বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
Homeবিনোদনজাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী ফারজিনা এখন আলোচনার তুঙ্গে 

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী ফারজিনা এখন আলোচনার তুঙ্গে 

আহম্মদ কবিরঃ দামি পোশাক ও বাহারি সাজে সজ্জিত তারকাদের ভিড়ে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২২ জয়ী শিশু ফারজিনা আক্তার এখন গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার আলোচনায়।
ফারজিনা আক্তার কুড়া পক্ষীর শূণ্যে উড়া সিনেমায় অভিনয় করে শিশুশিল্পী শাখায় বিশেষ পুরস্কার পেয়েছে।ফারজিনা সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের আবু সায়েম এর মেয়ে।যাদের জায়গাজমিসহ কোন বাড়ি নেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে দেওয়া এই অমূল্য পুস্কারটি যত্নে রাখার মতো নিজস্ব কোন ঘর নেই।নানা বাড়ি থেকেই খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করা মেয়েটির স্বপ্ন এখন অনেক বড়।
জাতীয় চলচ্চিত্র পুস্কার অনুষ্ঠানে পোষাক নিয়ে তারকাদের মধ্যে অনেক রকম প্রস্তুতি থাকলেও,ফারজিনা আক্তার গ্রামের বাজার হতে স্বল্প দামে কেনা সাধারণ পোষাক পড়েই পুরস্কার আনতে গিয়েছিল জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অনুষ্ঠানে। দামি পোষাক ও বাহারি সাজে সজ্জিত তারকাদের ভিড়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের মূল ভবনে তারকাদের পেছনে পায়ে স্পঞ্জের স্যান্ডেল ও গায়ে সাদামাটা পুরনো পোষাক পরিহিত ফারজিনা কে দেখে নজরকাড়ে উপস্থিত গণমাধ্যমের।এরপর থেকেই তার ব্যাক্তি জীবন নিয়ে প্রশাসনসহ মিডিয়ায় আগ্রহ বেড়ে যায়।
বিভিন্ন সুত্র মতে জানাযায় রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত শিশু শিল্পী ফারজিনার জন্য জায়গা ও ঘরের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি কথা জানিয়েছেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী,এছাড়াও  ফারজিনার লেখাপড়ার যাবতীয় দায়িত্বও নেন তিনি।শুধু তাই নয় ফারজিনার খোঁজখবর নিতে মঙ্গলবার সিলেট বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার ও পরিচালক(স্থানীয় সরকার)আসিব আহসান আসেন তার বাড়িতে।
ফারজিনার সাথে কথা হলে লাজুক মেয়েটি খুববেশি কথা বলতে না পারলেও,অল্প কথাতেই বুঝিয়ে দিল সে অনেক বড় হতে চায়।কিন্তু তার একমাত্র বাধা অর্থ ও সহোযোগিতা।সরকার ও গুনিজনদের সহযোগিতা পেলে সে দেশের মুখ উজ্জ্বল করবে এমনটাই প্রত্যাশা এই ক্ষুদে শিশু শিল্পী ফারজিনা আক্তারের।
এ বিষয়ে ফারজিনার বাবা দিনমজুর আবু সায়েম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন,আমি দিনে আনি দিনে খাই,মেয়ে নিয়ে আমার কোন স্বপ্নই ছিলনা কিন্তু এখন আমার মেয়েকে নিয়ে গুনিজনদের ভালবাসায় ফারজিনা কে নিয়ে আমার স্বপ্ন অনেকটাই বেড়ে গেছে।ভালবাসার পাশাপাশি মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে যদি তাদের সহযোগিতা পাই আমি মেয়ের স্বপ্ন পূরণ করবই।
ফারজিনার শিক্ষক জয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হাদিউজ্জামান জানান,ফারজিনা আমাদের এই অবহেলিত অঞ্চলের অহংকার,তাকে নিয়ে আমরা গৌরব করি,তার স্বপ্ন পূরনে আমরা আমাদের সামার্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করে যাবো।
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments