বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সংক্রমণে ১৫ ভাগ পর্যন্ত বেড়েছে রোগী। আইসিইউতে খালি নেই শয্যা। কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি গত এক সপ্তাহে বিপদসীমা অতিক্রম করেছে করোনা সংক্রমণ। হাসপাতালগুলোতে ১৫ ভাগ পর্যন্ত বেড়েছে রোগী। আইসিইউতে খালি নেই শয্যা। কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি জমায়েত পরিহার করার তাগিদ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি দেশে করোনার সংক্রমণ নেমে আসে ২ দশমিক দুই ছয় শতাংশে যা ছিল এক বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর ২৪ দিন পর অর্থাৎ ৯ মার্চ বিপজ্জনক সীমা অতিক্রম করে পৌঁছে যায় ৫ দশমিক এক তিন শতাংশে। এর দুদিন পর ৬ শতাংশ পার হয়ে সর্বশেষ রোববার ৭ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

এর প্রভাব স্পষ্ট রাজধানীর কোভিড হাসপাতালগুলোতেও। ফেব্রুয়ারির পর থেকে কোভিড রোগী ১০-১৫ শতাংশ বেড়েছে। সাধারণ শয্যা ফাঁকা থাকলেও পূর্ণ কেবিন। খালি নেই একটি আইসিইউ শয্যাও।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নাজমুল হক বলেন, এক সপ্তাহ বা দশ দিনের কথা বললে আমরা ক্রিটিক্যাল রোগী পেয়েছি। সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় খারাপ রোগীগুলো আমরা পাচ্ছি।

সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতিতে নড়েচড়ে বসেছে স্বাস্থ্য অধিদফতরও। হাসপাতালগুলোকে নতুন করে প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানালেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। রোগ নিয়ন্ত্রণ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, করোনার সংক্রমণ রোধে যে ধরনের শিষ্টাচার ছিল; সেটা গত কয়েক মাসে মানুষ ভুলে গিয়ে এক ধরনের উৎসবে মেতেছিল। এর প্রভাবটা এখন দেখতে পাচ্ছি।

এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ লাখ ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে। টিকা নেয়ার পরেও অনেকে সংক্রমিত হওয়ায় কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মানার জোর তাগিদ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

Previous articleশিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে যা বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী
Next articleদেশে আরো বাড়ল করোনায় মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৭৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।