রবিবার, জুলাই ২১, ২০২৪
Homeহৃদয়ে মাটি ও মানুষচান্দিনায়  কেঁচো সার উৎপাদন করে ভাগ্য বদলে গেল সাইফুলের

চান্দিনায়  কেঁচো সার উৎপাদন করে ভাগ্য বদলে গেল সাইফুলের

ওসমান গনিঃ কুমিল্লার চান্দিনার সাইফুল কেঁচো সার উৎপাদনে সাফল্য পেয়েছেন। প্রথমে সাইফুল মাস স্কেল ভার্মি কম্পোস্ট (এন, এ, টি, পি) প্রকল্পের আওতায় ১৬টি রিং দিয়ে কেঁচো সারের প্রদর্শনী থেকে উৎপাদন শুরু করলেও এখন রিংয়ের সংখ্যা ২০০টি। প্রতি মাসে তার সার উৎপাদন হয় ৭ মে: টনের মতো। কেজিপ্রতি ১৫ টাকা দরে বিক্রি করেন। জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও বাইরের জেলা থেকেও ক্রেতারা সার নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি ক্রেতার চাহিদা পূরণ করতে হিমশিম খান।

সাইফুল ইসলাম জানান, বেসরকারি সংগঠনের একটি আইটি সেকশনে কাজ করতেন তিনি। একদিন গ্রামের বাড়িতে দেখা হয় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেনের সাথে। তখন তিনি জানতে পারেন তার স্ত্রী ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ফাতেমা বেগম পিহর মহিলা সি আই জি সমবায় সমিতির একজন সদস্য হএয়ায় একটি কেঁচো সারের প্রদর্শনী দেওয়ার আগ্রহ ব্যক্ত করলে তিনি জানান, মাটির জৈব পদার্থের পরিমাণ পাঁচ ভাগ থাকতে হয়। দেশের অনেক জায়গায় তা দুই ভাগেরও কম। এ জন্য প্রয়োজন মাটিতে জৈবসার প্রয়োগ। এ ছাড়া এ সারের চাহিদা রয়েছে। মনোযোগ দিয়ে করলে ভালো আয়ও সম্ভব। সে ভাবনা থেকে গ্রামের কৃষক ও কৃষির সেবায়  তার বাড়ি কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার পিহর গ্রামে ফিরে আসেন।

তার ভাবনার কথা স্ত্রীকে জানান। স্ত্রী কৃষি ডিপ্লোমা করা। তিনি তার উদ্যোগে সমর্থন দেন। প্রতিবেশী এবং গ্রামের লোকজন সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখতে থাকেন। ছেলেটা যেন বদলে গেছে। টয়লেটে ব্যবহার করার মতো রিং সংগ্রহ করছে। গোবর মাটি সংগ্রহ করছে। তার মধ্যে ছাড়ছে কেঁচো। মেধাবী ছেলেটার মাথা মনে হয় গেছে। এভাবেই শুরু করেন তরুণ সাইফুল ইসলাম।

সরেজমিনে পিহর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, সড়কের পাশে একটি লম্বা টিনের চালার ঘর। ঘরের গায়ে ব্যানারে লেখা- প্ল্যান পাওয়ার কেঁচো সার। ঘরের ভিতরে রিংয়ের সারি। রিংয়ে মাটি ও কেঁচো দেওয়া। সার সংগ্রহ, চালুনি, ওজনের পর বস্তায় নেওয়ার কাজ চলছে। সহকারীদের সঙ্গে ব্যস্ত উদ্যোক্তা সাইফুল ইসলামও। নতুন অনেকে সেখানে প্রবেশ করে কেঁচো দেখলে হয়তো গা ঘিন ঘিন করে উঠবে। কিন্তু তারা হাসিমুখে কাজ করে যাচ্ছেন।

সাইফুল ইসলাম বলেন,২০২১ সালে কাজ শুরু করি। স্ত্রী কৃষি নিয়ে লেখাপড়া করায় সহযোগিতা পেয়েছি। এ কাজ তাকে আনন্দ দেয়। কারণ তিনি মাটির প্রাণ ফিরিয়ে দিতে জৈব সার তৈরি করছেন। এ ছাড়া এটা তার পরিবারের আয়েরও উৎস। মানুষ নিরাপদ ফসল চায়। যখন শুরু করেন তখন এলাকার অনেকে বলেন- এটা পাগলামি। কিন্তু তার বিশ্বাস ছিল, তাই সফলতা পেয়েছেন। ধৈর্য নিয়ে লেগে থাকলে সফলতা আসবেই।

চান্দিনা উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মনিরুল হক রোমেল বলেন, মাটির স্বাস্থ্য  রক্ষায় প্রতি বিঘায় ১ থেকে দের মে: টন জৈব সার প্রয়োগ করা দরকার কিন্তু কৃষক জৈব সার খুব কম ব্যবহার করে বিদায় মাটির  স্বাস্থ্য দিনে দিনে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে তাই বিভিন্ন ফসলে রোগ পোকা মাকরের আক্রমণে ফসল উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে এই সময়ে উচ্চ শিক্ষিত সাইফুল ইসলাম কেঁচো সার উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহন করায় এই অঞ্চলের  কৃষক সমাজ উপকৃত হবে। কৃষি বিভাগের সার্বিক  সহযোগিতায় অব্যাহত থাকবে। এর মধ্যে সুয়ালক, গোয়ালিখোলা, ডলুপাড়া ও ক্যামলংয়ের চাষিদের মধ্যে এটি জনপ্রিয় হয়েছে। ছড়িয়ে পড়ছে অন্য উপজেলায়ও।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments