মাসুদ রানা রাব্বানী: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে মেস থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই শিক্ষার্থীকে তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মহানগরীর চন্দ্রিমা থানার চকপাড়া এলাকার মেস থেকে তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানান তাদের একজনের বড় ভাই মিরাজুল ইসলাম।

শিক্ষার্থীরা হলেন- মো. রেজোয়ান ইসলাম ও সাকিব। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিন্টমেকিং বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র।

এ ঘটনায় চন্দ্রিমা থানায় ছোট ভাইয়ের নিখোঁজ সংক্রান্ত বিষয়ে সাধারণ ডায়েরিভুক্ত করার চেষ্টা করলেও সেটি গ্রহণ করেনি পুলিশ- অভিযোগ মিরাজুলের।

ভুক্তভোগীর সহপাঠী ও বড় ভাই সূত্রে জানা যায়, রোববার (১৩ নভেম্বর) সকালে মেসে ৪-৫ জন ব্যক্তি সিভিল ড্রেসে এসে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে রেজওয়ান এবং সাকিবকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। প্রথমে তথ্যপ্রযুক্তি ও পরে স্থানীয় এক দোকানির ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করে তারা। পরবর্তীতে তাদের মারধর করে তুলে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে রেজোয়ানের বড় ভাই মিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমি গত শনিবার (১২ নভেম্বর) রাজশাহী আসছি এবং তাদের মেসে ছিলাম। রোববার সকালে কয়েকজন ব্যক্তি এসে আমার ভাইদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে তাদের মারধর করে তুলে নিয়ে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি তাদের পরিচয়পত্র দেখাতে বললে তারা তা দেখায়নি। তারা আমার নম্বর নিয়ে বলে পরবর্তীতে প্রয়োজন হলে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবে।’

এ বিষয়ে চন্দ্রিমা থানার ওসি ইমরান হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা কিছু জানি না। এ ঘটনার বিষয়ে আরএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ভালো জানেন।

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ‘যেহেতু ওই দুই শিক্ষার্থীকে ক্যাম্পাসের ভেতর থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়নি, তাই আমাদেরকে অবগত করা হয়নি। আর তারা কোনো অপরাধের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কি না সে বিষয়টিও আমরা জানি না। তাই আমরা তাদের বিষয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছি। সবকিছু জেনে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

Previous articleপদ্মা সেতুতে ওঠার আগে বিএনপি নেতাদের ক্ষমা চাওয়া উচিৎ ছিল: তথ্যমন্ত্রী
Next articleপাহাড়ে সাঁড়াশি অভিযানে কোণঠাসা উগ্রবাদীদের আত্মসমর্পণের প্রস্তাব
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।