বাংলাদেশ ডেস্ক: সামরিক অভ্যুত্থান ঘটিয়ে স্টেট কাউন্সিলর সু চিসহ আইন প্রণেতাদের গৃহবন্দি করে ক্ষমতা দখলে নেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। ওইদিন থেকেই সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে রাস্তায় আপামর জনতা। আর এই প্রতিবাদকারীদের প্রতি কঠোর কোনো প্রতিক্রিয়া দেখানো হলে তার ‘গুরুতর পরিণতি’ সম্পর্কে দেশটির সেনাবাহিনীকে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ।

সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সংস্থাটির বিশেষ দূত মিয়ানমারের সামরিক জান্তার দ্বিতীয় শীর্ষ নেতাকে ফোন করে এ সতর্কতা জানানো হয় বলে জাতিসংঘের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন- প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রয়টার্স।

এদিন জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিনা শানার বার্জেনার সামরিক জান্তার উপপ্রধানের সঙ্গে কথা বলেন।

জাতিসংঘের সদর দপ্তরে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে সংস্থাটির মুখপাত্র ফারহান হক বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ সমাবেশ অধিকারকে যেন অবশ্যই সম্মান করা হয় এবং বিক্ষোভকারীরা প্রতিহিংসার শিকার যেন না করা হয় তা নিশ্চিত করতে চাপ দেন শানার বার্জেনার।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে তিনি জানান, বিশ্ব নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং কঠোর কোনো ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখানো হলে পরিণতি মারাত্মক হতে পারে। বার্জেনার সেনাবাহিনীকে মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি সম্মান দেখানোর আহ্বান জানানোর পাশাপাশি তিনি ইন্টারনেট বন্ধ রাখা নিয়েও সতর্ক করেছেন বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের মুখপাত্র।

সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) অভ্যুত্থানের ১৪তম দিনে দেশটির বেশ কয়েকটি শহরের রাস্তায় সেনাবাহিনীর সশস্ত্র গাড়ি টহল দিতে দেখা গেছে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশজুড়ে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীদের হুঁশিয়ারি দিয়েছে যে সশস্ত্র বাহিনীকে বাধা দিলে তারা ২০ বছরের কারাদণ্ডের মুখোমুখি হতে পারে।

এছাড়া দেশটির বেশিরভাগ জায়গায় ইন্টারনেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সেনা অভ্যুত্থানের পরপরই মিয়ানমারে ইন্টারনেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। এ নিয়ে দ্বিতীয় দফায় ইন্টারনেট বন্ধ করা হলো দেশটিতে।

মিয়ানমারের কাচিন রাজ্যের উত্তরে নিরাপত্তা বাহিনী সেনা অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে চলা বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে। জাতিসংঘের এক কর্মকর্তা অভিযোগ করেছেন, সেনাবাহিনী ‘যুদ্ধ ঘোষণা’ করেছে। মিয়ানমারবিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ কর্মকর্তা টম অ্যান্ড্রুজ বলেন, জান্তা সরকার বেপরোয়া আচরণ করছে। এজন্য তাদের জবাবদিহি করতে হবে।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান হয় ১ ফেব্রুয়ারি। এর মধ্য দিয়ে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় দেশটির স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি ও প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকে। আর ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ নেন দেশটির সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মিন অং হং লাইং। এ ছাড়া ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব দেওয়া হয় সাবেক জেনারেল ও বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মিন্ট সোয়েকে। এরপর দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হয়।

Previous articleগণমাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Next articleপরকীয়ায় রাজি না হওয়ায় ভালোবাসা দিবসে মাথায় কোপ!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।