বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সশরীরে প্রতীকী ক্লাস নিয়েছেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুন।

আজ সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিভাগের সামনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তিনি এ ক্লাস নেন। তিনি বলেন, ‘শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে সরকারের যে ভাবনা, তা যৌক্তিক না মনে করি না, তাই এই প্রতীকী ক্লাস।’

আজ সকালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনের দক্ষিণ পাশে বিভাগের সামনে একটি টেবিল, ডায়াস ও কয়েকটি বেঞ্চ নিয়ে ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়। সেখানে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুন ‘মিডিয়া ও ক্ষমতা’ বিষয়ে ক্লাস নেন। পরে নৃবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক বখতিয়ার আহমেদ এবং ফোকলোর বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম সংহতি জানিয়ে কথা বলেন। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ১৪ থেকে ১৫ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

ক্লাসের শুরুতে আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, প্রতি সোম ও মঙ্গলবার এখানে প্রতীকী ক্লাসের আয়োজন করা হবে। এখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমাদের ভাবনাচিন্তা বিনিময় করা হবে। এখানে মূলত সাধারণ কিছু বিষয়ে কথা বলা হবে, যেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ বা অন্য যেকোনো শিক্ষার্থী যোগ দিতে পারেন।

প্রতীকী ক্লাস শেষে আবদুল্লাহ আল মামুন সাংবাদিকদের বলেন, আসলে এভাবে শিক্ষাব্যবস্থা চলতে পারে না। করোনাকালে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে সরকারের যে ভাবনা, আমি মনে করি তা যৌক্তিক না। এটা নিয়ে সরকারের ভাবা উচিত, অন্যদের সঙ্গে কথা বলা উচিত। কিন্তু তারা সেটা ভাবছেও না। তারা কেবল নিজেরা এক জায়গায় বসে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। এটা থেকে সরে এসে ভাবা দরকার যে শিক্ষকেরা, শিক্ষার্থীরা কী ভাবছে। বলা হচ্ছে যে টিকা দেওয়ার পর নাকি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। কিন্তু টিকা তো সবাইকে দিতে পারছে না। আর স্কুলের শিক্ষার্থীদের তো টিকা দিচ্ছে না। তাহলে তাদের স্কুল দেড় বছর বন্ধ রাখার কী মানে? কিন্তু সারা বাংলাদেশে সবকিছু খোলা আছে। তাই আমরা প্রতীকীভাবে এটা চালিয়ে যাব।

সংহতি জানিয়ে বখতিয়ার আহমেদ বলেন, করোনার সময়ে এটা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে আমাদের রাষ্ট্রের কর্তাব্যক্তিরা শিক্ষার দিকে তাকান একটা দাতব্যের দৃষ্টিতে। যেন এটা একটা দান-খয়রাতের বিষয়। এগুলো চালাতে হয় বলেই যেন তাঁরা এগুলো চালান। তাঁরা অর্থনীতি বাঁচানোর কথা বলেন। কিন্তু এই ২০২১ সালে এসে তাঁরা কীভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের কথা বলেন। যেকোনো বিবেকবুদ্ধিসম্পন্ন রাষ্ট্রই শিক্ষায় বিনিয়োগ বাড়ায়। আমাদের প্রায় জনগোষ্ঠীর প্রায় এক-তৃতীয়াংশ শিক্ষার্থী। তারা মানসিক দিক দিয়ে এবং ভবিষ্যৎ নিয়ে ব্যাপক অনিশ্চয়তর মধ্যে আছে।

এদিকে প্রতীকী ক্লাস শুরুর আগে আবদুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে প্রক্টর মো. লিয়াকত আলী ও দুজন সহকারী প্রক্টর দেখা করেন। সেখানে মতিহার থানা-পুলিশের সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যাপক বখতিয়ার আরও বলেন, এখান থেকে এ বার্তা দেওয়া প্রয়োজন যে বর্তমান অবস্থায় আমাদের মনে সন্দেহ ঘনীভূত হচ্ছে, শিক্ষা নিয়ে যথেষ্ট রাজনৈতিক সদিচ্ছা আছে কি না। কারণ, মহামারি মোকাবিলার জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকা জরুরি। আমরা কেবল জনগণের সচেতনতার ওপর দায় চাপিয়ে চলে যাচ্ছি। অথচ এ রকম যেকোনো মৌলিক বিষয়ে সচেতনতার শুরু হয় একেবারে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে। সেখান থেকে শুরু করে মহামারি নিয়ে গবেষণার দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয়ের। সেখানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রেখে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়কে অনলাইনে চালু রাখার মাধ্যমে একটা কৌশলগত সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে ডিজিটাল বৈষম্য আরও প্রকট হয়েছে।

গত শুক্র ও শনিবার ফেসবুকে আবদুল্লাহ আল মামুন, ইফতিখারুল আলম মাসউদ এবং আমিরুল ইসলাম ক্যাম্পাসে সশরীরে ক্লাস নেওয়ার ঘোষণা দেন। এ ছাড়া ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুন ফেসবুকে জানান, তিনি বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত বিভাগে শিক্ষার্থীরা এলে তাঁদের সঙ্গে একাডেমিক বিষয়ে আলোচনা করবেন।

এদিকে প্রতীকী ক্লাস শুরুর আগে আবদুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে প্রক্টর মো. লিয়াকত আলী ও দুজন সহকারী প্রক্টর দেখা করেন। সেখানে মতিহার থানা-পুলিশের সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন। সেখানে প্রক্টর আবদুল্লাহ আল মামুনকে কর্মসূচি স্থগিত রাখার অনুরোধ করেন।

প্রক্টর লিয়াকত আলী বলেন, আমরা সহযোগী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে কেবল সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছি। তিনি বলেছেন যে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলবেন। তখন আমরা চলে এসেছি।

Previous articleখালেদা জিয়াকে নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের নিন্দা ফখরুলের
Next articleবিদিশা-এরিকসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।