স্বাস্থ্যের কেরানি আবজাল ১৪ দিনের রিমান্ডে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দুর্নীতির আলাদা দুটি মামলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আলোচিত কেরানি আবজাল হোসেনকে ১৪ দিনের রিমান্ড শুরু করবে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।
আজ রবিবার (১৩ই সেপ্টেম্বর) দুপুরের মধ্যে তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। সংস্থার উপপরিচালক তৌফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।

এর আগে আবজালকে দুই মামলায় দশ দিন করে মোট ২০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করলে আদালত ১৪ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করে। দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ২৬শে আগস্ট আবজাল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও অর্থ পাচারের অভিযোগে আবজাল ও তার স্ত্রী রুবিনা খানমের বিরুদ্ধে গত বছরের ২৭শে জুন পৃথক দুটি মামলা করে দুদক। একটি মামলায় অবৈধভাবে অর্জিত ২৬৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা পাচারের অভিযোগ আনা হয়।

আরেকটি মামলায় আবজালের বিরুদ্ধে ২০ কোটি ৭৪ লাখ ৩২ হাজার ৩২ টাকা অর্থপাচারের অভিযোগ আনা হয়। আর ৪ কোটি ৭৯ লাখ ৩৪ হাজার ৪৪৯ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

দুদকে আসা অভিযোগে বলা হয়েছে, আবজালের দেশে বিদেশে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে।

উল্লেখ্য, আবজাল হোসেনের বাড়ি ফরিদপুরে। ১৯৯২ সালে তৃতীয় বিভাগে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর আর পড়াশোনা করা হয়নি তার। ১৯৯৫ সালে তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের সুপারিশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ৫টি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন প্রকল্পে অফিস সহকারী পদে অস্থায়ীভাবে যোগ দেন তিনি।

২০০০ সালে প্রকল্পটি রাজস্ব খাতে স্থানান্তরিত হলে তিনি ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজে অফিস সহকারী হিসেবে যোগ দেন। সেখান থেকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজে ক্যাশিয়ার পদে বদলি হন।

এই ধারাবাহিকতায় তিনি বর্তমান পদে যোগ দেন। সম্প্রতি তাকে সাতক্ষীরায় বদলি করা হলেও দুই মাসের মধ্যেই ঢাকা ফিরে আসেন তিনি। আবজাল হোসেনের স্ত্রী রুবিনা খানম একই প্রকল্পে স্টেনোগ্রাফার হিসেবে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজে যোগ দেন ১৯৯৮ সালে।

রুবিনা খানম ২০০০ সালে স্বেচ্ছায় অবসরে গিয়ে রহমান ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামে প্রতিষ্ঠান গড়ে ব্যবসা শুরু করেন। মূলত স্বামী-স্ত্রী মিলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে একচেটিয়া ব্যবসা করার জন্য তারা প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।