ঝালকাঠিতে কবি কামিনী রায়ের ১৫৫তম জন্মবার্ষিকী পালিত

রেজাউল ইসলাম পলাশ: সাড়াজাগানো কবিতা পাছে লোকে কিছু বলে, এক সময়ের জনপ্রিয় কবি, কামিনী রায়ের ১৫৫তম জন্মবার্ষিকী, শনিবার (১২ অক্টোবর) তার জন্মস্থান ঝালকাঠিতে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে কামিনী রায়-জীবনানন্দ দাশ-নচিকেতা চক্রবর্তী এর জন্মভিটা পুনরুদ্ধার আন্দোলন পরিষদ আয়োজিত অনুষ্ঠানমালায় কবির জীবনী, তার জন্মভিটা পুনরুদ্ধার ও স্মৃতি সংরক্ষণ বিষয়ক আলোচনা; কবিতা আবৃত্তি, ১৫৫টি বই বিতরণ, ১৫৫টি গাছের চারা বিতরণ ও ১৫৫টি মোমবাতি প্রজ্জ্বলন অন্তর্ভূক্ত ছিল। প্রবীণ শিক্ষাবিদ এস এম শাহজাহান প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে বিকালে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন। বিশেষ অতিথিরা হলেন- প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মানিক রায়, টিআইবির সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সহসভাপতি হেমায়েত উদ্দিন হিমু, উদ্বোধন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিসুর রহমান পলাশ ও উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি গোলাম সাঈদ খান। সভাপ্রধান ছিলেন জন্মভিটা পুনরুদ্ধার আন্দোলন পরিষদ্#৩৯; এর সভাপতি ডক্টর কামরুন্নেছা আজাদ। আন্দোলন সংগঠক উজ্জ্বল মজুমদার ও মাইনুল ইসলাম মান্না আলোচনায় অংশ নেন। সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সদস্যসচিব আ ফ আজিম তালুকদার। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থী অনন্যা ও রাখী কবিতা আবৃত্তি করেন। অতিথিরা সংশ্লিষ্টদের হাতে বই ও গাছের চারা তুলে দেন। এছাড়া সব ধরনের অন্ধকার দূর করে আলোকিত সমাজ গঠনের লক্ষে অতিথি, সংস্কৃতিজন ও সংগঠনের কর্মীরা রাতে শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেন। উল্লেক্ষ্য, বাংলার প্রথম মহিলা স্নাতক তথা কবি কামিনী রায়ের ১৫৫ বছরের জন্মদিন উদ‌্ধসঢ়;‌যাপন করল গুগল। ডুডলের মাধ্যমে বাংলার বিস্মৃতপ্রায় এই কবি ও সমাজকর্মীকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরল গুগল। ১৮৬৪ সালে আজকের দিনেই অবিভক্ত বাংলার ঝালকাঠিতে জন্মগ্রহণ করেন কামিনী রায়। ১৮৮০ সালে তিনি কলকাতা

বেথুন স্কুল থেকে এন্ট্রান্স (মাধ্যমিক) পরীক্ষায় পাশ করেন। ১৮৮৩-তে এফএ বা ফার্স্ট আর্টস (উচ্চ মাধ্যমিকের সমতুল) পরীক্ষায় সফল ভাবে উত্তীর্ণ হন কামিনী। ১৮৮৬-তে ভারতের প্রথম নারী হিসেবে সংস্কৃত ভাষায় সাম্মানিক স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ১৮৮৯ সালে তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘আলো ও ছায়া’ প্রকাশিত হয়। নারীশিক্ষা বিস্তারের জন্য ‘বালিকা শিক্ষার আদর্শ’ নামক গ্রন্থটি লেখেন তিনি। নারী শ্রম তদন্ত কমিশন (১৯২২-’২৩) গঠনেও তাঁর সক্রিয় ভূমিকা ছিল। বাংলাদেশের প্রগতি আন্দোলনের পুরোধা সুফিয়া কামালকে ধারাবাহিক লেখালেখির পরামর্শও দেন কামিনী রায়। ১৯৩৩ সালে ভারতের হাজারিবাগে তাঁর জীবনাবসান ঘটে।