কাগজ প্রতিবেদক: ভারতে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সম্প্রতি ৭ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বিষয়টি সেখানে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করেছে। তাই তারা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। গত ১০ দিনে এরকম ৪৬৮ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয় সূত্রের তথ্যানুযায়ী, গত ১০ দিনে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা ১১১টি পরিবারের সদস্য। তারা কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রাবার বাগানের কাছে স্থাপিত ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে। নতুন আসা এসব সদস্য জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

সীমান্তের তামব্রু নোম্যান’স ল্যান্ড রোহিঙ্গা শিবিরের চেয়ারম্যান দিল মোহাম্মদ বলেন, তিন দিন আগে জোহর আহম্মদ ও তার স্ত্রীসহ এক পরিবারের ছয় রোহিঙ্গা ভারতের কাশ্মীর থেকে পালিয়ে এসে আমার শিবিরে পৌঁছে। এ বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে। তবে বর্তমানে তারা শূন্যরেখায় আশ্রিত রোহিঙ্গা হিসেবে রয়েছে। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, সম্প্রতি ভারত সরকার সে দেশে আশ্রিত কিছু রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে পাঠিয়ে দেয়। এ ভয়ে তারা সে দেশ ছেড়ে বাংলাদেশে চলে আসছে। তাদের কাছে ভারত ও ইউএনএইচসিআরের দেয়া আইডি কার্ডও রয়েছে। উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, চলতি মাসে ভারত থেকে পালিয়ে আসা অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা সদস্য পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে। এদের বেশিরভাগই শিশু ও নারী। এসব রোহিঙ্গাকে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ট্রানজিট পয়েন্টে রাখা হয়। পরে উখিয়ার বিভিন্ন রোহিঙ্গা শিবিরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।