বাংলাদেশ ডেস্ক: মারিউপোল শহরে যুদ্ধরত এক ইউক্রেনীয় সেনা কমান্ডার জানিয়েছেন যে তারা আর মাত্র কয়েক দিন বা কয়েক ঘণ্টা টিকে থাকতে পারবেন। বৃহস্পতিবার এমন সংবাদ প্রকাশ করেছে বিবিসি।

অবরুদ্ধ মারিউপোল শহরে থাকা ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর কমান্ডার এক ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেছেন, যেই বার্তায় ভিডিওটিকে ‘বিশ্বের প্রতি শেষ বার্তা’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন তিনি। সেখানে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর কমান্ডার বলেছেন, তারা আর মাত্র কয়েক দিন বা কয়েক ঘণ্টা টিকে থাকতে পারবেন।

ওই বার্তায় মেজর সেরহিভ ভলিয়ানা জানান যে তাদের জরুরি সরবরাহ শেষ হয়ে আসছে ও রুশ সেনারা তাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলছে।

ইউক্রেনীয় সেনাদের আত্মসমর্পণ করার জন্য রুশ সেনাবাহিনীর বেঁধে দেয়া শেষ সময় পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত আত্মসমর্পণের কোনো অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না।

মারিউপোলের ইউক্রেনীয় সেনারা এখন আযভস্টাল ইস্পাত কারখানার ভেতর কোণঠাসা হয়ে আছে। সেখানে তাদের সাথে এক হাজারের মতো বেসামরিক নাগরিকও রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইউক্রেনের সরকার অবশ্য বলছে, মারিউপোল থেকে বেসামরিক মানুষদের উদ্ধারে রাশিয়ার সাথে একটা সমঝোতা হয়েছে।

মারিউপোলের মেয়র ভাডিম বোইচেংকো জানিয়েছেন, বুধবার ছয় হাজার মানুষকে উদ্ধারের জন্য সেখানে ৯০টি বাস পাঠাবে ইউক্রেন। তিনি বলেন, প্রায় এক লাখ মানুষ এখনো শহরে আটকে আছে।

তবে প্রাদেশিক গভর্নর পাভলো কিরিলেঙ্কো জানিয়েছেন যে প্রাথমিক পরিকল্পনার চেয়ে কম সংখ্যক বাস অবরুদ্ধ বেসামরিক নাগরিকদের কাছে পৌঁছাতে পেরেছে এবং খুব বেশি মানুষ সেখান থেকে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হয়নি।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘পূর্ব নির্ধারিত পয়েন্টে মানুষ জড়ো হলেও অল্প সংখ্যক মানুষই বাসে উঠতে পেরেছেন।’

মারিউপোল শহরের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত আযভস্টাল ইস্পাত কারখানাটির আয়তন প্রায় ১০ বর্গ কিলোমিটার – এটা এখন ইউক্রেনীয় প্রতিরোধের সর্বশেষ ঘাঁটি। এ ঘাঁটির পতন ঘটলে পুরো মারিউপোল রুশদের হাতে চলে যাবে।

কতজন ইউক্রেনীয় সেনা শহরটিতে আছে, তা পরিষ্কার না হলেও বিবিসিকে পাঠানো ভিডিও বার্তায় মেজর ভলিয়ানা বলেন যে ইস্পাত কারখানায় প্রায় ৫০০ আহত সেনা সদস্যকে সেবা দেয়া হচ্ছে।

৩৬ মেরিন ব্যাটেলিয়নের প্রধান মেজর ভলিয়ানা ভিডিও বার্তায় জানিয়েছেন, এখানকার ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর রসদ শেষ হয়ে যাচ্ছে এবং ভিডিওটিকে ‘বিশ্ববাসীর প্রতি আমাদের শেষ বার্তা’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

রুশ সৈন্যরা যখন ধীরে ধীরে মারিউপোলে ঢুকতে শুরু করে, তখন এ বিশাল ইস্পাত কারখানা এলাকার দিকে সরে যায় হাজার হাজার ইউক্রেনীয় সেনা। তাদের সাথে যোগ দেয় আযভ ব্যাটালিয়নও। এ বিতর্কিত জাতীয় রক্ষী বাহিনী ইউনিটের সাথে কট্টর দক্ষিণ-পন্থী গোষ্ঠীগুলোর সম্পর্ক আছে।

কারখানা এলাকার ভেতর মাটির নীচে বহু টানেল এবং ওয়ার্কশপ আছে, ফলে সেখানে প্রতিরোধ যুদ্ধ চালানোর কিছু সুবিধা আছে।

বিচ্ছিন্নতাবাদী দোনেৎস্ক অঞ্চলের একজন কর্মকর্তা ইয়ান গাগিন রাশিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা রিয়া নোভোস্তিকে জানিয়েছেন, এ বিশাল ইস্পাত কারখানার নীচে লুকিয়ে আছে কার্যত আরেকটি শহর।

সূত্র : বিবিসি

Previous articleসাংসদ ছোট মনিরের বিরুদ্ধে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে ভূঞাপুরে বিক্ষোভ
Next article১০০ ম্যাচে সেঞ্চুরি নেই, তাহলে কি পতন শুরু কোহলির?
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।