বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeশিক্ষাগিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে জায়গা করে নিলেন জবির অংকন

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে জায়গা করে নিলেন জবির অংকন

তাসদিকুল হাসান,জবি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী মো: জাহিদুল ইসলাম অংকনের ‘ফাস্টেস্ট টাইম টু সেটআপ এন্ড টপেল ফাইভ ইরেজার’ এর জন্য গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস এ নাম উঠেছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে, সাক্ষাৎকারে অংকন জানায় তার পথচলার কথা।

প্রশ্ন: কি কাজের জন্য গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড হলো?
উত্তর: শুয়ে রাখা পাঁচটি রাবার (ইরেজার) দাঁড় করিয়ে একটির উপর আরেকটি ফেলে দেওয়া। যেটাকে ‘ফাস্টেস্ট টাইম টু সেটআপ এন্ড টপেল ফাইভ ইরেজার’ হিসেবে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস এ জায়গা দেওয়া হয়েছে।

প্রশ্ন: আগে এটায় কার রেকর্ড ছিলো?
উত্তর: পূর্বের রেকর্ড মালেশিয়ার একজন নাগরিকের ছিল। তিনি করেছিলেন ৩.৬৪ সেকেন্ডে। আমার করতে সময় লেগেছে ২.৪৭ সেকেন্ড।

প্রশ্ন: আপনার এ পথে আসা কিভাবে?
উত্তর: ছোট থেকেই আমার নতুন বা প্রোডাক্টিভ কিছু করার ইচ্ছা। করোনা সময়কালীন ঘরে বসে প্রচুর সময় নষ্ট হচ্ছিলো। হুট করে একদিন গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের চিন্তা মাথায় এলো। এরপর থেকে এটা নিয়ে ঘাটাঘাটি শুরু করলাম। এর আগে আরোও তিনিটি রেকর্ডের অ্যাটেম্প নেই কিন্তু সফলতা ছুঁতে পারি নি।

প্রশ্ন: কতদিন ধরে এগুচ্ছেন?
উত্তর: ঐযে বললাম করোনা সময়কালীন। বিশ সালের মাঝামাঝি হবে। প্রায় তিন বছর হলো।

প্রশ্ন: প্রথম সময়টা কেমন ছিলো?
উত্তর: শুরুটাই কঠিন, শুরুটাই সুন্দর। শুরুটা সবসময় রোমাঞ্চকর হয়। শুরুতে একা একাই এগুতে হয়েছে। ইন্টারনেট ঘেটে ঘেটে এসকল বিষয়ে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করাটা ছিল সবচেয়ে কঠিন। কারণ কোথাও গিনিজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড সম্পর্কিত মুষ্টিমেয় ধারণা নেই। গিনিজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের ওয়েবসাইটেও যেসব তথ্য দেওয়া সেইগুলোও আমার কাছে পরিষ্কার ছিল না। তাও এইসব প্রতিকূলতার মধ্যেও যেখানে যাই পেয়েছি তাই দিয়ে এগিয়েছি।

প্রশ্ন: গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড এ নাম আসায় আপনার অনুভূতি?
উত্তর: সকল প্রসংশা মহান রবের। আমার অনুভূতি আপাতত শব্দে প্রকাশ করার মতো না। আমি অনেক অনেক অনেক বেশি খুশি। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পরে আবার সময় ও শ্রম স্বার্থক।

প্রশ্ন: এটার জন্য সবচেয়ে বেশী প্রেরণা কার থেকে পেয়েছেন?
উত্তর: যারা আমাকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেন, অবহেলা করেন- তারাই আমার প্রেরণা। তাদের এই হেও করার মানুষিকতা আমার ভেতরে জেদ তৈরি করে। জেদটা হলো, আমি তাদের করে দেখাব।

এছাড়াও অংকনের গত চার বছরে প্রকাশিত হয়েছে তার লেখা চারটি উপন্যাস বই। শূন্য ঠিকানা(২০২০), খোঁপার বাঁধন(২০২১), দখিনা চিঠি(২০২২), হাওয়া(২০২৩)।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments