সোমবার, জুন ১৭, ২০২৪
Homeআন্তর্জাতিকসেনাবাহিনীতে হাই অ্যালার্ট, চীন সীমান্তে যুদ্ধের প্রস্তুতি ভারতীয় বিমানবাহিনীর

সেনাবাহিনীতে হাই অ্যালার্ট, চীন সীমান্তে যুদ্ধের প্রস্তুতি ভারতীয় বিমানবাহিনীর

বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতীয় সেনাবাহিনীতে হাই অ্যালার্ট জারি করেছে সরকার। সীমান্তের কাছে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে বিমানবাহিনী। তারই মধ্যে আজ গ্রাউন্ড জিরোতে দ্বিতীয় ফ্ল্যাগ মিটিং।

বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী ও স্থলবাহিনীকে সবরকম পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে বললো ভারতের নরেন্দ্র মোদির সরকার। ভারতীয় সেনা সূত্রে জানা গেছে, ভারত ও চীনের প্রতিটি সীমান্তেই অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণরেখার খুব কাছে আরো বেশি সেনা নিয়োগ করা হয়েছে। সকলকেই অতি সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

শুধু তাই নয়, সূত্র জানাচ্ছে, বিমান বাহিনীও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সীমান্তের কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছে। যাতে যেকোনো প্রয়োজনে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া যায়। অন্য দিকে ভারতের নৌসেনা প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে টহল বাড়িয়েছে। তারাও যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

সোমবার রাতে লাদাখের ঘটনার পরে ভারত বা চীন কোনো দেশই সরাসরি যুদ্ধের কথা বলেনি। কিন্তু দুই দেশের বিবৃতিতেই উত্তেজনা পারদ যথেষ্ট চড়া। তারই মধ্যে বুধবার লাদাখে ভারত ও চীন সেনার ফ্ল্যাগ বৈঠক ভণ্ডুল হয়ে গিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ফের মেজর জেনারেল স্তরের বৈঠক হওয়ার কথা পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪ তে। এখানেই সোমবার রাতে প্রায় আট ঘণ্টা ধরে ভারত ও চীনের সৈন্য সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। যার জেরে ভারতের অন্তত ২০ জন সেনা নিহত হয়েছেন। তার মধ্যে একজন অফিসার। চীনেরও বেশ কয়েক জন সেনা নিহত হয়েছেন বলে সূত্রের খবর। যদিও সরকারি ভাবে চীন এখনো কিছু জানায়নি।

সোমবার রাতে ঘটনা ঘটার পরে মঙ্গলবারই ঘটনাস্থলে বৈঠকে বসেছিলেন ভারত ও চীনের অফিসাররা। দুই পক্ষই একে অপরের দিকে আঙুল তোলে। স্থির হয়, বৈঠকে মূলত দু’টি বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। এর আগে গত শনিবার কোর কম্যান্ডার স্তরের বৈঠকেও এই বিষয়গুলো নিয়েই কথা হয়েছিল। আলোচনার প্রথম বিষয় উত্তেজনা প্রশমন করা। এবং দুই স্থিতাবস্থা রক্ষা করা। স্থিতাবস্থা রক্ষা করার অর্থ, আসল নিয়ন্ত্রণ রেখা মেনে দুই পক্ষই সরে যাবে। অর্থাৎ, বর্তমান অবস্থা থেকে দুই পক্ষকেই পিছু হঠতে হবে। বুধবারের বৈঠকে এ বিষয়ে ঐক্যমত্যে পৌঁছতে পারেনি কোনো পক্ষই। বরং উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে। বৃহস্পতিবার ফের বৈঠকে একই আলোচনা হওয়ার কথা।

সামরিক বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বলছেন, এতজন সেনার প্রাণহানি হওয়ার পরে এই মুহূর্তে সীমান্তে উত্তেজনা কমা কঠিন। দুই পক্ষের সেনাই প্রতিশোধ নেয়ার জন্য তৈরি হয়ে আছে। ভারতের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল শংকর রায়চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ”কূটনৈতিক আলোচনার রাস্তা খোলা রাখতেই হবে। কিন্তু সেনার মনোবলের কথাও ভাবতে হবে। ভারতকে বুঝিয়ে দিতে হবে, আঘাত করা হলে তারা পাল্টা আঘাত ফিরিয়ে দিতে পারে। ২০ জন সেনার প্রাণহানি কম কথা নয়। ভারতীয় সেনা অবশ্যই এর যোগ্য জবাব দেবে।”

সোমবারের ঘটনার পরে বুধবার দুপুর পর্যন্ত কার্যত চুপ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু বুধবার বেলার দিকে তিনি যে বিবৃতি দিয়েছেন, তাতে সব দিকে ভারসাম্য রাখা হয়েছে। সেনার মৃত্যু ভারত ভুলবে না এবং তার যোগ্য জবাব দেয়া হবে- এ কথা যেমন তিনি বলেছেন, আবার এও জানিয়েছেন যে, ভারত শান্তিকামী রাষ্ট্র। আলোচনায় বিশ্বাস করে। প্রধানমন্ত্রীর বিবৃতি শুনে অনেকেই মনে করছিলেন উত্তাপ খানিকটা হলেও কমানোর চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু তারপরেই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শংকর টেলিফোনে কথা বলেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, জয়শংকর অত্যন্ত কড়া ভাষায় কথা বলেছেন। বলা হয়েছে, এই ঘটনার জন্য চীনই দায়ী। তারা যদি দ্রুত গোটা ঘটনার তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে তার ফল ভুগতে হবে। চীনকে জয়শংকর বলেছেন, সোমবার রাতের ঘটনা ইচ্ছাকৃত ভাবে চীন ঘটিয়েছিল। তারা আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল।

যে ভাষায় বুধবার দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথা হয়েছে, তা এক কথা নজিরবিহীন। বস্তুত ১৯৯০ এর দশকে শেষবার দুই দেশের মধ্যে এত উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছিল। ২০১৭ সালে ডোকলামের ঘটনার পরেও দুই দেশ এত কড়া শব্দ ব্যবহার করেনি।

চীনও বিবৃতি দিয়ে গোটা ঘটনার জন্য ভারতকে দোষী করেছে। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সে কথা ভারতকে জানিয়েছেন। বলা হয়েছে, সীমান্তে ভারতীয় সেনাকে নিয়ন্ত্রিত রাখার দায়িত্ব নিতে হবে সরকারকে। চীনের সার্বভৌমত্বে আঘাত লাগলে সব রকম ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তারা তৈরি। প্রকারান্তরে চীনের দাবি, নিয়ন্ত্রণরেখা পার করে ভারতের সেনাবাহিনী চীনের জমি দখল করে রেখেছে। বস্তুত এ কারণেই সীমান্তে দুই দেশের মেজর জেনারেলদের বৈঠক বার বার ভণ্ডুল হয়ে যাচ্ছে। কারণ দুই দেশেরই অভিযোগ, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা মানছে না দুই দেশের সেনা।

উত্তাপ যে কাটেনি তা স্পষ্ট। তবে বুধবার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে কূটনৈতিক আলোচনার দরজাও খোলা রাখা হয়েছে। ভারত এবং চীন কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমেই যাতে সমাধানসূত্রে পৌঁছয়, তার জন্য পৃথিবীর বহু দেশই আর্জি জানিয়েছে। জাতিসঙ্ঘও বিবৃতি দিয়ে আলোচনার কথা বলেছে। বুধবার জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাসও দুই দেশকে আলোচনার টেবিলে বসার আহ্বান জানিয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আলোচনার রাস্তা খোলা থাকবে। তবে এখনই উত্তাপ কমবে না।

সূত্র : ডয়চে ভেলে

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments