বাংলাদেশ প্রতিবেদক: করোনা মহামারিতে প্রায় ১ বছর ধরে আবাসিক হল, পরিবহণ, ও মেডিকেল সেন্টারসহ বিভিন্ন সেবা না নিলেও সেসব খাতে ফি দিতে হচ্ছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের। দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ওইসব খাতের খরচ কমলেও কমানো হয়নি শিক্ষার্থীদের সেমিস্টার ভর্তি ফি। এতে করে বেকায়দায় পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় এসব ফি আদায়ের ঘোষণা থেকে সরে আসায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও ফি মওকুফের দাবি উঠেছে।

জানা যায়, করোনা কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার পর শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে হল বন্ধ রেখে জানুয়ারি মাসে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ফলে বিভিন্ন বিভাগ সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষার সময় সূচি দিয়েছে। এতে বরাবরের মতো সেমিস্টারের ভর্তি ও ফরম ফিলাপে আবাসিক হলের এটাচমেন্ট বাবদ ৫শ টাকা, পরিবহন ফি ৩শ টাকা, মেডিকেল ফি দেড়শ টাকা, বিদ্যুৎ বাবদ ১শ ২০টাকা, সেমিনার ও ল্যাব বাবদ ২শ করে টাকা পরিশোধের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

একাউন্টিং বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদ মিলন বলেন, এসব অকার্যকর খাতে ফি নেয়ার ঘটনা করোনায় আমাদের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনাকালীন প্রশাসনের পক্ষ থেকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করার কথা থাকলেও বঞ্চিত হয়েছি। এছাড়া আবাসিক হল বন্ধ থাকায় মেস বা বাসা মালিকরা ভাড়া বাড়িয়ে দিয়ে ভোগান্তিতে ফেলে দিয়েছে।

লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী পোমেল বড়ুয়া বলেন, করোনাকালীন দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যখন শিক্ষার্থীদের প্রতি মানবিক হচ্ছে তখন এর বিপরীতে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মৌলিক অধিকারের মতো ইস্যুগুলোতে অমানবিক ব্যবহার করছে, যা খুবই দুঃখজনক। শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তার আশ্বাস দিয়ে তা বাস্তবায়ন না করে উল্টো বিভিন্ন খাতে টাকা আদায় করছে।

অকার্যকর খাতে টাকা নেয়ার বিষয়টিকে অযৌক্তিক উল্লেখ করে মওকুফের দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি রিনা মুুর্মু। তিনি বলেন, আমরা যেহেতু এসব সুবিধা পাইনি তারপরেও প্রশাসন যেটা আদায় করছে সেটা অন্যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া এসব খাতের অযৌক্তিক ফি আদায় বন্ধের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানান।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা ড. নূর আলম সিদ্দিক বলেন, এসব অকার্যকর খাতের টাকা মওকুফ করার বিষয়ে কথা বলবো। আমরা সব সময় শিক্ষার্থীদের প্রতি সহানুভূতিশীল। তারা আবেদন করলে বৃহত্তর পরিসরে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সংগঠন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বলেন, পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা ফি ও ভর্তি ফরম পূরণের সাথে বিভিন্ন খাত বাবদ প্রায় ১৫’শ টাকা আদায় করা হচ্ছে যা খুবই দুঃখজনক। করোনার প্রাদুর্ভাবের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে যাতে এসব বাবদ নেয়া অর্থ ফেরত দেয়া হয় এবং এই বাবদ অর্থ শিক্ষা-কার্যক্রম স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত মওকুফ করা হয় তার জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

অকার্যকর খাতের অর্থ মওকুফের দাবি জানিয়ে শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. গাজী মাজহারুল আনোয়ার বলেন, করোনাকালীন দুঃসময়ে শিক্ষার্থীদের কল্যাণে ব্যয় হচ্ছে না, এমন খাতের অর্থগুলো গ্রহণ না করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভাবতে পারে। অন্য বড় প্রতিষ্ঠানগুলো যদি এরকম সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকে, তবে আমাদের জন্য এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে আরো সুবিধা হয়।

তিনি বলেন, এইসব খাতের অর্থ গ্রহণ না করলে তা শিক্ষার্থীদের একধরনের সহযোগিতা করা হয়, যা দ্বারা শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসে ব্যয় নির্বাহ করতে পারবে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে শিক্ষার্থী-বান্ধব হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ভিসিবিরোধী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সংগঠন অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান।

তিনি বলেন, ভিসি এবং তার বর্তমান প্রশাসন অন্যায়, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতা করে শিক্ষার্থীদের সাথে দীর্ঘদিন থেকে প্রতারণা করে আসছে। আমাদের দাবি থাকবে অকার্যকর ফি যেন মওকুফ করা হয়।

টাকা আদায়ের বিষয়টিকে অমানবিক ও অগ্রহণযোগ্য উল্লেখ করে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. একেএম ফরিদ-উল ইসলাম বলেন, যেখানে সরকার বিভিন্ন খাতে করোনাকালীন দুর্যোগে ভর্তুকি দিয়ে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখছেন, সেখানে শিক্ষার্থীদের এরূপখাতে এ সময়ে টাকা আদায় করাটা অমানবিক ও অগ্রহণযোগ্য। তাই করোনাকালীন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অকার্যকর কোনো খাতে থেকে টাকা আদায় না করার জন্য আহ্বান করছি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. হাসিবুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইলে কোনো বক্তব্য দিতে পারবেন না বলে জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. সরিফা সালোয়া ডিনা, ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তবে ভিসির ব্যক্তিগত সহকারি আমিনুর রহমান বলেন, ইউজিসি থেকে যদি কেন্দ্রীয়ভাবে এসব ফি মওকুফ করার সিদ্ধান্ত না আসলে নিলে এই প্রশাসনের কিছু করার নাই।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ২১টি বিভাগে ৬ থেকে ৭টি ব্যাচ চলমান রয়েছে। সাড়ে ১০ হাজার শিক্ষার্থীর ছেলেদের জন্য দুটি এবং মেয়েদের জন্য ১টি আবাসিক হল রয়েছে।

Previous articleজিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত মুক্তিযুদ্ধের প্রতি কলঙ্ক: মির্জা ফখরুল
Next article২২ সালের জুনের মধ্যেই উন্মুক্ত হবে পদ্মা সেতু: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।