সদরুল আইন: নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া সাম্প্রতিক বিবৃতির জন্য হতাশা প্রকাশ করে বাংলাদেশ। বলছে, পর্যবেক্ষণ মিশন বাতিলের সিদ্ধান্ত এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ফ্রি ইলেকশনের (অ্যানফ্রেল) সম্পূর্ণ নিজস্ব, তা সত্ত্বেও তাদের আবেদনকারীদের প্রায় অর্ধেককে ইতিমধ্যে অনুমোদন দেয়া হয়েছে এবং বাকীদের অনুমোদনও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। রবিবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে এ হতাশা ব্যক্ত করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আগামী ৩০ ডিসেম্বরের আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত বিবৃতি বাংলাদেশকে হতাশ করেছে। যে নির্বাচনে দেশের সকল নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল অংশ নিচ্ছে।’ বিবৃতিতে আরও বলা হয়, নির্বাচন পরিচালনা করছে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। এটি একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান এবং তারা তাদের কাজ স্বাধীনভাবে করে যাচ্ছে।

অ্যানফ্রেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য বাংলাদেশের এনজিও ‘অধিকার’। ‘অধিকার বাংলাদেশ, বিশেষ করে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে বৈপরীত্য ও পক্ষপাতিত্বের জন্য ব্যাপকভাবে পরিচিত। যা তাদের বিভিন্ন প্রতিবেদনে; এমনকি ২০১৮ সালের অক্টোবর ও ডিসেম্বরে প্রকাশিত প্রতিবেদনে স্পষ্ট।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি অনুসারে, এর আগে অধিকারের অন্যতম একজন শীর্ষ স্থানীয় বাংলাদেশি সদস্যকে ডেপুটি এটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিল বিএনপি-জামায়াত সরকার। যা তার সংগঠন এবং সংশ্লিষ্ট সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষভাবে জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষক হিসেবে অযোগ্য করে তোলে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, যেহেতু নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের স্বাগত জানিয়েছে। তাই নির্বাচন কমিশনের প্রযোজ্য আইন ও নির্দেশিকা অনুসারে আবেদনকারীরা প্রয়োজনীয় সকল শর্তপূরণে নিশ্চিতভাবে দায়বদ্ধ থাকবে।

এখন পর্যন্ত, বাংলাদেশে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ মিশন গ্রহণের জন্য বিভিন্ন দেশ ও সংগঠনের ১৭৫টি বিদেশি নির্বাচন পর্যবেক্ষককে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘অ্যানফ্রেলসহ বেশ কিছু সংগঠনের আন্তর্জাতিক নির্বাচন পর্যবেক্ষকের স্বীকৃতি বর্তমানে অনুমোদনের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

এছাড়াও ১১৮টি স্থানীয় সংগঠন এবং ২৫ হাজার ৯২০ জনকে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করার অনুমোদন দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।