বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঈদের পর ফিরতি যাত্রার দ্বিতীয় দিনেও ঢাকামুখো মানুষের ঢল নেমেছে। সোমবার (১৭ এপ্রিল) সকাল থেকেই ঘাট এলাকায় দেখা যায় উপচেপড়া ভিড়। পরিবহন সংকট আর বাড়তি ভাড়ার ভোগান্তি সয়েই কর্মস্থলে ফিরছেন সবাই। এদিকে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ সামাল দিতে ঘাট এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।

ভোর না হতেই হাজার হাজার মানুষ আসতে থাকেন ঘাট এলাকায়। মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার কিংবা হেঁটে যে যেভাবে পারছেন নদী পারাপারের জন্য ভিড় করছেন। ফেরি পর্যাপ্ত থাকলেও ছোটবড় যানবাহন আর যাত্রীচাপে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। প্রিয়জনের টানে ঘরে ফেরা মানুষকে জীবিকার তাগিদে ফিরতে হচ্ছে নগরীতে।

কয়েকজন জানান, ফেরিতে অনেক ভিড়। সরকার যে জন্য গাড়ি খুলে দিচ্ছে না। সেটাতো এখানে হচ্ছে না। আরও সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বাড়ছে।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ঘাট এলাকায় যাত্রীদের নিরাপত্তায় কড়া নজরদারি রয়েছে। যাতে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি না হয়।

এদিকে, লকডাউন উপেক্ষা করে ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটে সোমবার সকাল থেকেই ট্রলার, স্পিডবোট ও ফেরিতে মেঘনা নদী পাড়ি দিতে দেখা যায় হাজার হাজার মানুষকে। প্রতিটি ট্রলার ও ফেরিতেই ছিল ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী।

অন্যদিকে, মহাসড়কে যানজট না থাকলেও অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ রয়েছে। নিষেধাজ্ঞার না মেনেই ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক এবং উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকায় চলাচল করছে দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাস। প্রতিটি বাসেই অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

পথে পথে নানা ভোগান্তি, গাদাগাদি করে ফেরি পারাপার আর করোনার ঝুঁকি নিয়েই ঈদের ছুটির পর কর্মস্থলে ফেরার এই লড়াই।

Previous articleমাদারীপুরে নদীতে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে যুবকের মৃত্যু
Next articleঈদের পর দ্বিতীয় দিনের মতো করোনায় মৃত্যু বাড়ল, আক্রান্তও দ্বিগুণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।