কাগজ প্রতিবেদক: মাদকাসক্ত ব্যক্তির মতো বাজে সিদ্ধান্ত নেয়ার প্রবণতা তৈরি হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অতিমাত্রায় ব্যবহারকারী ব্যক্তিদের মধ্যে; এমনি তথ্য উঠে এসেছে নতুন এক গবেষণায়।

বিশ্বের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষ সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করেন এবং কিছু সংখ্যক ব্যক্তি এ সাইটগুলো অতিমাত্রায় ব্যবহার করে বলে জানান গবেষণার প্রধান লেখক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটির সহকারী অধ্যাপক ডার মেশি।

অধ্যাপক ডার মেশি বলেন, ‘আমি মনে করি গ্রাহকের কাছে সামাজিক মাধ্যমের অনেক দারুণ ব্যবহার রয়েছে; কিন্তু গ্রাহক যখন এর থেকে বের হতে পারে না তখন এটির ক্ষতিকর দিকও রয়েছে। আমাদের দেখা দরকার অতিমাত্রায় সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকে আসক্তি হিসেবে বিবেচনা করা হবে কিনা’। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আইএএনএসের প্রতিবেদনে বলা হয়, জার্নাল অব বিহেভিয়ার অ্যাডিকশনস-এ প্রকাশিত হয়েছে এ গবেষণা। গবেষণায় অংশ নিয়েছেন ৭১ জন। ফেসবুকে তাদের নির্ভরতা কতটুকু তাই বোঝার চেষ্টা করা হয়েছে এর মাধ্যমে; যা অনেকটাই আসক্তির মতো।

গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়। প্লাটফর্মটি ব্যবহারের আগের অবস্থা, যখন তারা এটি ব্যবহার করেন না তখনকার অবস্থা, বন্ধ করার চেষ্টা করেছেন কিনা এবং চাকরি ও পড়াশোনায় ফেসবুকের প্রভাব এমন অনেক প্রশ্ন করা হয় তাদের।

পরবর্তী সময়ে অংশগ্রহণকারীদের ‘লোয়া গ্যাম্বলিং টাস্ক’ পরীক্ষা দেয়া হয়। ব্যক্তি সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা বিচার করতে প্রায়ই এ পরীক্ষা করে থাকেন মনোবিজ্ঞানীরা।

এ পরীক্ষায় সফল হতে ব্যক্তিকে তাসের স্তূপের উপরিভাগের ধরন বিবেচনা করা সবচেয়ে ভালো স্তূপটি বাছাই করতে হয়।

পরীক্ষায় দেখা গেছে, অংশগ্রহণকারীরা যত বেশি বাজে তাস বাছাই করেছেন তারা তত বেশি সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করেন। যারা পরীক্ষায় ভালো করেছেন তারা সামাজিক মাধ্যম কম ব্যবহার করেন।

গ্যাম্বলিং টাস্কে আফিম, কোকেইন, মেথামফেটামিনসহ অন্যান্য মাদক অপব্যবহারকারী ব্যক্তিদেরও সামাজিক মাধ্যমে আসক্ত ব্যক্তিদের মতো সিদ্ধান্ত নিতে দেখা গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে এবং সোশ্যাল মিডিয়া আসক্ত ব্যক্তিরা সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেন বেশি।