কাগজ প্রতিবেদক: প্রতিবন্ধী ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জন্য নীতিমালা প্রণয়নের মাধ্যমে কোটা ব্যবস্থা পুনরায় চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন হয়েছিল। স্বাভাবিকভাবেই কিছুদিন পরপর আন্দোলন হয়। সেজন্য আমরা কোটা পদ্ধতি বাতিল করে দিয়েছি, এটা ঠিক। তবে একটা নীতিমালা তৈরি করছি যাতে প্রতিবন্ধী, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী অনগ্রসর জাতি তাদের সবার অধিকার থাকবে। তারা যেন যথাযথভাবে চাকরি পায়। চাকরিতে তাদের যেন অধিকার থাকে সেই ব্যবস্থা নীতিমালায় অবশ্যই থাকবে।”
সোমবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবসের অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, “প্রত্যেক এলাকায় যারা প্রতিবন্ধী, তাদের এক সময় অবহেলা করা হতো। যাদেরকে অনেক সময় মানুষ দূর দূর ছাই ছাই করতো। যাদেরকে মানুষ হিসেবেই গণ্য করা হতো না। আমরা যেন তাদের অবহেলা না করি। তাদেরকে আমরা যেন সমাজের অংশ হিসেবে পাই। মানুষ হিসেবে তাদের অধিকার যেন আমরা দিতে পারি।”

তিনি আরও বলেন, “কিছুক্ষণ আগেই দেখেছেন আমাদের এক বোন যার দুই হাত না থাকা সত্ত্বেও পা দিয়ে চমৎকার একটা নৌকা তৈরি করে আমাকে উপহার দিয়েছে। তার দুটি হাত না থাকার পরেও মেধা ও শক্তি দিয়ে দুই পা ব্যবহার করে এত সুন্দর সুন্দর জিনিস তৈরি করছে। কাজেই আমি মনে করি তাকে অবহেলা করার সুযোগ নাই। এখানে যে প্রতিপাদ্য বিষয় সাম্য ও অভিন্ন যাত্রায় প্রতিবন্ধীদের ক্ষমতায়ন, এই অভিন্ন যাত্রায় আমাদের প্রতিবন্ধীদের সামিল করাই আমাদের লক্ষ্য।