সেলিম প্রধানসহ চারজনকে ৬ মাস করে জেল

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: অনলাইন ক্যাসিনোর হোতা সেলিম প্রধানসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে ছয় মাস করে কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ মঙ্গলবার র‌্যাব ১-এর অপারেশন অফিসার সুজয় কুমার সরকার এই তথ্য জানিয়েছিলেন।

কারাদণ্ডাদেশ পাওয়া চারজন হলেন সেলিম প্রধান, সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পিএস) মো. রুমন, সহযোগী মো. আক্তারুজ্জামান ও মো. মামুন।

সুজয় কুমার সরকার বলেন, ‘এই অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। অভিযানে মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান শেষে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।’

সুজয় কুমার সরকার বলেন, ‘মো. আক্তারুজ্জামান ও মো. মামুন অনলাইন ব্যবসায় সেলিম প্রধানের সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। এ ছাড়া তাঁর পিএসও এসব কাজে জড়িত। এঁরা সবাই মূলত অনলাইন ক্যাসিনোর মূল ব্যাপারগুলো নিয়ন্ত্রণ করতেন এবং তা ভ্রাম্যমাণ আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। তাই সবাইকে ছয় মাস করে কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।’

অভিযান শেষে মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। সে সময় তিনি বলেন, ‘আমরা সেলিমের বাসা থেকে ৪৮ বোতল বিদেশি মদ উদ্ধার করেছি। এ ছাড়া দুটি বাসা থেকে মোট ২৯ লাখ ৫ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করি। এর ভেতর গুলশানের বাসা থেকে সাত লাখ ৯৮ হাজার টাকা ও বনানীর বাসা থেকে ২১ লাখ ২০ হাজার টাকা উদ্ধার করি।’

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘তাঁর (সেলিম প্রধান) বাসায় অভিযান চালিয়ে আমরা ২৩টি দেশের মুদ্রা জব্দ করেছি। যার মূল্য, ৭৭ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। তাঁর পাসপোর্ট পেয়েছি ১২টি। এ ছাড়া ১৩টি ব্যাংকের মোট ৩২টি চেক বই পেয়েছি। তাঁর বাসা থেকে একটি বড় সার্ভারের সন্ধান পেয়েছি। যার মাধ্যমে অনলাইন গেমিং সিস্টেম সংরক্ষণ করে রাখা হতো। চারটি ল্যাপটপ উদ্ধার করেছি। বাসা থেকে দুটি হরিণের চামড়াও উদ্ধার করেছে র‌্যাব।’

‘আমাদের একটি সাইবার মনিটরিং সেল আছে। সেই সেলের মাধ্যমে আমরা দেখতে পাই যে, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অনলাইনে ক্যাসিনো গেমিংয়ে নিজেদের সম্পৃক্ত রেখেছে। তারপর স্বাভাবিকভাবে আমরা চিন্তিত হয়ে পড়ি। এরপর আমরা অপারেশনের প্ল্যান করা শুরু করি। গতকাল সোমবার আমরা জানতে পারি, অনলাইন ক্যাসিনোর প্রধান সমন্বয়ক সেলিম প্রধান টিজে-৩২০ বিমানটিতে করে দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছিলেন। তখন আমরা তড়িৎ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি এবং তাঁকে আমরা বিমান থেকে নামিয়ে আনতে সক্ষম হই।’

সেলিম প্রধানের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘১৯৭৩ সালে ঢাকায় তাঁর জন্ম। তিনি তাঁর বড় ভাইয়ের হাত ধরে ১৯৮৮ সালে জাপানে চলে যান। পরে জাপানে গাড়ির ব্যবসা শুরু করেন। পরে তিনি জাপানিদের সঙ্গে থাইল্যান্ড চলে যান এবং শিফ ব্রেকিং গার্ডের ব্যবসায় মনোনিবেশ করেন। পরে জাপানিদের মাধ্যমে একজন কোরিয়ান ব্যক্তির সঙ্গে তাঁর পরিচয় ঘটে। কোরিয়ান ব্যক্তি মি. দু তাঁকে একটি কনস্ট্রাকশন ব্যবসা খোলার জন্য অনুরোধ জানান। একই সঙ্গে একটি অনলাইন ক্যাসিনো খোলার জন্য পরামর্শ দেন।’

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘কোরিয়ান ব্যক্তির পরামর্শে সেলিম ২০১৮ সালে পি-২৪ এবং টি-২১ নামে দুটি অনলাইন ক্যাসিনো খোলেন। যেখান থেকে অনলাইন ক্যাসিনো পরিচালনা করতেন। আমরা তাদের সব নথি দেখেছি। যেখানে দেখা যায়, কোরীয় ব্যক্তি মি. দু ৫০ পারসেন্ট এবং সেলিম প্রধানের ৫০ পারসেন্ট পাবেন বলে উল্লেখ করা রয়েছে।’

র‌্যাব অধিনায়ক আরো বলেন, ‘আমরা সেলিম প্রধানের সহযোগী মো. আক্তারুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করেছি। তিনি টি-২১ নামের গেমটি পরিচালনা করতেন। আমরা তিনটি ব্যাংকের হিসাব পেয়েছি। ওই তিনটি ব্যাংকের মাধ্যমে নগদ অথবা চেকের মাধ্যমে টাকা তুলে আরো দুটি ব্যাংকে জমা করতেন। শেষের দুটি ব্যাংক থেকে হয় হুন্ডির মাধ্যমে অথবা ব্যক্তিগতভাবে টাকা বহন করতেন। কোরীয়রা বাংলাদেশে আসত এবং সেলিম প্রধান নিজে এই টাকাগুলো নিয়ে বিদেশে চলে যেতেন, যা পুরোপুরি মানি লন্ডারিংয়ের আওতায় পড়ে।’

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘সেলিম প্রধান গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের অসম্ভব কাছের একজন বন্ধু ছিলেন। এবং তাঁকে বিএমডব্লিউউ গাড়ি উপহার দিয়েছিলেন বলে উল্লেখ করেছেন। বিভিন্ন সময় অর্থ লন্ডনে পাঠিয়েছেন বলে আমাদের কাছে প্রাথমিকভাবে স্বীকারোক্তি দেন সেলিম।’

অধিনায়ক আরো বলেন, ‘আমরা সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে কয়েকটি সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করছি। প্রথমত, মানি লন্ডারিং। দ্বিতীয়ত, ফরেন কারেন্সি এবং তৃতীয়ত, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন।

অনলাইন ক্যাসিনোর টাকাগুলো জমা হতো একটি গেটওয়েতে। এক মাসে ওই গেটওয়েতে জমা হয়েছে মোট নয় কোটি টাকা। তাহলে কী পরিমাণ টাকা বাইরে পাঠানো হয়েছে, তা অনুমান করা যায়। এ ছাড়া এসব বিষয় নিয়ে আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আমরা বিস্তারিত বলব।’

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ‘তাঁরা এক বছর ধরে অনলাইনে ক্যাসিনো চালাচ্ছেন। তাঁদের দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করে তাদের থানায় হস্তান্তর করব। এই পর্যন্ত ক্যাসিনোতে যাদের আমরা সম্পৃক্ততা পেয়েছি তাদের আইনের আওতায় এনেছি। এ ছাড়া যাদের পাওয়া যাবে তাদেরও আইনের আওতায় নেওয়া হবে।’