ফ্রেশ নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই: ওবায়দুল কাদের

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বিএনপি নেতাদের মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি উড়িয়ে দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘তাদের (বিএনপির) রাজনীতি এখন বহুদূর থেকে ইথারে ভেসে আসে। জনগণের চোখের ভাষা, মনের ভাষা বুঝতে না পারাই বিএনপির ব্যর্থতা। সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়েই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, মধ্যবর্তী নির্বাচন কিংবা ফ্রেশ নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, মধ্যবর্তী নয়, সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়েই নির্বাচন হবে। বিএনপি বারবার ব্যর্থ হচ্ছে নেতিবাচক রাজনীতির কারণে। জনগণ কেন তাদের ভোট দেবে? কী অর্জন তাদের?’ তিনি বলেছেন,

সোমবার রাজধানীতে নিজের বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

গত শনিবার অনুষ্ঠিত ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনে এবং গত ২৬ সেপ্টেম্বর পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনে জয় পান আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা। আর উপনির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি দাবি করে এর প্রতিবাদে আজ দেশজুড়ে বিক্ষাভ কর্মসূচির ডাক দেয় বিএনপি।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সাম্প্রতিক উপনির্বাচন নিয়ে বিএনপি অন্ধকারে ঢিল ছুড়েই যাচ্ছে। স্পষ্ট কোনো অভিযোগ নয়, বরাবরের মতো ঢালাও অভিযোগ করেই যাচ্ছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেশের গণমাধ্যম এখন স্বাধীন। মানুষের হাতে হাতে মোবাইল। অনিয়ম করে লুকানোর সুযোগ এখন আর নেই। জনঘনিষ্ঠ কোনো ইস্যুতে না গিয়ে বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতাই এখন বিএনপির বহুল চর্চিত একমাত্র হাতিয়ার। আসলে বিএনপি কী চায়, তারা নিজেরাও জানে না।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আর বিএনপির কর্মসূচিতে কোনো বাধা দেওয়া হবে না। তবে জনগণের দুর্ভোগ বা অস্থিরতা সৃষ্টি করলে আওয়ামী লীগ তা প্রতিহত করবে।’

বিএনপিকে কোনো অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় যেতে জনগণ দেবে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র ও অস্থিরতা তৈরিতে বিনিয়োগ না করে জনগণের পাশে থাকুন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠান স্বাধীনভাবে কাজ করছে। কমিশনকে শক্তিশালীকরণে সব রাজনৈতিক দলের সহযোগিতা প্রয়োজন, ঢালাও সমালোচনা না করে গঠনমূলক অভিযোগ দিলে কমিশন নিশ্চয়ই ব্যবস্থা নেবে।