচনায় নেয়া। বোঝাপড়া ও বিশ্বাসের অভাব মূলত সব দিকেই ছিল যা মেরামতের মূল দায়িত্ব ছিল শাসককূলের।
১৯৭৫ এ রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর থেকে এই স্লোগানটির রাজনৈতিক ব্যবহার হ্রাসকল্পে প্রকারান্তরে স্লোগানটিকে হিমঘরে পাঠানো হয়, যা কোনভাবেই কাম্য ছিল না। বর্তমান সময়ে এই স্লোগানটির যথেচ্ছ অপরাজনৈতিক ব্যবহারের কারণে কেউ কেউ স্লোগানটিকে ঠাট্টা-মশকরার বিষয়ে পরিণত করছেন যা ভীষণ পরিতাপের উদ্রেক করে। কোন মহৎ মতবাদ (ধর্মীয়, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক), কাজ, ভাষা ইত্যাদির অপব্যবহারে যেমন ওই মহৎ মতবাদ, কাজ বা ভাষার গুরুত্ব কমা উচিত নয়, তেমনি আমাদের মহান মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাস বিবেচনায় “জয় বাংলা” স্লোগানের তাৎপর্য এতটুকুও হ্রাস পেতে পারে না। “জয় বাংলা” স্লোগানের সর্বজনীন, বারোয়ারি উচ্চারণই কেবল এই স্লোগানের অপব্যবহার হ্রাস করতে পারে। মাথা ব্যথার জন্য মাথা কেটে ফেলা নিশ্চয়ই কোন সমাধান নয়।
এক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হচ্ছে, সবসময় কি “জয় বাংলা” স্লোগানের রাজনৈতিক ব্যবহার/অপব্যবহারই এই স্লোগানটি উচ্চারণে কাউকে, কাউকে দ্বিধান্বিত করেছে? তবে কেন গৌরিপ্রসন্ন মজুমদার তাঁর রচিত “শোন একটি মুজিবরের থেকে” গানটিতে সেই ১৯৭১ সালের এপ্রিলের ১৩ (মতান্তরে ১৫) তারিখে লিখলেন যে, “জয় বাংলা বলতে মনরে আমার এখনো কেন ভাবো”?
এখানে কি মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তিকে ইঙ্গিত করা হয়েছিল যারা “জয় বাংলা” উচ্চারণে দ্বিধান্বিত ছিল? এই আশংকা খুব অমূলক নয়। ফলে, যারা “জয় বাংলা” স্লোগানের রাজনৈতিক ব্যবহার/অপব্যবহার হেতু এই মহান স্লোগানটিকে এড়িয়ে চলতে চাইছেন তারা কি প্রকারান্তরে উপরোক্ত স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির পালে অজান্তেই হাওয়া দিয়ে দিচ্ছেন?
তাই এদিক অথবা ওদিক, কারও ফাঁদেই পা না দিয়ে নিজেকে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের উত্তরাধিকার মনে করে, হৃদয়ে বাংলাদেশকে ধারণ করে উচ্চারণ করুন “জয় বাংলা”। স্লোগানটি আমার, আমাদের।
মাওলানা পিনাকী ভট্টাচার্যের পাল্লায় পড়ে আওয়ামী লীগ বিরোধী অনেকেই এখন জয় বাংলা নিয়ে কটুক্তি করছে। ইলিয়াস হুসেন, গোলাম মাওলা রনি, মুশফিক ফজল চৌধুরী, ফাহাম আবদুস সালাম (মীর্জা আলমগীরের মেয়ের জামাতা), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের শিক্ষক আসিফ নজরুল, ভিপি নূর, রেজা কিবরিয়া প্রমুখের কথাবার্তা শুনলে মনে হয় অচিরেই তারা সরকার গঠন করতে যাচ্ছে এবং রাষ্ট্রের খোলনলচে পাল্টে দিয়ে নতুন বাংলাদেশ গড়তে যাচ্ছে।
পরিশেষে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের কথার রেশ ধরে বলতে চাই, জয় বাংলা কেবল একটি স্লোগান নয়, জয় বাংলা একটি অনুভূতির নাম।
(সহায়ক রচনা : অধ্যাপক রশীদ মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
আমি সিরাজুল আলম খান, একটি রাজনৈতিক জীবনালেখ্য, পৃষ্ঠা ১০৯
জাসদের উত্থান পতন: অস্থির সময়ে রাজনীতি, পৃষ্ঠা ২৬)
রফিক সুলায়মান : লেখক, সাংবাদিক এবং শিল্প-সমালোচক
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments