বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রার আগে ও পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) চারুকলা অনুষদ প্রাঙ্গণে চার শিক্ষার্থীকে ইভটিজিং ও যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে চারুকলা অনুষদের শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক আক্তারুজ্জামান সিনবাদের বিরুদ্ধে।

একইসাথে তার সহযোগী হিসেবে দু’জন ছাত্রের নামও উঠে এসেছে। তাদের মধ্যে একজন অনুষদের প্রাক্তন শিক্ষার্থী আর অন্যজন বর্তমান শিক্ষার্থী। বর্তমান শিক্ষার্থীর নাম পুলক বাড়ৈই যিনি ভাস্কর্য বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। অপর একজন প্রাক্তন শিক্ষার্থীর নাম শুভ্র বাড়ৈই। তবে তার বিভাগ এবং সেশন জানা যায়নি।

জানা যায়, শোভাযাত্রার দিন বুয়েটের এক শিক্ষার্থীকে এবং এর আগের রাতে মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি পর্বে অনুষদের আরো তিন শিক্ষার্থীকে ইভটিজিং ও যৌন হেনস্তা করেন ওই শিক্ষক ও ছাত্ররা। এই দুই ঘটনায় গত ১৮ এপ্রিল সোমবার শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান সঞ্জয় চক্রবর্তী এবং অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী এবং ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী তাদের বন্ধুরা।

ভুক্তভোগীর এক বন্ধু জানান, মঙ্গল শোভাযাত্রার পরের ঘটনায় শুধু সিনবাদ স্যার জড়িত থাকলেও আগের রাতের ঘটনায় স্যারের সাথে অনুষদের আরো দুই শিক্ষার্থী জড়িত ছিলেন। লিখিত অভিযোগে তাদের নামও উল্লেখ করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর সহপাঠীরা।

তবে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করায় তাদের সাথে কথা বলা যায়নি।

এদিকে, ভুক্তভোগী এবং ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থীদের লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন।

তিনি বলেন, লিখিত একটা অভিযোগ আমার কাছে এবং ওই বিভাগের চেয়ারম্যানের কাছে শিক্ষার্থীরা জমা দিয়েছে। এরপর ঘটনাটা কী ঘটেছে সেটি জানার জন্য আমরা একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করেছি। এ কমিটি অভিযোগকারী শিক্ষার্থীদের তাদের সাথে আলাদা আলাদাভাবে কথা বলেছে। আরো দু’-একদিন এই কথাবার্তা চলবে।

তিনি বলেন, আলাদাভাবে অভিযোগকারীদের বক্তব্য নেয়া হলেও তাদের কথায় মিল আছে। তাই আমরা মনে করেছি অভিযুক্ত শিক্ষককের বক্তব্য নেয়াও প্রয়োজন। আমরা সেই শিক্ষককে তার বক্তব্য দেয়ার জন্য একটা চিঠি ইস্যু করেছি। আগামী ৮ মে-এর মধ্যে তাকে লিখিত জবাব দিতে বলা হয়েছে। লিখিত বক্তব্য একবার দিলে আর উইথড্র করা যায় না। তাই ভেবেচিন্তে বক্তব্য দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট শিক্ষককে বেশি সময় দেয়া হয়েছে। অভিযোগপত্রে শিক্ষক ছাড়াও দুইজন অভিযুক্ত আছে। প্রাক্তন শিক্ষার্থীর বিভাগের শিক্ষকের মাধ্যমে তাকে ডেকে আমরা তার বক্তব্য নেয়ার চেষ্টা করছি। আর রানিং যে শিক্ষার্থী সে বাড়ি চলে যাওয়ায় জুমে তার বক্তব্য নেয়া হয়েছে।

ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির সদস্য কারা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের অনুষদে সাধারণত দুইটা কমিটি আছে। একটি গ্রিবেঞ্জ কমিটি, আরেকটা অ্যান্টি র‌্যাগিং কমিটি। দুই কমিটি থেকে চারজনকে নিয়ে একটা কমিটি হয়েছে। এটাতে আমিও আছি। কমিটিতে অন্যদের মধ্যে আছেন অংকন ও চিত্রায়ন বিভাগের অধ্যাপক শিশির কুমার ভট্টাচার্য, ভাস্কর্য বিভাগের অধ্যাপক লালারুখ সেলিমসহ আরো দুই বিভাগের মহিলা চেয়ারম্যান।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত শিক্ষক আখতারুজ্জামান সিনবাদ তার বিরুদ্ধে আসা এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কালকে(সোমবার) আমাকে অনুষদ থেকে চিঠি দেয়ার পরই বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমার সাথে এই ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। এটি সম্পূর্ণটাই মিথ্যা বানোয়াট এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অভিযোগ। তাদের অভিযোগপত্রটি ভালোভাবে পড়লেই বোঝা যাবে তারা এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে কারো মাধ্যমে প্ররোচিত হয়ে করেছে।

Previous articleউল্লাপাড়ায় পারতেতুলিয়া ব্রীজ উদ্বোধন
Next articleরংপুরে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে কর্মসুচি পালন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।