কাগজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র যখন এফ-১৬ যুদ্ধবিমান পাকিস্তানের কাছে হস্তান্তর করে তখন কেবল ভারতের সঙ্গে ভবিষ্যৎ যুদ্ধে ইসলামাবাদের নিবৃত্তিমূলক মূল্যই স্বীকার করে নেয়া হয়নি, চিরবৈরী দুই প্রতিবেশীর মধ্যে পারমাণবিক সংঘাত মোকাবেলায় বিমানটির ব্যবহারের কথাও উল্লেখ করা হয়েছিল।
এতে কেবল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই নয় ভারতের সঙ্গে ভবিষ্যৎ যুদ্ধে বিমানটির নিবৃত্তিমূলক মূল্য স্বীকার করে নেয়া হয়েছিল। ডন অনলাইন ও ইকোনমিক টাইমসের খবরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।
২০০৮ সালের ২৪ এপ্রিল মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে পাঠানো এক বার্তায় পাকিস্তানে তখনকার মার্কিন রাষ্ট্রদূত অ্যান্নি প্যাটারসন এ দুটি বিষয়ের কথা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছিলেন।
তিনি লিখেছিলেন, উন্নত এফ-১৬ কর্মসূচির নিবৃত্তিমূলক মূল্য কেবল ভারতের সঙ্গে ভবিষ্যৎ সংঘাতের গতানুগতিক প্রতিক্রিয়ার মধ্যেই সীমিত থাকবে না, বরং পারমাণবিক সংঘাতের ক্ষেত্রে মোতায়েন করতে পারবে।

রাষ্ট্রদূত প্যাটারসন ২০০৮ সালের এপ্রিলে ওয়াশিংটনে যে বার্তা পাঠিয়েছিলেন, তার ২০তম অনুচ্ছেদে এ কথা বলা হয়েছে। পরে উইকিলিকস এমন তথ্য প্রকাশ করেছে।
এই প্যাকেজের মধ্যে ৫০০ এআইএম-১২০-সি৫ অগ্রসর মাঝারি পাল্লার আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রও (এএমআরএএএমএস) রয়েছে।
ভারতের দাবি, গত সপ্তাহে কাশ্মীরে ভারতীয় বিমানবাহিনীর বিরুদ্ধে পাকিস্তান এ প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে।
২০০৯ সালের ১৮ মার্চ রাষ্ট্রদূত প্যাটারসন ওয়াশিংটনে আরেকটি দীর্ঘ বার্তা পাঠায়। তাতে আরও এফ-১৬ বিমান চেয়ে পাকিস্তানের অনুরোধের বিষয়ে কথা বলা হয়েছে।
তখন ভারত এ চুক্তির বিরোধিতা করলে পিটারসন বলেন, যদি আমাদের লক্ষ্য হয় সেনাবাহিনীকে কৌশল পরিবর্তনে চাপ দেয়া, তবে এ বিক্রি বাতিল করায় আমাদের কোনো লাভ হবে না।