বৃষ্টি নির্ভর বিনাধান-১৯ এর ফলন হেক্টর প্রতি ৫ টন

স্বপন কুমার কুন্ডু: বিনাধান-১৯ বৃষ্টি নির্ভর অবস্থায় সরাসরি বপন উপযোগী (ডিবলিং) আউশ ও আমন মৌসুমের একটি জাত। স্বাভাবিকভাবে কোন সেচের প্রয়োজন হয় না। এই ধানের জীবনকাল মাত্র ৯৫ থেকে ১০৫ দিন।  লবণাক্ত এলাকা ছাড়া দেশের খরা পীড়িত বরেন্দ্র ও পাহাড় অঞ্চলসহ প্রায় সকল মধ্যম ও উঁচু জমিতে এই ধানের ফলন হয়। এই জাতের ফলন হেক্টর প্রতি ৫ টন। বেশি ফলনের পাশাপাশি এর উৎপাদন খরচও অন্য ধানের তুলনায় কম। তাই কম খরচে স্বল্প সময়ে বেশি ফলনের জন্য  বিনা-১৯ জাতের ধান আবাদ করে ঈশ^রদী এলাকার কৃষকরা লাভবান হয়েছেন। বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) ঈশ্বরদী উপকেন্দ্রের উদ্যোগে শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে কৃষকরা তাদের বক্তব্যে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। মঙ্গলবার  বিকেলে ঈশ্বরদী শহরের  উমিরপুর এলাকায় বিনা উদ্ভাবিত স্বল্প মেয়াদী ও খরা সহিঞ্চু আউশ ধানের উচ্চ ফলনশীল জাত বিনা-১৯ এর প্রচার ও স¤প্রসারণের লে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)’র মহাপরিচালক ড.মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিনা’র পরিচালক (প্রশাসন ও সাপোর্ট সার্ভিস) ও বিনা ধান-১৯ এর উদ্ভাবক ড.  আবুল কালাম আজাদ, পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আজহার আলী, ঈশ্বরদী উপজেলা কৃষি অফিসার আব্দুল লতিফ। সভাপতিত্ব করেন ঈশ্বরদী উপকেন্দ্রের এসএসও এবং ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুশান চৌহান। বক্তব্য রাখেন ঈশ্বরদী’র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা খানজাহান আলী, কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা সুজন কুমার রায়, কৃষক জুয়েল রানা প্রমূখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিনা উপকেন্দ্র ঈশ্বরদী’র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মশিউর রহমান।

Previous articleরুপপুর পারমাণবিকের নির্মাণ কাজে ৩০ ভাগ অগ্রগতি
Next articleউল্লাপাড়ায় প্রকৃতিপ্রেমীরা আসেন জিরো পয়েণ্টে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।