বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর নিজ প্রচেষ্টায় একটি সংগঠন পরিচালনা করেছেন, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। তিনি সময়ের দাবি মিটিয়েছেন। একই সঙ্গে বাঙালি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে লালন করেছেন। আজ ফকির আলমগীর নেই, তবে তার প্রেরণায় ঋষিজ সময়ের দাবি পূরণ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের গণসংগীতের ধারা সমৃদ্ধ করতে ঋষিজের বিপুল অবদান রয়েছে। ঋষিজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে আলোচকগণ এভাবেই মূল্যায়ন করেন ঋষিজকে।

গত শনিবার ঋষিজের দীর্ঘ ৪৬ বছরের এই পথচলা স্মরণ করলেন শিল্পীরা। বাংলাদেশের যে কোনো ক্রান্তিকালে ঋষিজ শিল্পী গোষ্ঠী তাদের গান নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে। গণসংগীতকে অবলম্বন করে তারা ৪৬ বছর ধরে মানুষের বঞ্চনার কথা বলেছে। গানে গানে মানুষকে মুক্তির প্রেরণার মন্ত্র শুনিয়েছে। গানে, আলোচনায় এবং দেশের চার গুণী শিল্পীকে সম্মাননা জানিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখলেন তারা। সেইসঙ্গে আগামীতেও গণমানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে গণসংগীত গেয়ে মানুষকে অনুপ্রাণিত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে ঋষিজের। অনুষ্ঠানটি উৎসর্গ করা হয় জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ও বরেণ্য সাংবাদিক তোয়াব খানকে। এছাড়া স্মরণ করা হয় ফকির আলমগীর ও আবৃত্তি শিল্পী হাসান আরিফকে।

শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে চার গুণীকে দেয়া হয় ‘ঋষিজ পদক-২০২২’। এবার ঋষিজ পদক ২০২২ প্রদান করা হয় অধ্যাপক আবদুল মান্নান (শিক্ষা), কবি শিহাব সরকার (সাহিত্য), দিলারা জামান (অভিনয়) এবং লিলি ইসলামকে (সংগীত)।

এর আগে, জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। পরে ‘আমরা ঋষিজ করি’ দলীয় সংগীত পরিবেশন করে সংগঠনের শিল্পীরা। এরপর শুরু হয় গুণীজন সংবর্ধনা। আলোচনা ও সম্মাননা পর্ব শেষে অনুষ্ঠিত হয় সংগীতানুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অভিনেতা, নাট্যনির্দেশক, মঞ্চসারথি আতাউর রহমান, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ এবং আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। সভাপতিত্ব করেন ঋষিজ শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি বেগম সুরাইয়া আলমগীর। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সমর বড়ুয়া।

সংগীত পরিবেশন করেন আবু বকর সিদ্দিক, ফকির সাহাবউদ্দিন ও অনিমা মুক্তি গোমেজ। আবৃত্তি পরিবেশনায় ছিলেন লায়লা আফরোজ, রফিকুল ইসলাম ও ইকবাল খোরশেদ প্রমুখ। নৃত্য পরিবেশন করে স্পন্দন। আর দলীয় সংগীত পরিবেশন করে উদীচী, ক্রান্তি, বহ্নিশিখা, সত্যেন সেন শিল্পী গোষ্ঠী, উত্তরায়ণ, ভিন্নধারা, উজান, উঠোন ও ঋষিজ শিল্পী গোষ্ঠীর শিল্পীরা। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন গণসঙ্গীত শিল্পী ফকির সিরাজ এবং হানিফ খান।

Previous articleনির্যাতন চালিয়ে সরকার ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনকে দমাতে পারবে না: মির্জা ফখরুল
Next articleজামালপুরের দয়াময়ী মন্দির ঘিরে গৌরীপুর জমিদারদের ইতিহাসের শিকড়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।