মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
Homeজাতীয়রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিটি এখন কালের সাক্ষি হয়ে দাড়িয়ে আছে

রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিটি এখন কালের সাক্ষি হয়ে দাড়িয়ে আছে

জয়নাল আবেদীন: রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিটি কালের সাক্ষি হয়ে দাড়িয়ে আছে । নানান অব্যবস্থার কারণে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিতে এখন আর পাবলিক যায়না । অথচ অনেক ইতিহাস ও ঐতিহ্য সমৃদ্ধ রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি এখন শুধু নামেই টিকে আছে।

১৯০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত লাইব্রেরিটি কালের বিবর্তনে এখন ধুকছে। দীর্ঘদিনের অব্যবস্থাপনায় এটি এখন নামমাত্র লাইব্রেরি। স্বাধীনতা পরবর্তী জেলায় জেলায় সরকারি গণগ্রন্থাগার হওয়াতে কমে গেছে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরির কদর। এখন বই, লাইব্রেরিয়ান, জনবল ও বরাদ্দ সংকটে টিম টিম করে জ্বলছে এই জ্ঞানগৃহটি। জ্ঞান চর্চার জন্যই ১৮৩২ সালে কুন্ডির জমিদাররা রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করেন। এক পর্যায়ে এর দায়িত্ব নিয়েছিলেন রাজমোহন রায় চৌধুরী। আর পৃষ্টপোষকতা করেছিলেন তুষভান্ডারের রমণীমোহন রায় চৌধুরী ও কাকিনার মহিমারঞ্জন রায় চৌধুরী। তবে কারো কারো দাবি ১৮৫৪ সালে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা হয়েছে। রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিতে এখন বই পড়ার তেমন সুযোগ নেই। নেই আগের মতো পত্রিকাতে চোখ বুলিয়ে নেয়ার সুযোগ। জনবল সংকটে বস্তায় ও তালাবন্দি হয়ে পড়ে আছে হাজারো বই। লাইব্রেরিতে বই থেকেও যেন বই পড়তে মানা। তবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক কিছু বই রয়েছে উন্মুক্ত। খবরের কাগজ পড়ে অভ্যস্থ পাঠকরাও এখন হতাশ। সেখানে নেই আগের মতো পত্রিকা। সাতটি পত্রিকার তালিকা থাকলেও অর্থ সংকটে এখন পাঠকের খোরাক মাত্র পাঁচটি। জীর্ণ দশার এই লাইব্রেরিতে প্রতিদিনের নতুন সংযোজন বলতে শুধু পত্রিকাই।এক সময়ের চার কক্ষ বিশিষ্ট লাইব্রেরিটি এখন অস্তিত্ব সংকটে। একটা আলমারিতে তালাবন্দি হয়ে আছে বহু নামীদামি লেখকের বই। ব¯স্তাতেও পড়ে আছে অনেকগুলো বই। লাইব্রেরির ফাঁক ফোঁকড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এসব বইয়ের কোনোটা ঐতিহাসিক, সাহিত্যিক নয়তো সমাজ-সংস্কৃতি বিষয়ক। এখানে রয়েছে সাড়া জাগানো প্রেমের উপন্যাসও।

সম্প্রতি কিছু নষ্ট ও জীর্ণ আলমারি রঙ করানো হয়েছে। এখন আলমারি চকচক করলেও তালাবন্দী বইগুলো চকচকে নয়। এখানে বই-পত্রিকা সংরক্ষণে নেই পর্যাপ্ত আলমারি। নতুনত্ব না থাকায় পুরাতন এসব বই-পত্রিকার স্তুপ কাছে টানছে না পাঠকদের।লাইব্রেরির চারটি কক্ষ ছিলো । জেলা শিল্পকলা একাডেমির নির্মাণে তার পেটে চলে গেছে একটি। বাকি তিনটির মধ্যে একটি পরিত্যক্ত। লাইব্রেরি হিসেবে ব্যবহৃত কক্ষে পাঠকের বসার জন্য রয়েছে কয়েকটি প্লাষ্টিক চেয়ার। আছে বহু পুরাতন একটি টেবিল। কম্পিউটার, ইন্টারনেট, তথ্য-প্রযুক্তির সেবা তো দূরের কথা লাইব্রেরির সেবার জন্য কেউ নেই। একজন বৃদ্ধ কেয়ারটেকার আর এক পরিচ্ছন্নতা কর্মীই এখানকার সব। জেলা প্রশাসক এর অভিভাবক হলেও তিনি নতুন এসেছেন রংপুরে । আগে যারা ছিলেন তার মধ্যে আসিব আহসান একটু লাইব্রেরি নিয়ে ভাবলেও পরে তিনি আর মাথা ঘামান নি । তাঁর সময়ে আজীবন সদস্যদের ১ হাজার করে রেজিষ্ট্রেশন ফি নেয়া হলেও কোন অনুষ্ঠান হয়নি ।

গত ৪ বছর থেকে কোন সম্মেলন হয়নি । সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচিত পরিচালনা কমিটি গঠন হওয়ার কথা থাকলেও এডহক কমিটির কোন কার্যক্রমই নেই । এ কারণে লাইফ সাপোর্টে বেঁচে থাকা রোগীর মতো ধুকে ধুকে চলছে প্রাচীনতম লাইব্রেরিটি।প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত লাইব্রেরিটি খোলা থাকে। রংপুর ও ঢাকা থেকে প্রকাশিত অনেক পত্রিকা থেকে এখানে বাছাই করা পাঁচটি দৈনিক পত্রিকা রাখা হয়। এখানে রয়েছে বিপুল সংখ্যক বই, পান্ডুলিপি, পুঁথি, উৎকীর্ণলিপি ও প্রতœতাত্ত্কি ধ্বংসাবশেষ।এখনকার কেয়ারটেকার আজিজুল ইসলাম ছানু।

পনোরো বছর ধরে এখানে চাকরি করছেন। বেতন ভাতা হিসেবে তার প্রতিদিনের হাজিরা ১০০ টাকার নিচে। মাস শেষে জোটে মাত্র ২৫০০ টাকা।ছানু বলেন, লাইব্রেরি পরিচালনার জন্য কোন বরাদ্দ নেই। এর কোনো দাতা নেই। বছর দুয়েক আগে লাইব্রেরির সংস্কার কাজ করা হয়েছে। কিন্তু প্রয়োজন অনুযায়ী কোনো জনবল নেই। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হলেও কোনো ব্যবস্থা হয়নি। একজন লাইব্রেরিয়ান ছিল, বেতন ঠিক মতো না পাওয়া তিনিও চাকরি ছেড়েছেন। এখন তেমন পড়ার মতো বইও নেই।কেয়ারটেকার ছানু বলেন, লাইব্রেরিতে যা আছে সবগুলো তালাবন্দী, পাঁচটি পত্রিকা ছাড়া এখানে নতুন বলতে কিছুই নেই। যারা পাঠক তারাও পুরাতন। বই না থাকায় নতুন পাঠক সৃষ্টি হচ্ছে না। নতুন পুরাতন মিলে এখন অন্তত সাড়ে তিন হাজার বই রয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে জনবল না থাকায় পাঠকরা ইচ্ছে মতো বই পড়তে না পাড়ায় তালাবন্দি বইগুলোও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখন শুধু পত্রিকা পড়তে আসেন বিভিন্ন বয়সী মানুষ।কামরুল নামের পাঠক বলেন, এক সময় এখানে অনেক বই ও পত্রিকার পাঠক ছিল। কিন্তু এখন পাঠক কমে গেছে। জনবল নেই। পড়ার উপযোগী কোনো বই নেই। কিছু পুরাতন বই আছে, তাও উইপোকা, তেলাপোকা কাটা, ধুলাবালু, বৃষ্টির পানি পড়ে পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এভাবেই নামে মাত্র টিকে আছে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি।স্থানীয় সংগঠকরা জানান, ব্রিটিশ শাসন, পাকিস্তানি শোষণ আর স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সাক্ষী রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি। ইংরেজ বিরোধী আন্দোলন, ভাষা সংগ্রাম ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময়ও সরগরম ছিল এই লাইব্রেরি। বহু বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিক, কবি-সাহিত্যিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সংগঠক মনা মানুষের ওঠা-বসা ছিল এখানে। বই-পত্রিকার সমারোহে ছিল হাজার হাজার পাঠকও।রংপুর পাবলিক লাইব্রেরির কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে অনেক আগে। নতুন কমিটি না হওয়াতে এখন কেউ খোঁজখবরও নেন না। লাইব্রেরিকে বাঁচিয়ে রাখতে এর অবকাঠামো ঠিক রেখে নতুন করে সংস্কার করা এবং পাঠক সৃষ্টির উদ্যোগ নেওয়া জরুরি বলে মনে করেন লাইব্রেরির অনেক আজীবন সদস্য ।জনবল বাড়ানোসহ পরিচালনা কমিটি গঠন করা না হওয়া পর্যন্ত এই লাইব্রেরির ভবিষ্যত অন্ধকার ।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments