বাংলাদেশ ডেস্ক: দেশজুড়ে বিরাজমান অস্থিরতা উপেক্ষা করেই স্কুলে ফিরতে শুরু করেছে আফগানিস্তানের হেরাত শহরের শিক্ষার্থীরা। তালেবান শাসনের তৃতীয় দিনে আবারও পড়াশোনায় মনোযোগী হচ্ছে তারা।

স্কুলে যোগ দিয়ে হেরাতের শিক্ষার্থী রোকিয়া বলেন, ‘আমরা অন্যান্য দেশের মতোই উন্নতি করতে চাই। তালেবান আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করুক। আমরা আর যুদ্ধ চাই না। এই দেশে শান্তি চাই’।

চলতি মাসে আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তুমুল লড়াইয়ে একের পর এক প্রাদেশিক রাজধানী দখলে নেয় তালেবান। এ কারণে নিরাপত্তা সংকট ও ভয়ে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয় শিক্ষার্থীরা। বন্ধ হয়ে যায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও।

সবশেষ রাজধানী কাবুলের পতন ঘটে আফগান সরকারের। ফের তালেবান ক্ষমতায় আসায় মেয়েদের প্রকাশ্যে চলাফেরায় বাধার কারণ হতে পারে বলে ধারণা করছিলেন অনেকে।

তবে তালেবান মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে দিয়েছে, হিজাব পরে নারীরা চলাফেরা এবং কর্মস্থলে যোগ দিতে পারবে। এতে তালেবান কোনো বাধা দেবে না।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম স্কাই নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তালেবানের মুখপাত্র সুহাইল শাহিন বলেছেন, ‘তালেবান আমলে আফগানিস্তানে নারীদের জন্য বোরকা পরা বাধ্যতামূলক নয়। বাইরে বের হওয়ার সময় তাদের হিজাব পরলেই চলবে।’ একই ধরনের ইঙ্গিত দিয়েছেন তালেবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ।

কাবুল নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর মঙ্গলবার প্রথম সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘বিশ বছর আগের তালেবানের সাথে আজকের তালেবানের বিশাল তফাত রয়েছে। আমরা ২০ বছর আগের তালেবান নই। সময়ের প্রেক্ষিতে আমাদের নেওয়া পদক্ষেপ ও সিদ্ধান্তগুলোতে অনেক পার্থক্য দেখা যাবে। আর এটা বিবর্তনের ফসল।’

এমনকি সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রমে আফগান নারীরা যোগ দিতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন তালেবান নেতারা।

খবর আল জাজিরার।

Previous articleসেপ্টেম্বর থেকে সাত কলেজের পরীক্ষা
Next articleদেশে করোনায় আরও ১৭২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৭২৪৮
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।