বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কিশোরগঞ্জে হরতাল ও বিক্ষোভ মিছিলকে ঘিরে হেফাজত-বিএনপির তাণ্ডবের ঘটনায় সন্ত্রাস দমন আইনে আলাদা ৫টি মামলা করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় চারটি ও কটিয়াদী মডেল থানায় একটি মামলা করা হয়। এসব মামলায় আসামি করা হয় সাড়ে ৮ হাজার নেতাকর্মীকে এবং মামলায় পুলিশ ১৬ জনকে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ জানায়, গত ২৮ মার্চ হরতালের দিন শহরের বিভিন্ন স্থানে হামলা-ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনায় কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় পুলিশ বাদী হয়ে দায়ের করা তিনটি মামলায় হেফাজত-বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ প্রায় সাড়ে ৪ হাজার জনকে আসামি করা হয়।

এ ছাড়া হরতালের দিন আওয়ামী লীগ অফিসে হেফাজতে ইসলামীর হামলা-ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আহমেদ উল্লাহ বাদী হয়ে এক হাজার অজ্ঞানামা আসামির নামে মামলা করেন। জেলা সদরের বাইরে কটিয়াদীতে হামলা-নাশকতার ঘটনায় তিন হাজার জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

গত ২৮ মার্চ হরতালের দিন কিশোরগঞ্জ শহরের পুরান থানা, বড়বাজার, গৌরাঙ্গবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় গত ২৯ মার্চ তারিখে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় দুটি মামলা হয়। বড় বাজার পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক সোহরাব হোসেন বাদী হয়ে দায়েরকৃত মামলায় ২৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আড়াই হাজার জনকে আসামি করা হয়। একই দিন কিশোরগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে ৩৮ জনের নামসহ অজ্ঞাত ২৫০ জনের নামে মামলা করে পুলিশ। সোমবার শহরের একরামপুর ও পুরান থানা এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনায় কিশোরগঞ্জ মডেল থানার এসআই পল্লব সরকার বাদী হয়ে ৩১ মার্চ একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ১৭ জনের নাম উল্লেখসহ তিন হাজার অজ্ঞাতনামা লোকজনকে আসামি করা হয়।

এসব মামলায় অন্তত ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে উল্লেখ করে আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ।

পুলিশ সুপার জানান, হেফাজত ও বিএনপির নেতাকর্মীরা বিনা উসকানিতে পুলিশের ওপর হামলা করে। জেলা আওয়ামী লীগ অফিসসহ কয়েকটি স্থানে ব্যাপক তাণ্ডব চালায় তারা। এসব ঘটনায় ৫টি মামলা হয়েছে। আরও দুটি মামলা হবে। এসব মামলার আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। তবে বর্তমানে শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।

প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার রজত জয়ন্তি উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেশে আসাকে কেন্দ্র করে সারা দেশের মতো কিশোরগঞ্জেও আন্দোলনে নামে হেফাজতে ইসলাম। গত ২৮ মার্চ হরতালের সময় শহরের বিভিন্ন এলাকায় তাণ্ডব চালায় হেফাজত। এ দিন আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা করে ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হরতালকারীরা। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বকুল, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন খান মোল্লা সুমন, সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উমান খানসহ অন্তত ৪০ জন আহত হন। এ ঘটনার পর ওই রাতের বেলা জেলা ও উপজেলা বিএনপির দুটি অফিসের অসবাবপত্র বের করে রাস্তায় এনে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়।

পরদিন কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শহরের বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিএনপির। পুলিশ বাধা দিলে শহরের একরামপুর ও পুরানথানা এলাকায় তারা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়। টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

Previous articleহাসপাতালগুলো প্রায় ভরে গেছে, এটা একটা দুর্যোগময় পরিস্থিতি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
Next articleদেশে করোনা শনাক্তের নতুন রেকর্ড: আরও ৫৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬ হাজার ৪৬৯
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।