কাগজ ডেস্ক: সুদানে সেনাবাহিনী ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে অচলাবস্থা অব্যাহত রয়েছে। সেনাবাহিনী বলেছে, দেশে নতুন আইনের মূল উৎস হবে শরীয়া আইন। ওদিকে সেনাবাহিনীর সঙ্গে আলোচনায় অন্তর্র্বতী সরকারের বিষয়ে বিরোধ দলীয় নেতারা প্রস্তাবের একটি তালিকা হস্তান্তর করেছে।
তবে এপ্রিলে ৩০ বছরের প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর ক্ষমতায় আনা ১০ সদস্যের সামরিক কাউন্সিল বিরোধীদের অনেক প্রস্তাবের বিষয়ে অনেক সীমাবদ্ধতার কথা বলেছে। সেনাবাহিনীর কাছে বিক্ষোভকারীদের প্রস্তাব তুলে দেয় ডিক্লারেশন অব ফ্রিডম অ্যান্ড চেঞ্জ ফোর্সেস। এটি অধিকারকর্মী ও বিরোধী রাজনৈতিক গ্রুপগুলোর একটি জোট। সুদানের ট্রানজিশনাল মিলিটারি কাউন্সিল (টিএমসি)-এর মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল শামসেদ্দিন কাবাশি বলেছেন, তারা বিরোধীদের দেয়া প্রস্তাবের বেশির ভাগের সঙ্গেই একমত। বিরোধী জোট আইনের সূত্র কি হবে তা উল্লেখ করতে ব্যর্থ হয়েছে।
এক্ষেত্রে আইনের সূত্র হওয়া উচিত ইসলামিক শরীয়া আইন ও রীতি।