বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) এক অধ্যাপক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে নারী সহকারীর সাথে পরকীয়া প্রেমে জড়ানোর গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই চিকিৎসক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেন্টাল অনুষদের ডিন ও একটি বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। এ ঘটনায় ওই নারীর স্বামী বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি), বিএসএমএমইউ ভিসিসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, বিএসএমএমইউয়ের কঞ্জারভেটিভ ডেন্টিস্ট্রি অ্যান্ড অ্যান্ডোডন্টিক্স বিভাগের চেয়ারম্যান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ট্রেজারার অধ্যাপক ডা: মো: আলী আসগর মোড়ল একই বিভাগে কর্মরত এক নারী কর্মীর সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়েছেন। তার সাথে এই সম্পর্ক তৈরি করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন দামি জিনিসপত্র ওই নারী কর্মীকে দিয়েছেন বিভাগীয় প্রধান। দুই সন্তানের জননী ওই নারীর স্বামী লিখিত অভিযোগে বলেন, অফিসের কম্পিউটার, ওভেন, ফ্রিজসহ বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র তাদের বাসায় এখনো রয়েছে।

ডা: মোড়লের বিরুদ্ধে গত মাসে ইউজিসির সচিব বরাবার ওই লিখিত অভিযোগের অনুলিপি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকেও দেয়া হয়েছে। তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপই নেয়নি বলে জানিয়েছেন অভিযোগকারী।

অভিযুক্ত চিকিৎসকের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেন। একই সাথে আমাদের হাতে আসা ওই নারী কর্মীর সাথে হোটসঅ্যাপ চ্যাটিংয়ের কিছু স্ক্রিন শর্টের ব্যাপারে জানতে চাইলে অধ্যাপক ডা: আলী আসগর মোড়ল বলেন, ‘ওগুলো ফেইক।’ এ নিয়ে বিএসএমএমইউ ভিসি অধ্যাপক ডা: মো: শারফুদ্দিন আহমেদের সাথে কথা বলার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ওই নারী কর্মীর স্বামী নিজেও গাজীপুরে একটি কলেজের অধ্যক্ষ। কথা বলতে গিয়ে একপর্যায়ে কেঁদে ফেলেন তিনি। বলেন, আমাদের দু’টি সন্তান। বড় মেয়ের বয়স ২২ বছর। মেয়ে কলেজে পড়ে। ছেলেও বড় হয়েছে। সন্তানের কাছেই তাদের মায়ের অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি প্রথমে ধরা পড়ে। তারা বাধ্য হয়েছে আমাকে জানাতে। বছরখানেক আগে বিষয়টি জানার পর স্ত্রীকে সংশোধনের চেষ্টা করেছি। কিন্তু ডা: আলী আসগরের কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। স্ত্রীকে অন্য বিভাগে বদলি করানোর চেষ্টা করেছি। তাও বিভাগীয় প্রধান করতে দিচ্ছেন না। কোনো উপায় না পেয়ে ইউজিসিতে লিখিত অভিযোগ করেছি। কিন্তু এ পর্যন্ত কোনো প্রতিকার মেলেনি।

গণমাধ্যমে নিজের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ভুক্তভোগী স্বামী বলেন, ডা: আলী আসগর মোড়ল আমার স্ত্রীকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে যান। এটা বিভাগের অন্য চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী অনেকেই জানেন। বিষয়টি আমার ও আমার সন্তানদের কাছে কতটা যন্ত্রণার তা বলে বোঝাতে পারবো না।

অধ্যাপক ডা: আলী আসগর মোড়লের স্ত্রী আছে। এর আগেও একটি বিয়ে করেছিলেন তিনি। পরে তাকে ডিভোর্স দিয়ে এখন যিনি আছেন তাকে বিয়ে করেছেন। তার স্ত্রীও বর্তমান পরকীয়ার বিষয়টি জানেন। এ প্রসঙ্গে অভিযোগকারী বলেন, আমি ডা: আলী আসগরের স্ত্রীর সাথে কথা বলেছি। তিনি বিষয়টি জানার পরও তার স্বামীর অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। আমার ২৫ বছরের সুখের সংসার ডা: আলী আসগরের কারণে এখন নড়বড়ে। আমি চাই এই চরিত্রহীন চিকিৎসকের উপযুক্ত শাস্তি। যাতে অন্য কারো সংসারে তিনি অশান্তি সৃষ্টি করতে না পারেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বৃহস্পতিবার ইউজিসির সচিব ফেরদাউস জামান বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি। নিয়ম অনুযায়ী আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানিয়েছি। তারা প্রাথমিক তদন্ত করে আমাদেরকে অবহিত করবে। এরপর ইউজিসি সেই রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

Previous articleউল্লাপাড়ায় স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তার অপসারণ দাবিতে দ্বিতীয় দিন কর্ম বিরতি চলছে
Next articleবাউফলে আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।