রাফী উল্লাহ: আগামীকাল ১৪ই মার্চ জাতীয় অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি দিবস। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে উৎযাপন করতে যাচ্ছে দিবসটি। বুধবার দুপুর ১টার দিকে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) পশুপালন অনুষদের সম্মেলন কক্ষে ‘পশুপালন দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে পশুপালন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নূরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের ভবিষ্যত প্রজন্মকে মেধাবী হিসেবে গড়ে তুলতে প্রাণীজ প্রোটিনসমৃদ্ধ খাদ্যের বিকল্প নেই। তাই নিরাপদ দুধ, ডিম ও মাংস সরবরাহ নিশ্চিতকরণে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে পশুপালন গ্রাজুয়েটবৃন্দ। লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, ‘নিরাপদ প্রাণিজ খাদ্যের জন্য প্রয়োজন পশুপালন’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি অ্যাসোসিয়েশন (বাহা) কেন্দ্রীয়ভাবে দিবসটি পালন করবে। র‌্যালি, সেমিনার ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংসদ সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান। তিনি আরোও বলেন, বর্তমানে দুধ উৎপাদন ৯৪ লক্ষ টন, ডিম উৎপাদন ১৫ শত কোটি, মাংস উৎপাদন ৭২ লাখ টন । এছাড়াও ব্রয়লার ও ডিম উৎপাদনে যে বিপ্লব সংঘটিত হয়েছে তার মূল কারিগর পশুপালন গ্রাজুয়েটবৃন্দ। সংবাদ সম্মেলনে তিনি পশুপালন দিবসটিকে জাতীয় প্রাণিসম্পদ দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান, প্রাণি উৎপাদন ও প্রাণি চিকিৎসা নামক দুটি পৃথক অধিদপ্তর গঠন, সকল বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও কৃষি ভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পশুপালন ডিগ্রী চালু, লাইভস্টক এক্সটেনশন অফিসার পদে শুধু পশুপালন গ্রাজুয়েট নিয়োগসহ মোট ৮ টি দাবি উত্থাপন করেন। উল্লেখ্য, দীর্ঘ শুনানির পর ২০১২ সালের ১৪ মার্চ হাইকোর্ট পশুপালন ডিগ্রী খোলা সংক্রান্ত্র এক যুগান্তকারী রায় দেয়। এর প্রেক্ষিতে ২০১৩ সাল থেকে প্রতিবছর এই দিনটিকে ‘পশুপালন দিবস’ হিসেবে পালন করেন পশুপালন গ্রাজুয়েটবৃন্দ।