অ্যান্টিবডি টেস্টের অনুমতি দিলে বাংলাদেশ পৃথিবীতে নাম করতো : জাফরুল্লাহ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: করোনাভাইরাস শনাক্তের জন্য অ্যান্টিবডি টেস্ট করার অনুমতি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর বদলে সরকারি হাসপাতাল ও ল্যাবরেটরিতে অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তবে অ্যান্টিবডি টেস্ট করতে দিলে বাংলাদেশ পৃথিবীতে নাম করতো বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

আজ শনিবার দুপুরে ধানমন্ডির গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য আরটি-পিসিআর পরীক্ষা কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে এ মন্তব্য করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘টেস্টের পাশাপাশি আমরা গবেষণায় মনোযোগী হচ্ছি। আমরা ৫০ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছি গবেষণার জন্য। আমরা সর্বোচ্চ কোয়ালিটি মেইনটেইন করছি। বাংলাদেশ সারাবিশ্বে নাম করেছে তার ওষুধনীতির কারণে। ঠিক একইভাবে বাংলাদেশ পৃথিবীতে নাম করতো, যদি অ্যান্টিবডি টেস্টের অনুমতি দিতো।’

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন হাসপাতালে করোনাভাইরাস পরীক্ষার নামে ভুয়া রিপোর্ট প্রদান, করোনা পজিটিভ হয়েও নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে প্রবাসীদের বিদেশগমন এবং করোনাকালে সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া কেলেঙ্কারির জন্য সরকারকে দায়ী করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা। জাফরুল্লাহ বলেন, ‘এটার জন্য সরকার দায়ী। সরকারের অপরিণামদর্শিতা, চিন্তা না করে কথা বলা ও কোনো বিশেষজ্ঞের পরামর্শ না নেওয়া- এসব ভুলের কারণে এ অবস্থা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজ থেকে দুই মাস আগে চায়না যখন ভ্যাকসিন ট্রায়াল করতে চাইলো, আমি বললাম আজই করেন। তাহলে আমার দেশের লোক উপকৃত হতো। তারচেয়ে লাভ হতো আমাদের জ্ঞান বৃদ্ধি পেত, আমার দেশের লোক শিখে নিতে পারতো।’

গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের করোনা রোগীদের জন্য আরটি-পিসিআর পরীক্ষা কার্যক্রম উদ্বোধনের পর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে আজকের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যবসায়ীসহ সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম এ সংগঠক।

এর আগে গত বুধবার করোনাভাইরাস শনাক্তের জন্য র‍্যাপিড টেস্ট করার অনুমতি না পাওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, ‘করোনার র‍্যাপিড টেস্ট করার কোনো সিদ্ধান্ত নেই, তবে এখন থেকে অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হবে। অ্যান্টিবডি টেস্ট করা হবে না। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার পরে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’ এমন সিদ্ধান্তের পর তার সমালোচনাপূর্বক নিজের মন্তব্য করলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম গণস্বাস্থ্যের উদ্যোগের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের কোভিড নিয়ে গবেষণার সুযোগ আছে। ল্যাবরেটরিতে শুধু রুটিন টেস্ট হবে না, গবেষণাও হবে বলে আমি আশা করছি।’