কাগজ প্রতিবেদক: ‘পর পর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী নয়’—সাংবিধানিক এমন সংস্কার এনে আজ সোমবার ইশতেহার ঘোষণা করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে সকাল ১১টায় এই ইশতেহার ঘোষণা করা হবে। ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের পক্ষে মুখপাত্র বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ইশতেহার ঘোষণা করতে পারেন। ইশতেহারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ক্ষমতায় গেলে বেশকিছু সাংবিধানিক সংস্কার আনার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার কথা থাকবে। এর মধ্যে রয়েছে—রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য আনা হবে। সংসদের উচ্চ কক্ষ সৃষ্টি করা হবে। সংসদের ডেপুটি স্পিকার হবেন বিরোধী দল থেকে। বিচারপতিসহ সব সাংবিধানিক পদে নিয়োগের জন্য ‘স্বাধীন কমিশন’ গঠন করা হবে। সংশোধন করা হবে সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্রে জানা যায়, আগামীকাল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান শরিক দল বিএনপি পৃথকভাবে আরেকটি ইশতেহার ঘোষণা করবে। তবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির ইশতেহারের মৌলিক কোনো পার্থক্য নেই। জানা যায়, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে থাকবে, প্রতিহিংসা-প্রতিশোধের বিপরীতে নতুন ধারার রাজনীতির ঘোষণা। ঐক্যফ্রন্ট ক্ষমতায় গেলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে শতকরা ১১ ভাগ। এ ছাড়া ডিজিটাল অ্যাক্ট বাতিল, জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার বিতর্কিত ধারাগুলো বাধ দেওয়ার পাশাপাশি থাকছে পুলিশ ও সামরিকবাহিনী ব্যতীত সরকারি চাকরিতে কোনো বয়সসীমা না রাখা। তরুণদের জন্য পৃথক একটি ‘তারুণ্যের ইশতেহার ভাবনা-২০১৮’ ঘোষণা করা হবে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে। এ প্রসঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন আজকের কাগজকে বলেন, ‘আগামীকাল সকাল ১১টায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার ঘোষণা করা হবে। যা বলার সেখানেই বলব।’ সূত্রে জানা যায়, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে বেশ কয়েকটি অনুচ্ছেদ করা হয়েছে। এগুলো হলো—ভোটের অধিকার নিশ্চিত করা, তরুণদের কর্মসংস্থান, দুর্নীতি দমন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণ, উন্নয়নের সুফল সব মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া, ক্ষমতার ভারসাম্য নিশ্চিতকরণ, নির্বাচন কমিশন, নির্বাচনী আইন ও নির্বাচনী ব্যবস্থার সংস্কার, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা ও বিকেন্দ্রীকরণ, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, আদালত, নিরাপদ সড়ক-যাতায়াত এবং পরিবহন, ব্যাংকিং খাত-শেয়ারবাজার ও বাজেট, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, ডিজিটাল প্রযুক্তি, কৃষি ও কৃষক, খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধ, মাদক নিয়ন্ত্রণ, প্রবাসী কল্যাণ, বয়োবৃদ্ধ, নারীর নিরাপত্তা ও ক্ষমতায়ন, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, গণমাধ্যম, শ্রমিক কল্যাণ, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, সামাজিক নিরাপত্তা, শিল্পায়ন, পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, ধর্মীয় সংখ্যালঘু এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ এবং ক্রীড়া ও সংস্কৃতি।

জানা যায়, ক্ষমতার ভারসাম্য অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, সংবিধানের ১১৫ ও ১১৬ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে নিম্ন আদালতকে পুরোপুরি সুপ্রিম কোর্টের অধীনে নেওয়া হবে। সবার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে শুধু অনাস্থা ভোট এবং অর্থবিল ছাড়া অন্য যে কোনো ক্ষেত্রে দলীয় সংসদ সদস্য দলের বিরুদ্ধে ভোট দিলেও তার সংসদ সদস্য পদ শূন্য হবে না—এমন সংশোধনী ৭০ অনুচ্ছেদে আনা হবে। সংসদের উচ্চকক্ষ সৃষ্টি করা হবে। সব অংশীদারের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে উচ্চকক্ষের গঠন প্রক্রিয়া নির্ধারণ করা হবে। সব সাংবিধানিক পদে নিয়োগের জন্য সুস্পষ্ট আইন তৈরি করা হবে। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিসহ সব সাংবিধানিক পদে নিয়োগের জন্য স্বাধীন কমিশন গঠন করা হবে। এক্ষেত্রে বিরোধী দলের মতামতও গ্রহণ করা হবে। নিয়োগের আগে তাদের নাম জনগণের মতামতের জন্যও প্রচার করা হবে। সংসদীয় স্থায়ী কমিটির উল্লেখযোগ্য পদ সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বণ্টন করা হবে। সংসদে বিরোধী দলের মর্যাদা নিশ্চিত করা হবে এবং রাষ্ট্র পরিচালনায় তাদের মতকে যথাযত গুরুত্ব দেওয়া হবে।

নির্বাচন ব্যবস্থা সংস্কার অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, সব অংশীদারের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচনকালীন সরকারের বিধান তৈরি করা হবে। নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনকে পূর্ণাঙ্গ ক্ষমতা দেওয়া হবে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় তার কাজে সরকারের প্রভাবমুক্ত থাকবে। তার স্বাধীন বাজেট থাকবে। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ সংস্কার করে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন সহজ করা হবে। স্বতন্ত্র নির্বাচনের ক্ষেত্রে ভোটারের সমর্থনের বিধান বাতিল করা হবে। স্বাস্থ্য খাতের সংস্কারে দেশের সব ইউনিয়নে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো স্বাস্থ্য ক্যাডারের একজন সরকারি কর্মকর্তার উপযোগী করে গড়ে তোলা হবে। সব জেলায় একটি করে মেডিকেল কলেজ, বিভাগীয় শহরে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়সহ স্বাস্ব্য খাতে পর্যায়ক্রমে ৩ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া হবে। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প সম্পর্কে বলা হয়েছে, বর্তমান সরকারের কোনো উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ করা হবে না। তবে বর্তমান সরকারের শেষ দুই বছরে তড়িঘড়ি করে নেওয়া প্রকল্পগুলো পুনর্বিবেচনা করার জন্য কমিটি গঠন করা হবে। খুব ভালো অর্থনৈতিক উপযোগিতা ছাড়া বৈদেশিক ঋণনির্ভর কোনো প্রকল্প গ্রহণ করা হবে না।
আইনশৃঙ্খলা অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং গুম পুরোপুরি বন্ধ করা হবে। ইতিপূর্বে সংগঠিত সব গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করা হবে। মানুষের বিরুদ্ধে হয়রানি মামলা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা হবে। রিমান্ডের নামে পুলিশি হেফাজতে কোনো প্রকার শারীরিক নির্যাতন করা হবে না। হাই কোর্টের নির্দেশ মেনে সাদা পোশাকে কাউকে গ্রেফতার করা হবে না। ৩৩ ভাগ এসপি নিযুক্ত হবেন সাব ইনস্পেক্টর থেকে চাকরি শুরু করা অফিসারদের মধ্য হতে। পুলিশের ঝুঁকি ভাতা বাড়ানো হবে। আদালত প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, বিভাগীয় সদরে হাই কোর্ট বেঞ্চ থাকবে। উচ্চ আদালতের বার্ষিক ছুটি চার সপ্তাহে সীমিত হবে। হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিশু-কিশোরদের যে স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলন গড়ে উঠেছিল তার প্রতি পূর্ণ সমর্থন দিয়ে তাদের ৯ দফা দাবির আলোকে সড়ক সংস্কার আইন করা হবে। ওই সময় শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা দ্রুত বিচারের আওতায় আনা হবে। শহরে গণপরিবহনকে প্রাধান্য দিয়ে পরিবহন নীতি প্রণয়ন করা হবে। ঢাকায় নতুন কোনো বিমানবন্দর করা হবে না। তবে নতুন রানওয়ে ও নতুন টার্মিনাল করা হবে এবং বর্তমান বিমানবন্দরটি ভবিষ্যতের জন্য উপযোগী করা হবে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, এ ব্যাপারেও ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করা হবে। এই দুটোর বিরুদ্ধেই জাতীয় ঐকমত্য গঠন ও ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

গণমাধ্যম প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, স্বাধীন প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হবে। সাংবাদিকদের মজুরি বোর্ড নিয়মিত করা হবে। ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজমকে উৎসাহিত করা হবে। প্রতিরক্ষা প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক নেতৃত্বের অধীনে একটি জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল গঠন করা হবে। ডিজিএফ আই, এনএসআই কিংবা এসএসএফ কোনো রাজনৈতিক বিষয়ে যুক্ত হবে না কিংবা হস্তক্ষেপ করবে না। সবাই যার যার পেশাদারিত্বে থাকবে। সশন্ত্র বাহিনীর কল্যাণমূলক প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।