বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ৩৪ ধরণের স্বতন্ত্র পরিবর্তন পেয়েছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, সার্স কোভিড টু ভাইরাস দেশে প্রায় চার হাজার ছয়’শ চার রকমের জেনেটিক পরিবর্তন করেছে। তবে এর মধ্যে ৩৪টি কেবল বাংলাদেশেই। তবে দেশে চলমান ঊর্ধ্বগতির জন্য নতুন এই স্ট্রেনগুলো দায়ী কিনা তা জানতে আরো বিস্তর গবেষণার দরকার। পাশাপাশি টিকা নেয়ার পর এসব ধরণ এন্টিবডি তৈরিতে বাধা সৃষ্টি করছে কিনা সেটিও জানা দরকার।

যে কোনো ভাইরাসই সময়ের সাথে যতটা ছড়াবে তার ধরণে আসবে পরিবর্তন। সক্ষমতাতেও আসে পরিবর্তন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে হয়ে ওঠে আরো শক্তিশালী, আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়ে পড়ে অপেক্ষাকৃত দুর্বল।

দেশে এরই মধ্যে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে প্রায় তিন শতাধিক জিনোম সিকোয়েন্স জমা পড়েছে। এগুলো নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে একদল স্বেচ্ছাসেবী গবেষক পেয়েছেন নতুন তথ্য।

বিভিন্ন গবেষণার সঙ্গে মিলিয়ে দেখা গেছে, শুধু বাংলাদেশেই সাড়ে চার হাজারেরও বেশিবার ভোল পাল্টেছে করোনা ভাইরাস। এর মধ্যে অধিকাংশই বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ভ্যারিয়েন্টের সঙ্গে মিল পাওয়া গেলেও ৩৪টি একদমই স্বতন্ত্র। এর কারণ হিসেবে বলছেন, এদেশের আবহাওয়া, পরিবেশ, বায়ুদূষণসহ নানা ইস্যু।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক ড. আদনান মান্নান বলেন, বাংলাদেশে ৪ হাজার ৬শ ৪ রকমের করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। এরমধ্যে ৩৪টি একদম স্বতন্ত্র ভাইরাস।

তবে এর সঙ্গে দেশে চলমান দ্বিতীয় ঢেউয়ের কোন মিল আছে কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিন্ত নন তারা। তাছাড়া টিকা নেয়ার পর এন্টিবডি তৈরিতে এর ভূমিকা আছে কিনা সেটিও খতিয়ে দেখা দরকার বলে মনে করেন তারা।

গত এক সপ্তাহে দেশে করোনা সংক্রমণের হার দশ শতাংশের বেশি।

Previous articleরোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ড নিয়ে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Next articleগাইবান্ধায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহত ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।