কাগজ প্রতিনিধি: মার্কস মেডিকেল কলেজের এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে বাধন মাতব্বর (২৩) নামের শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) এক ছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে বাধনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি শেকৃবি’র অ্যাগ্রি বিজনেস অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অনুষদের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বেশ কয়েকবার ধর্ষণ করেন বাধন। এ সময় ধর্ষণের দৃশ্য মুঠোফোনে ধারণ করেন তিনি। পরবর্তীতে ওই ধারণকরা দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ছাত্রীর কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় একটি মামলা করেন।

শেরেবাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানে আলম মুন্সী জানান, ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ (সংশোধিত ২০০৩) ধারা ৭/৯ (১), তৎসহ প্যানাল কোড-৩৮৫/ ৫০৬ মামলার আসামি বাধন মাতব্বর।

ওসি বলেন, ‘আমরা ধর্ষণের অভিযোগে বাধনকে গ্রেপ্তার করেছি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। পরবর্তীতে তাকে আমরা কোর্টে চালান করে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে থানা কর্তৃপক্ষ আমাকে অবহিত করেছিল। আমি বিষয়টি নিয়ে উপাচার্য স্যারের সঙ্গে কথা বলে শৃঙ্খলা কমিটির মিটিংয়ে বিষয়টি উপস্থাপন করব।’

অভিযোগ রয়েছে, এর আগেও বাধন মাতব্বর রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন মেয়ের সঙ্গে শেরেবাংলা হলের গেস্টরুমে সময় কাটিয়েছেন।

Previous articleভারত যেতে বাধা: বিমানবন্দর থেকে ফিরে এলেন নিপুন রায়
Next articleমাদারীপুরে পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় গৃহবধূ খুন!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।