আল-আমিন: বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় একটি জনবহুল দেশ। জনসংক্ষার দিক দিয়ে এটি বিশ্বের ৮ম বৃহত্তম জনসংক্ষার দেশ। এদেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩০% (২৮ জুন ২০২১ পরিসংখ্যান ব্যুরো) এবং জনসংক্ষার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে প্রায় ১১১৬ জন(পরিসংখ্যান ব্যুরো ২০১৭) ।

বেকারত্ব সমস্যা আমাদের দেশের একটি প্রধান সমস্যা। শুধু দারিদ্রতা ও নিরক্ষরতা বেকারত্ব বৃদ্ধির অন্যতম কারন নয়। দেশে প্রতিবছর পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে শিক্ষার হার ও মান বাড়লেও বাড়ছে বেকারত্বের সংখ্যা। এশিয়া প্যাসিফিক এমপ্লয়মেন্ট এন্ড সোস্যাল আউটলুক ২০১৮ শীর্ষক এক প্রতিবেদন বলা হয় এশিয়া শীর্ষ বেকারত্বে ২য় অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশে বেশি বেকারত্বের হার উচ্চ শিক্ষিতদের মধ্যে যা ১০.৭% । আত্ম-কর্মসংস্থান নয় ভালো চাকরিকে প্রাধান্য দেওয়ায় হল এদেশের বেকারত্ব বৃদ্ধির অন্যতম কারন। অথচ সৃষ্টি যেকোন দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। বিভিন্ন উপায়ে আত্বকর্মসংস্থান সৃষ্টি করা যায়, সেক্ষেত্রে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। কথায় আছে “মাছে ভাতে বাঙালি” শুধু বাঙালি নয় সারাবিশ্বে খাদ্যের অন্যতম উৎস হল মাছ। মাছ আমিষের চাহিদা পূরণ করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক চাহিদাও পূরণ করতে পারে। মাছের চাহিদা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। পাশাপাশি তাল মিলিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে মাছ চাষের ব্যাবসা। পুরানো পদ্ধতিতে মাছ চাষ করে অনেক মৎস চাষি লোকসানের সম্মুক্ষিন হয় তাই মাছ চাষের খরচ কমানোর জন্য এসেছে নতুন ধারার অনেক প্রযুক্তি এদের মধ্যে বায়োফ্লক পদ্ধিতিতে মাছ চাষ অন্যতম। আয়তনে ছোট আমাদের বাংলাদেশে মাছ চাষের জন্য খুবই উপকারী। পর্যাপ্ত জায়গার অভাবে অনেক জায়গায় মানুষ মাছ চাষ করতে পারে না। সেক্ষেত্রে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ এর একটি উৎকৃষ্ট সমাধান। কারন এই পদ্ধতিতে মাছ চাষের খুবই অল্প জায়গা প্রয়োজন। বায়ো শব্দের অর্থ জীবন আর ফ্লক শব্দের অর্থ আলতোভাবে লেগে থাকা কণা সমষ্টি। বায়োফ্লক হল উপকারি ব্যাকটেরিয়া, অণুজীব ও শৈবাল দিয়ে গঠিত পাতলা আস্তরণ, যা জলকে ফিল্টার করে। জল থেকে নাইট্রোজেন জাতীয় ক্ষতিকর উপাদানগুলি শোষন করে নেয় এবং অধিক প্রোটিন যুক্ত খাবার(ফ্লক) মাছ গ্রহন করতে পারে। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছের জৈব বর্জ্য হতে পূর্নব্যবহারযোগ্য খাবার তৈরি হয়। বায়োফ্লক প্রযুক্তির সিস্টেমের উপকারী ব্যাকটেরিয়া মাছের অব্যাহৃত খাদ্য, মল-মূত্র থেকে অণুজীব প্রোটিন(ফ্লক) তৈরি করে ফলে বাহির হতে কম খাদ্য সরবরাহ করলেও হয়। তাই বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ লাভজনক টেকসই ও পরিবেশবান্ধব। ফলে এই পদ্ধতিতে ৩০% পর্যন্ত মাছের খাবার সাশ্রয়ী হয় যার ফলে অনেক বেশি লাভবান হওয়া যায়। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে বিভিন্ন প্রকার মাছ করা যায়। যার মধ্যে বাংলাদেশে ইতিমধ্যে তেলাপিয়া, শিং, পাবদা, গুলশা, রুই মাছ চাষ শুরু হয়েছে। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষের সবচেয়ে উপকারী দিক হলো এটি অল্প জায়গায় করা যায় এবং বেশি পরিমাণ মাছ উৎপাদন করা যায়। খাদ্যের পূর্নব্যবহার হয় বলে খাবারের অপচয় অনেক কম হয়। প্রাকৃতিক ব্যাক্টেরিয়া ব্যবহার করা হয় বলে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষে মাছের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি থাকে। যার ফলে খামারকে রোগের প্রার্দুভাব থেকে রক্ষা করা যায়। প্রকৃতিতে বিদ্যমান উপকারী ব্যাক্টেরিয়া প্রয়োগ করা হয় বলে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ খুবই পরিবেশ বান্ধব। পুকুরের সমান পরিমাণ জায়গায় কম সময়ে বায়োফ্লক ২০ গুণ বেশি মাছ উৎপাদন করা যায়। তাই জায়গা কম ব্যবহার করে অধিক মাছ উৎপাদন হয়। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করতে লাগবেঃ চৌবাচ্চা বা ট্যাংক বা হাউজ, ত্রিপল আউটলেট, টিডিএস মিটার, পিএইচ মিটার, অ্যামোনিয়া টেস্ট কিট, ডিও মিটার, অক্সিজেন মটর (এরেটর), থারর্মোমিটার ,বিদ্যুৎ, প্রবায়োটিক (প্রাকৃতিক ব্যাক্টেরিয়া), চিটাগুর, সুষম খাদ্য, মাছের পোনা। সামান্য কারিগরী শিক্ষা নিয়ে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ শুরু করা যায়। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষের জন্য ৫০০০ লিটার, ১০০০০ লিটার বা প্রয়োজন অনুযায়ী এর হাউজ বা ট্যাংক নির্মান করতে হয়।

ট্যাংক নির্মানে কংক্রীট(অধিক ব্যায়) বা পানিরোধী মোটা পর্দা(সল্প ব্যায়) ব্যবহার করা যায়। গভীর নলকূপের পানি বা নদী জলাশয়ের বিশুদ্ধ পানি দিয়ে মাত্রানুযায়ী পূর্ণ করতে হবে এবং ফ্লক তৈরির জন্য প্রথমে ৫ পি.পি.এম প্রবায়োটিক ,৫০ পি.পি.এম চিটাগুর, ৫পি.পি.এম ইস্ট, টন প্রতি ১ লিটার পানি একটি প্লাস্টিকের বালতিতে অক্সিজেন সরবরাহ করে ৮- ১০ ঘণ্টা কালচার করে ১০০০ কেজি পানিতে প্রয়োগ করতে হবে যদি ১০০০০ লিটার পানি হয় তবে উক্ত পরিমানটি ১০গুন করে দিতে হবে। পানিতে ফ্লক তৈরি হলে পানির রং সবুজ বা বাদামি দেখাবে ও পানিতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কনা দেখা যাবে । ফ্লক তৈরির পর হাউজ বা ট্যাংকে মাছের পোনা ছাড়তে হয় এবং সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ নিশ্চিত করে অক্সিজেন সরবরাহ করতে হয়। নিয়মিত ডি.ও , টি.ডি.এস, অ্যামোনিয়ার এর মাত্রা পরীক্ষা করতে হবে এবং যথাযথ ফ্লক তৈরি হচ্ছে কিনা তা খেয়াল রাখতে হবে। ১০০০০ লিটার ধারণ ক্ষমতার একটি হাউজ বা ট্যাংক হতে ৮০০ থেকে ১০০০ কেজি মাছ উৎপাদন করা সম্ভব। প্রাথমিক অবস্থায় ১০০০০ লিটার ধারণ ক্ষমতার একটি চৌবাচ্চা বা ট্যাংক নির্মান ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ স্থাপন করতে মোটামুটি ৬০,০০০-৮০,০০০/- হাজার টাকার প্রয়োজন(ট্যাংক বা হাউজের ধরন অনুযায়ী পরিবর্তন হতে পারে)। প্রতি তিন থেকে চার মাস অন্তর অন্তর ১০০০০ লিটার ধারণ ক্ষমতার ট্যাংক হতে প্রায় ১০০০০০-১২০০০০/- হাজার টাকার মাছ বিক্রি করা যায়। মাছ বিক্রির পর ট্যাংক বা হাউজে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে ১৫দিন পর পূনরায় মাছ ছাড়া যায়।প্রথমবার লাভের পরিমান কম হলেও পরবর্তীতে যন্ত্রাংশ বাবদ কোনো খরচ কম হওয়ায় লাভের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। তাই বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষে উদ্যোগী হলে দেশে বেকারত্ব কমে আসবে। মাছের চাহিদা পূরণ ও অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়া যাবে। করোনা পরবর্তী সময়ে শ্রম বাজার ও কর্মসংস্থানে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে তাই দেশে যুব সমাজ আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব সমস্যা দূর করতে পারবে। বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ হতে পারে আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টির হাতিয়ার। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে সহয়তা ও প্রশিক্ষন দেওয়া হলে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষে অনেকে এগিয়ে আসবে । বেকারত্ব কমানোর পাশাপাশি এটি দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারবে। জাতিসংঘ ২০১৬-২০৩০ সাল মেয়াদী ১৭টি টেকসই উন্নয়নের লক্ষমাত্রা নির্ধারন করে যেখানে প্রথমেই বলা হয়েছে “নো প্রোবার্টি”। অর্থাৎ দারিদ্রতা দূরীকরন টেকসই উন্নয়নের একটি লক্ষমাত্রা। তাই বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ আত্বকর্মসংস্থান সৃষ্টি ও টেকসই উন্নয়নে ভুমিকা পালন করবে।

নামঃ আল-আমিন

শিক্ষার্থী: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ডিপার্টমেন্ট অব এনভাইরনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং

Previous articleজিয়ার মাজারে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর পুলিশের গুলি-সংঘর্ষ, আটক ৪০
Next articleমাদারীপুরে যৌতুকের বলি হলেন গৃহবধূ ইভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।