মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
Homeতথ্যপ্রযুক্তিআগামী বিশ্ব অর্থনীতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা

আগামী বিশ্ব অর্থনীতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংক্ষেপে এআই বর্তমান বিশ্বের আলোচিত একটি বিষয়। মানুষের সহজাত ক্ষমতা হচ্ছে তাঁর বুদ্ধি কিংবা চিন্তাশক্তির দ্বারা কোন কিছু বিশ্লেষণ করা এবং সমস্যা সমাধান করা। মানুষের এই বুদ্ধিমত্তা ও চিন্তাশক্তিকে কৃত্রিম উপায়ে প্রযুক্তি নির্ভর করে যন্ত্রের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করাকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বলে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এক প্রকার সিমুলেশন যা একটি যন্ত্রকে মানুষের মত করে কোন কিছু চিন্তা করানো, বিশ্লেষণ করানোর বা সমস্যা সমাধান করে থাকে। এটি একই সাথে নতুন কিছু শিখতে পারে এবং ঐ লব্দ জ্ঞান ব্যবহার করে পরবর্তী সমস্যা সমাধানে ব্যবহার করতে পারে। এই প্রযুক্তির নিজে নিজে নতুন কিছু শিখতে পারার অন্যতম উদাহরণ হচ্ছে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বার্ড-এর নিজের থেকে বাংলা শেখা।

মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওপেনএআইয়ের তৈরি চ্যাটজিপিটি ও গুগলের বার্ড চ্যাটবট ঘিরে মানুষের আগ্রহ ক্রমশ যেমন বাড়ছে তেমনি একই সঙ্গে বাড়ছে উদ্বেগ–শঙ্কাও। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে মানুষের মধ্যে উদ্বেগ–শঙ্কা থাকা স্বত্ত্বেও বিষয়টি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশ হতে শুরু করেছে। ভবিষ্যতের পৃথিবী হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উপর অনেক বেশি নির্ভরশীল তা বলাই বাহুল্য। ভবিষ্যতের উদ্বেগসমূহ পাশে রেখে আগামী বিশ্ব অর্থনীতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার রয়েছে অপার সম্ভাবনা। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্রুত বিশ্ব অর্থনীতিতে পরিবর্তন আনছে, নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং দক্ষতা উন্নত করার সম্ভাবনা রয়েছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ইতিমধ্যেই স্বাস্থ্যসেবা, উৎপাদন, অর্থ এবং কেনাকাটা সহ বিস্তৃত শিল্পে ব্যবহৃত হচ্ছে।

২০১৮ সালে প্রকাশিত ম্যাককিনসে অ্যান্ড কোম্পানির একটি প্রতিবেদন অনুসারে, ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্ব অর্থনীতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ১৩ ট্রিলিয়ন ডলার যোগ করতে পারে। ইতিমধ্যে বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এবং সরকার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা পিছনে বিনিযোগ করছে। উদাহরণস্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) গবেষণা ও উন্নয়নে ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের একটি উদ্যোগ চালু করেছে। আধুনিক স্বাস্থ্যসেবায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করা হচ্ছে নতুন ওষুধ ও চিকিৎসা, রোগ নির্ণয় এবং ব্যক্তিগতকৃত সেবা প্রদানের জন্য। উৎপাদন কাজসমূহ স্বয়ংক্রিয়করন , গুনগত মান নিয়ন্ত্রণ এবং উৎপাদনকে অপ্টিমাইজ করতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করা হচ্ছে। ফাইন্যান্সে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করা হচ্ছে জালিয়াতি শনাক্ত করতে, ঝুঁকি পরিচালনা এবং ব্যক্তিগতকৃত বিনিয়োগের পরামর্শ দিতে। কেনাকাটার অভিজ্ঞতা, পণ্যের সুপারিশ এবং ইনভেন্টরি অপ্টিমাইজ করতেও ব্যবহার করা হচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা । কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিকাশ অব্যাহত থাকায়, এটি আগামীর বিশ্ব অর্থনীতিতে আরও বেশি প্রভাব ফেলতে পারে। বিখ্যাত ব্রিটিশ দৈনিক গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০৩০ সালের মধ্যে বিদ্যমান চাকরির এক-তৃতীয়াংশ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হতে পারে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নির্ভর নতুন দুনিয়ার অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়বে অনেক ভাবেই।

আগামী বিশ্বে টিকে থাকতে হলে মানুষকে এ বিবর্তন মেনে নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির দিকে নজর দিতে হবে আজ থেকেই। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত মেশিনগুলি আরও উন্নত হয়ে উঠলে, তাদের প্রোগ্রাম করা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য মানুষের প্রয়োজন হবে । এছাড়াও এআই ডেটা সায়েন্স, মেশিন লার্নিং এবং রোবোটিক্সের মতো ক্ষেত্রে নতুন সুযোগ তৈরি করবে। বিশ্ব অর্থনীতিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রভাব সুদূরপ্রসারী হবে। এর সাহায্য একদিকে যেমন উৎপাদনশীলতা বাড়ানো, দক্ষতা উন্নত করা এবং নতুন চাকরি তৈরি করার সম্ভাবনা রয়েছে। তেমনি রয়েছে কিছু উদ্বেগ–,শঙ্কা ও চ্যালেঞ্জ যেমন চাকরির স্থানচ্যুতি, পক্ষপাত ও বৈষম্য, গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা ঝুঁকি, নৈতিক বিবেচনা ঝুঁকি, আর্থ-সামাজিক প্রভাব, মানব-এআই মিথস্ক্রিয়া, গোপনীয়তা লঙ্ঘন, অস্ত্র ব্যবহার যা ভবিষ্যতে মানবতার জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে। । দিনে দিনে আরো শক্তিশালী হয়ে ওঠা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সম্ভাব্য সুবিধা এবং ঝুঁকিগুলিকে সাবধানে বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ৷ সামগ্রিকভাবে, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা একটি শক্তিশালী প্রযুক্তি যা বিশ্ব অর্থনীতিকে পরিবর্তন করার ক্ষমতা রাখে। আমাদের উচিত এর সাথে সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জগুলি সম্পর্কে সচেতন হওয়া এবং এর ব্যবহারের জন্য নৈতিক নির্দেশিকা তৈরি করা। সতর্ক পরিকল্পনা এবং দূরদর্শিতার সাথে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সকলের জন্য একটি ভাল ভবিষ্যত তৈরি করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

লেখক: মৃদুল কান্তি ধর সাবেক শিক্ষার্থী , ইএমবিএ (মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট) ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments