সদরুল আইন: প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডের ন্যাসঙ্গত দাবি এখনো অন্ধকারে। কবে এ দাবি আলোর মুখ দেখবে তা সাড়ে ৪ লাখ শিক্ষকের অজানা। সরকারের প্রতিটি সেক্টরের নিয়ম নীতির সাথে কোন মিল নেই প্রাথমিকে।প্রাথমিকের শিক্ষকরা অনেকটা নিজ দেশে পরবাসি।

সরকারের দ্বৈত নীতির ফলে প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা যেমন দ্বিতীয় শ্রেনীর মর্যাদা পেয়েও তৃতীয় শ্রেনীর কর্মচারি রয়ে গেছেন, তেমনি প্রধান শিক্ষকদের সাথে সহকারিদের বেতন ২/৩ ধাপ ব্যবধান সৃষ্টি করে বছরের পর বছর ঝুলিয়ে রেখে সরকার ইতিহাস সৃষ্টি করেছে।

অামলাতন্ত্রের বেড়াজাল থেকে কিছুতেই মুক্তি মিলছে না প্রাথমিকের শিক্ষকদের।বেতন বৈষম্য দুরীকরণের নামে এ যেন অনন্ত যাত্রা।স্বভাবতই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের কাজ, অন্তরিকতা ও যোগ্যতা নিয়ে।

প্রাথমিকের শিক্ষকদের বেতন গ্রেড উন্নীতকরণের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হোসেন।

মঙ্গলবার ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯’ এর প্রজ্ঞাপন নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

সচিব বলেন, শিক্ষকদের বেতন গ্রেড উন্নীতকরণের বিষয়টি বিবেচনাধীন আছে। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারেও শিক্ষকদের বেতন বৈষ্যম্য দূরীভূতকরণের কথা বলা হয়েছে, এটা নিয়ে আমরা কাজ করছি।

অর্থ বিভাগের সাথে আলোচনা করছি, সচিব পর্যায়ে আলোচনার পর বিষয়টি সমাধান না হলে বেতন বৈষম্য দূরীকরণ সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে নিয়ে যাব।

এদিকে ১১তম গ্রেডে বেতন প্রদান ও বৈষম্য নিরসনের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা। দাবি মানা না হলে কঠোর কর্মসূচি পালনের কথাও জানিয়েছেন তারা।

তবে এখনো এ ব্যাপারে অন্ধকারেই রয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষকরা।

১১তম গ্রেডের দাবিতে আন্দোলনের অংশ হিসেবে ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে ধারাবাহিক কর্মসূচি পালন করেন প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকরা।

এছাড়া গত ১৪ মার্চ দেশব্যাপী একযোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন তারা। এরপরও দাবি আদায় না হওয়ায় বৃহৎ কর্মসূচির পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন তারা।

প্রাথমিকের শিক্ষকরা তাদের ন্যায্য দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ার পিছনে শিক্ষক নেতাদের লেজুড়বৃত্তি রাজনীতি, একাধিক সংগঠন থাকা, দালালি, মন্ত্রণালয়ের গাফিলতি ও সদিচ্ছার অভাব এবং সরকারের অান্তরিকতা না থাকাকেই অন্যতম কারন বলে মনে করেন।

বিশেষ করে অামলাতন্ত্রের জটিল কারসাজি, লাল ফিতার দৌরাত্ম, লেজুড়বৃত্তি রাজনীতির কারনেই প্রাথমিকের দৈন্যদশা নিরসন না হয়ে যুগ যুগ শুধু অাশ্বাস অার অার অভয়বাণীই শুনে যেতে হয় প্রাথমিকের শিক্ষকদের।

Previous articleকেন্দুয়া-মদন দুই থানার গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, ৯ গরু ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ
Next articleসাঁথিয়ায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভূমি সেবা সপ্তাহ ২০১৯ পালিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।