সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
Homeসম্পাদকীয়সুরের ভুবন ত্রিপুরা ভ্রমন - করিম হাসান খান

সুরের ভুবন ত্রিপুরা ভ্রমন – করিম হাসান খান

আমার পূর্ব পুরুষের আদি নিবাস বলা যায় ত্রিপুরা । সে কারণেই ত্রিপুরা নামের মাঝে আমি আমার ইতিহাস, এতিহ্য এবং অস্তিত্ব খুঁজে বেড়াই । আমার পিতামহের একটি পুস্তকের কথা স্মৃতিপটে ভেসে বেড়ায়, পুস্তকটির নাম “গৃহস্থের বন্ধু” । পিতামহের কথা আমার মনে নেই তবে পুস্তকটি দীর্ঘদিন আমাদের ঘরে সংরক্ষিত ছিল। পুস্তকের উপরভাগে দাদার স্বহস্তে লিখা ছিল “শ্রী সুবেদ আলী খাঁ, গ্রাম-কুলাসিন, থানা-নবীনগর, জিলা-ত্রিপুরা”। ১৯৪৭ সনের ভারত বিভাজনে জিলা-ত্রিপুরা চলে আসে পূর্ব -পাকিস্তান অংশে । তারপর ১৯৪৭ সন থেকে ১৯৬০ সন পর্যন্ত জিলা-ত্রিপুরাই ছিল। ১৯৬০ সনে নামকরণ করা হয় কুমিল্লা।

যা বলছিলাম, ত্রিপুরা নামের প্রতি আমার এখনও দুর্বলতা রয়েছে, চোখে ভাসে পিতামহের হাতের সেই লেখনী । ছোটবেলা থেকেই একটি বিষয় জানতাম তা হলো শিল্পীরা শিল্প অঙ্গনে কেউ কেউ তাদের প্রকৃত নামের পরিবর্তে ছদ্মনাম ব্যবহার করে। আমিও ভাবতাম প্রচার মাধ্যমে আমার নাম দিব “আনু ত্রিপুরা”- উল্লেখ্য আমার ডাকনাম আনু।

অবশেষে সম্প্রতি আগরতলার বিখ্যাত নজরুল সংগঠন সুর-অঞ্জলি’র কর্ণধার বিশিষ্ট নজরুলসঙ্গীত শিল্পী, গবেষক ও লেখক শ্রীমতি মায়া রায় দিদির আমন্ত্রণে দীর্ঘ প্রতিক্ষিত আমার প্রাণের ত্রিপুরা ভ্রমণ এবং আগরতলায় সুর-অঞ্জলী আয়োজিত কবি নজরুলের ১২৪তম জন্মুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে
অংশগ্রহণের সৌভাগ্য হয় আমার ।

রবীন্দ্র শতবার্ষিকী ভবনের বিশাল মিলনায়তনে শ্রোতাপূর্ণ হলে সংবর্ধনা এবং সঙ্গীত পরিবেশনা আদি ত্রিপুরাবাসী হিসেবে আমার জীবনের একটি বড় প্রাপ্তি। ইতিপূর্বে কোলকাতার বিড়লা অডিটোরিয়াম, রবীন্দ্রসদন, কোলকাতা ময়দান এবং হালিশহর রামপ্রসাদ মাঠসহ ভারতের অনেক স্থানে সঙ্গীত পরিবেশন করার সুযোগ ও সৌভাগ্য আমার হয়েছে।

এবার ত্রিপুরা নিয়ে কিছু কথা- বৃহত্তর বাংলায় সুরের দুই তীর্থস্থান কোলকাতা এবং ত্রিপুরা । কোলকাতার নামডাক সারা ভারত তথা বিশ্বব্যাপী থাকলেও ত্রিপুরার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং ইতিহাস বিস্মৃতির অন্তরালে । অথচ কত সমৃদ্ধ ইতিহাস ত্রিপুরার আমরা কজনই বা জানি সে কথা ।

এতদঞ্চলের ময়মনসিংহস্থ গৌরিপুরের জমিদার, মুক্তাগাছা এবং কিশোরগঞ্জের জমিদারদের বাড়ি ছিল সঙ্গীত চর্চার এবং পৃষ্ঠপোষকতার গীঠস্থান। পাশাপাশি ত্রিপুরার রাজবাড়ি তথা রাজদরবার ছিল সঙ্গীত চর্চায় সারা ভারতে অন্যতম । বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বহুবার এসেছেন ত্রিপুরা রাজদরবারের অতিথি হয়ে। ত্রিপুরা রাজপরিবারের সাথে কবি গুরুর ছিল আত্মার আত্মীয়তা যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ রয়েছে ত্রিপুরা রাজবাড়িতে। সেখানে কবিগুরুর অনেক স্থৃতি বিদ্যমান। মহারাজ রাধাকিশোরের উদ্যোগে ত্রিপুরা সাহিত্য সম্মিলনীর প্রথম সভায় সভাপতিত্ব করার জন্য রবীন্দ্রনাথ আগরতলায় আসেন ১৩১২ বঙ্গাব্দের ১৭ই আষাঢ়। (ত্রিপুরা দর্পণ, পৃষ্ঠা-২০)।

এবার খানিক পেছনে ফিরে যাই- চতুর্দশ শতাব্দিতে গৌড়েশ্বরের সহায়তায় সিংহাসন প্রাপ্ত এবং গৌড়েশ্বর কর্তৃক’মাণিক্য’উপাধিতে ভূষিত ত্রিপুরার প্রথম মাণিক্য রাজ রত্নমাণিক্যের আমলে হিন্দু সংস্কৃতির সাথে ত্রিপুরার প্রথম যোগাযোগ স্থাপিত হয় । রত্নমাণিক্য চতুর্দশ শতকের মধ্যভাগে ত্রিপুরায় রাজত্ব করেন। সে সময় সারা বাংলা অঞ্চল জুড়ে আরবী, ফারসি ভাষার দৌরাত্ম, তখন এই সুদূর ত্রিপুরায় বাংলা রাজভাষার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

রত্নমাণিক্যের পর রাজা ধনমাণিক্য প্রজাদের সংস্কৃতি চর্চায় যথেষ্ট আগ্রহী ছিলেন। মিথিলা রাজ্য থেকে সঙ্গীতজ্ঞ ও নৃত্যশিল্পীদের তিনি ত্রিপুরায় এনেছিলেন সঙ্গীত ও নৃত্য শিক্ষার জন্য । রাজমালাতে উল্লেখ আছে-

‘ত্রিহুত দেশ হইতে নৃত্য গীত আণি।
রাজ্যেতে শিখায় গীতি নৃত্য নৃপমণি!
ত্রিপুর সকলে গীত সেই ক্রমে গায়।
ছাগ অন্তে (অস্ত্রে) তার যন্ত্রে ত্রিপুরে বাজায়!’

ধনমাণিক্য, গোবিন্দ মাণিক্য, রামগঙ্গা মাণিক্য হয়ে ত্রিপুরার রাজভার হাতে নেন মহারাজ বীরচন্দ্র। বস্তুত তাঁর আমলেই (১৮৬২-১৮৯৬ খ্রীঃ) ত্রিপুরায় আধুনিক যুগের শুরু, যা ত্রিপুরার ইতিহাসে স্বর্ণযুগ । বিশেষ করে সঙ্গীত শাস্ত্রে ছিল তার অসাধারণ ব্যুৎপত্তি। তেমনি ক্যামেরা ও ক্যানভাসে তিনি ছিলেন অসাধারণ এক শিল্পী। হোরি, ঝুলন, অকালকুসুম, উচ্ছাস, সোহাগ, প্রেমমরীচিকা ইত্যাদি গীতিবাক্য গ্রন্থ বীরচন্দ্রের অসামান্য কাব্য ও সঙ্গীত প্রতিভার পরিচায়ক ।

নিজে অসামান্য স্রষ্টা ছিলেন বলেই মহারাজ বীরচন্দ্র সেই ১৮৮২ সালে রবীন্দ্রনাথকে আবিষ্কার করতে পেরেছিলেন এবং দ্বিধাহীন চিত্তে তাকে শ্রেষ্ঠ কবির সম্মান জানাতে পেরেছিলেন।

মহারাজ বীরচন্দ্রের আমল থেকেই ত্রিপুরা হয়ে ওঠে সঙ্গীত সাধনার চারণভূমি। ভারত সেরা সঙ্গীত দিকপাল তাদের কালজয়ী সঙ্গীত সাধনার অনির্বচনীয় অর্ঘ্য দিয়ে সুশোভিত করে গেছেন ত্রিপুরার আকাশবাতাস। রাজ্যের সঙ্গীত সংস্কৃতিতে বীরচন্দ্রের রাজসভার সভাশিল্পীদের অবদান অসামান্য ও অবিস্মরণীয় ।

ধ্রুপদি সঙ্গীতের অন্যতম পথিকৃত যদুভট্ট কাশ্মীরের মহারাজের মুখে বীরচন্দ্রের কথা শুনে বিষ্ণুপুরের মহারাজা দিগম্বর মিত্রের পরিচয়পত্র নিয়ে ত্রিপুরায় আসেন । যদুভট্ট কাশীর ও পঞ্চকোটের রাজসভা গায়ক ছিলেন। বীরচন্দ্র তার সঙ্গীত নৈপুণ্যে মুগ্ধ হয়ে তাকে “তানরাজ’ উপাধিতে ভূষিত করেন। ত্রিপুরা থেকে ফিরে গিয়ে যদুভট্ট কোলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়িতে রবীন্দ্রনাথকে সঙ্গীত শিক্ষা দিয়েছিলেন ।

ওস্তাদ কাশেম আলী খাঁ, যিনি মিয়া তানসেনের বংশধর, লক্ষৌর নবাব ওয়াজেদ আলী শাহ-এর সাথে কোলকাতায় আসেন এবং একসময় কোলকাতা থেকে সস্ত্রীক মহারাজ বীরচন্দ্রের রাজসভা ত্রিপুরার সভাগায়ক হিসেবে যোগ দেন। রাজসভায় যদুভট্টের সাথে কাশেম আলী খাঁ-র একেক সময়
তীব্র প্রতিযোগিতা হতো ।

ত্রিপুরা রাজদরবারের সুরের মূর্ছনা তখন গোটা ত্রিপুরাবাসীদের বিমোহিত করেছে, সুরের অমিয় ঝর্ণাধারায় যখন ব্রিপুরাবাসী সিক্ত, ঠিক তখনই ত্রিপুরার বাসিন্দা ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগরস্থ শিবপুর গ্রামের সুরপাগল কৃষক সফদর হোসেন খাঁ (সদু খা) গিয়ে হাজির হন ত্রিপুরা রাজদরবারে এবং অনেক অপেক্ষা, ত্যাগ ও তিতীক্ষার পর ওস্তাদ কাশেম আলী খা-এর শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। সে এক ইতিহাস!

ওস্তাদ কাশেম আলীর পাশাপাশি মহারাজ বীরচন্দ্রের রাজসভাকে অলঙ্কৃত করেন কুলন্দর বক্স, কাশ্মীরের বাসিন্দা। কথক নৃত্যে ছিল তার অসাধারণ পারদর্শিতা । হায়দর খী সুরসিঙ্গার ও এস্রাজের প্রখ্যাত শিল্পী। নিসার হুসেন সেতার ও সুরবীণ বাদক । পঞ্চানন মিত্র, চন্দন নগরের অধিবাসী ছিলেন । স্থানীয়ভাবে তিনি পাঁচুবাবু নামেই পরিচিত ছিলেন। অপূর্ব পাখাওয়াজ বাজাতেন। ক্ষেত্রমোহন বসু, ইনি ছিলেন গ্রুপদী সঙ্গীত শিল্পী। কেশব চন্দ্রমিত্র কোলকাতার স্যার কেশব চন্দ্র মিত্রের ছেলে। ইনি পাখাওয়াজ বাজাতেন। রামকুমার বসাক, তার আদি নিবাস ঢাকা জেলায়, বিখ্যাত পাখাওয়াজ বাদক। প্রতাপ মুখোপাধ্যায়, ইনি ছিলেন কীর্তন শিল্পী। মদনমোহন মিত্রি, ইনিও কীর্তনীয়া। শরৎ বাইন কালিকচ্ছ নিবাসী জলতরঙ্গ বাজাতেন। চাদা বাইজি ছিলেন বিখ্যাত গায়িকা বারানসীর অধিবাসী ।

ওস্তাদ কাশেম আলী খাঁ-এর কাছে শিষ্যতব গ্রহণ করে শিবপুরের সু খা দীর্ঘদিন রাজসভায় সঙ্গীত চর্চা করেন। একই সময়ে নবীনগর শ্রীরামপুরের ওস্তাদ গুল মোহাম্মদ খা তিনিও ত্রিপুরা রাজসভায় সঙ্গীত চর্চা শুরু করেন। ওস্তাদ গুল মোহাম্মদ খা ছিলেন আধ্যাত্বিক সাধক । ফকির আফতাব উদ্দিন খা সাহেৰ পিতা সফদর হুসেন খাঁ এবং ওস্তাদ গুল মোহাম্মদ খা সাহেবের হাত ধরে রাজসভায় গমন
করেন এবং তার দুর্দান্ত বাশী ও দোতারার যাদুকরী পরিবেশনায় রাজসভাকে মুগ্ধ করেন। ফকির আফতাব উদ্দিন খা-এর শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন রাজপরিবারের সন্তান কুমার শচীন দেববর্মন। উল্লেখ্য, ওস্তাদ গুল মোহাম্মদ খা-এর কন্যার সাথে ফকির আফতাব উদ্দিন খা সাহেব বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

ওস্তাদ কাশেম আলী খা-এর সময়ে শিবপুরের খা পরিবারের সাথে ত্রিপুরার রাজ পরিবারের একটি মেলবন্ধন রচিত হয়। ওস্তাদ কাশেম আলী খা শেষ জীবনে চলে আসেন ঢাকায় । জয়দেবপুরের জমিদার বাড়ির সভাগায়ক হিসেবে বাকী জীবন অতিবাহিত করেন এবং এখানেই ইন্তেকাল করেন বলে জানা যায়।

ত্রিপুরা রাজ দরবারে বিভিন্ন সময়ে আরো যারা সঙ্গীত চর্চা করেছেন তারা হলেন- ওস্তাদ এমদাদ খা, প্রীতম গিরি, আয়েত আলী খা, আলী আহম্মদ খা, গহরজান, আখতারী বা, কীর্তনশিল্পী পাননাময়ী দেবী, পাখাওয়াজ বাদক উপেন্দ্র বসাক, প্রসন্ন বণিক, তিমির বরণ, খ্যাতনামা সাহনাই বাদক বিসমিল্লাহ খাঁ, মুন্না খা ও নাজির হোসেন।

ত্রিপুরার রাজপরিবারের কুমার শচীন দেববর্মন ফকির আফতাব উদ্দিন খা এবং সুর সম্রাট আলাউদ্দিন খা-এর কাছে সঙ্গীতে তালিম নেন যা শচীন কর্তার আত্মজীবনীতে বিদৃত হয়েছে। পারিবারিক কলহের ফলে রাজবাড়ী ছেড়ে বাবা নবদ্বিপ দেববর্মন চলে আসেন ত্রিপুরা জেলায় যা এখন
কুমিল্লা নামে পরিচিত । কুমিল্লায় এসে শচীন দেব বর্মন সঙ্গীত চর্চায় নিমগ্ন হন যেখানে কৰি নজরুলের সাথে তীর সখ্যতা গড়ে ওঠে। তারপর শচীন দেব বর্মন সম্পর্কে নতুন করে আর বলার অপেক্ষা রাখে না। শাস্ত্রীয় সঙ্গীত, আধুনিক, পল্লী, ভাটিয়ালী গানে ভারতজুড়ে তার খ্যাতি আজো অম্লান। সফল সুরকার হিসেবে প্রচুর গান উপহার দিয়েছেন। বলা যায়, ভারতীয় সঙ্গীত জগতের আরেক যুবরাজ। তার গায়কীতে, সুর ও সঙ্গীতে তিতাস, মেঘনা ও গোমতীর বয়ে চলা এবং এতদঞ্চলের সুরের আবহ, আবেগ অনুভূতি স্পষ্ট ।

লেখক : করিম হাসান খান (কণ্ঠশিল্পী ও গবেষক)

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments