নির্বাচন কমিশন ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে বৈঠকে আলোচনার টেবিলে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনসহ (ইভিএম) কয়েকটি প্রসঙ্গ নিয়ে।

অবশ্য সোমবার বিকালে সিইসির সভাকক্ষে ওই বৈঠক শেষে দুই পক্ষই আনুষ্ঠানিকভাবে ‘আন্তরিক পরিবেশে ফলপ্রসূ‘ আলোচনার কথা বলেছে।

কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ‘অত্যন্ত আন্তরিক পরিবেশে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। বর্তমান ইসির প্রতি তাদের আস্থাও রয়েছে।’

আলোচনায় উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘এটা উত্তপ্ত কথা না। গলার আওয়াজটাই এরকম। উনারা তো নেতৃবৃন্দ, স্বাভাবিকভাবেই এভাবে কথা বলতে অভ্যস্ত।’

বৈঠকে উপস্থিত একজন বলেন, ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলনের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না আলোচনার এক পর্যায়ে ইভিএম নিয়ে চ্যালেঞ্জ করেন। তিনি দাবি করেন ইভিএম ‘ম্যানিপুলেট’ করা সম্ভব। তার ওই দাবি নির্বাচন কমিশন উড়িয়ে দিলে উত্তেজনা ছড়ায়।

নতুন দল ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলনকে নিবন্ধন না দেওয়ায় ইসির কঠোর সমালোচনা করে আসছেন মান্না।

বৈঠকে কী হয়েছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি এই নির্বাচন কমিশনকে খুব অসহিষ্ণু দেখেছি। খানিকটা ভদ্রতা বোধের অভাব রয়েছে। ইভিএম মেশিনটি ম্যানিপুলেট করা যায়, এটা আমি চ্যালেঞ্জ করেছি; এটা আমি দেখিয়ে দেব। এই পর্যায়ে সিইসি বলেছেন- এরকম বড় বড় কথা অনেকেই বলতে পারেন। তখন আমি বলেছি- মাইন্ড ইওর ল্যাঙ্গুয়েজ… তখন কথা একটু হয়েছে।’

পরে কমিশনের পক্ষ থেকে এ নিয়ে জোরালো কোনো উত্তর আসেনি দাবি করে মান্না বলেন, ‘সব কিছু মিলে ঠিক হয়ে গেছে। পরে সুলতান মোহাম্মদ মনসুর সাহেবকেও একজন নির্বাচন কমিশনার বলেছেন- আপনি মিথ্যা কথা বলছেন।’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও জোটের বিরোধিতার মধ্যেই সম্প্রতি সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের জন্য আরপিও সংশোধন করে অধ্যাদেশ আকারে তা জারি করা হয়। আর নির্বাচনে কীভাবে তা ব্যবহার করা হবে, সে বিষয়ে খুঁটিনাটি চূড়ান্ত করে রোববার কমিশন সভায় অনুমোদন করা হয় বিধিমালা।

নির্বাচন কমিশন বলছে, আইনি ভিত্তি পাওয়ার পর আগামী নির্বাচনে স্বল্প পরিসরে এ প্রযুক্তি ব্যবহার হবে। তবে কয়টি কেন্দ্রে তা ব্যবহার করা হবে তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

বৈঠক শেষে ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র আ স ম আব্দুর রব সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘দীর্ঘক্ষণ আমাদের সঙ্গে ইসির আলোচনা হয়েছে। আমাদের আসতেও দেরি হয়েছে। অসুস্থতার কারণে (কামাল হোসেন) আসতে পারেননি। ইসিকে অশেষ অশেষ ধন্যবাদ। সিইসি, নির্বাচন কমিশনার তারা যে আন্তরিকতা দেখিয়েছেন তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। অত্যন্ত আন্তরিক পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। আমাদের মনে হয়েছে- আজকে উনারা আমাদের কথা মনোযোগ সহকারে শুনে মাথা নেড়েছেন। তবে উনারা যে এডামেন্ট, ৮ তারিখের মধ্যে তফসিল করবেন; আমাদের কথা শুনে উনারা একটু চিন্তার মধ্যে নিয়েছেন।’

কমিশনের উদ্দেশে কিছুটা হুঁশিয়ারির সুরেই রব বলেন, ‘২০১৯ সালের জানুয়ারির পরে দেশে থাকতে হবে এ ইসিকে। আমরা বলেছি, সেভাবে কাজ করবেন, যাতে জানুয়ারির পরে আপনারা থাকবেন এ কথা যেন মনে থাকে।’

কে এম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিশনের প্রতি আস্থা রয়েছে কি না- সেই প্রশ্ন ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্রের কাছে জানতে চেয়েছিলেন সাংবাদিকরা।

বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে আসম আ. রব বলেন, ‘সুন্দর পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। আপনারা সাংবাদিকরা কী ভাষা ব্যবহার করবেন তা আপনাদের বিষয়। আমি রাজনীতিবিদ হিসাবে রাজনীতির ভাষায় বলেছি।’

মান্না এ সময় সাংবাদিকদের বলেন, ইসি পুনর্গঠনের দাবির বিষয়টিও রয়েছে তাদের দাবির মধ্যে।

ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে বৈঠকে জেএসডির সভাপতি রবের সঙ্গে ছিলেন বিএনপির গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বরকতউল্লাহ বুলু, জেএসডির আব্দুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, গণফোরামের মোকাব্বির খান, নঈম জাহাঙ্গীর, জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং আ অ ম শফিউল্লাহ।

অন্যদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এবং কমিশন সচিব হেলালউদ্দীন আহমদ বৈঠকে অংশ নেন।