রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeশিক্ষাজবির মসজিদে রহস্যময় তরুণী, পরিকল্পিত ফাঁদে ফেলে ইমামকে অব্যাহতি বলছে শিক্ষার্থীরা

জবির মসজিদে রহস্যময় তরুণী, পরিকল্পিত ফাঁদে ফেলে ইমামকে অব্যাহতি বলছে শিক্ষার্থীরা

তাসদিকুল হাসান,জবি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় মসজিদে গত ৬ মে রাতে মেয়েদের নামাজ পড়ার কক্ষে ঘুমন্ত অবস্থায় এক নারী শিক্ষার্থীকে পাওয়ার ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণ দেখিয়ে মসজিদের ইমাম ছালাহ্ উদ্দীনকে তার দায়িত্ব পালন (নামাজ পড়ানো) থেকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সোমবার (২৭ মে) এই অব্যাহতির আদেশ দেওয়া হয়। পরে এ ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন।

প্রক্টর ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, “গত ৬ মে রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষার্থীকে কেন্দ্রীয় মসজিদে ঘুমন্ত অবস্থায় পাওয়ার খবর পেলে সঙ্গে সঙ্গে একজন সহকারী প্রক্টরকে ঘটনাস্থলে পাঠাই। সহকারী প্রক্টর ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই ইমাম মেয়েটিকে দ্রুত হলে পাঠিয়ে দেয়। মেয়েটি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাতো ঘটতে পারতো। এখানে ইমামের দায়িত্বে অবহেলা ছিল, তাই তাঁকে নামাজ পড়ানো থেকে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে অন্য কোনো ইস্যু নেই। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। তদন্তে মূল ঘটনা বেরিয়ে আসবে।”

মসজিদ সুশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ৬ মে রাত ৯টায় (প্রক্টরের ভাষ্যমতে সাড়ে ১১টায়) বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে মেয়েদের নামাজ পড়ার জায়গায় একজন ছাত্রী দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থান করেছিলেন। খোঁজ পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমাম নিজেই বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর জাহাঙ্গীর হোসেনকে ফোনে জানান। পরে প্রক্টরিয়াল টিম আসার আগেই মেয়েটি মসজিদ ত্যাগ করেন। তাকে মসজিদে না পেয়ে প্রক্টরিয়াল টিম মসজিদের ইমামকে নানা প্রশ্ন করেন।

সে রাতে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু হয়েছিল কি না এ প্রশ্নের জবাবে প্রক্টর বলেন, “এরকম মিনিংফুল কিছুই না, শুধু ইমামের দায়িত্বে অবহেলার জন্য তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। মেয়েটি জেনুইনলি নামাজ পড়ার জন্যই গিয়েছিল, হয়তো মেয়েটি অসুস্থ অনুভব করায় সেখানে ঘুমিয়ে পড়েছিল এত রাত পর্যন্ত একজন মেয়ে শিক্ষার্থী মসজিদে ঘুমাবে বিষয়টি তার খেয়াল রাখা উচিত ছিল।”

ইমামকে অব্যহতির বিষয়টি ভালোভাবে নেয় নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের এ সিদ্ধান্তের জন্য সমালোচনা করছেন তারা। শিক্ষার্থীদের দাবি আগের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিকল্পিতভাবে নাটক সাজিয়ে ইমামকে ফাঁসানো হয়েছে। ঐ নারী শিক্ষার্থীর লিখিত বা মৌখক কোন ধরনের অভিযোগ ছাড়াই ইমামকে শাস্তি দেয়া হয়েছে যা ইমামের উপর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তিনি অনেক পরহেজগার মানুষ। মসজিদে নারীদের নামাজ পরার স্থানে কোন ছাত্রী ঘুমিয়ে থাকলো বা বসে থাকলো এর জন্য ইমামকে কেন অব্যাহতি দেয়া হবে! ছাত্রী আত্মহত্যার পর কি উপাচার্য পদত্যাগ করেছিলেন?

জানা যায়, ফাইরুজ সাদাফ অবন্তীর আত্মহত্যার পর গত ১৭ মার্চ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে মসজিদের ভিতর পুরুষদের নামাজ পরার স্থানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম মসজিদে প্রবেশ করেছিলেন ও সবার সামনে বক্তব্যও দিয়েছিলেন, বিষয়টি দেশব্যাপী সমালোচনার জন্ম দিয়েছিল। নারী পুরুষ এক সাথে মসজিদে প্রবেশের ব্যাপারে ইমাম বিরোধিতা করেছিলেন। ওইসময় তিনি বলেছিলেন “আমি সকাল থেকেই উপাচার্য জন্য মহিলাদের নামাজের স্থানে নিজে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে বসার জায়গা করেছিলাম, কিন্তু প্রক্টর এসে বলেছেন ছোট জায়গায় উপাচার্য কেন বসবে? উপাচার্য মূল মসজিদেই বসবেন, আমি বাধ্য হয়েই সেটা মেনে নিয়েছি। মসজিদের ভিতর নারী পুরুষের একসাথে অবস্থান সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।”

দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগের ঘটনার বিষয়ে জানতে মসজিদের ইমাম ছালাহ্ উদ্দীনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চান না বলে অনুরোধ করেন তিনি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments