কাগজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রার্থী হচ্ছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার। তবে কোনো দলের হয়ে নয়, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তাঁর গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রাম-৪ আসন থেকে তিনি নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে। রৌমারী, রাজীবপুর ও চিলমারী—এই তিন উপজেলা মিলে কুড়িগ্রাম-৪ আসন।

ইমরান এইচ সরকার প্রথম আলোকে বলেন, ‘গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনের পর আমার গ্রামের অনেকে চেয়েছেন আমি যেন জাতীয় নির্বাচনে এলাকার সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য নির্বাচন করি। এ বিষয়ে তরুণ থেকে বয়ঃজ্যেষ্ঠ, সবাই উৎসাহ দিয়েছেন। মূলত তাঁদের আগ্রহের কারণে কুড়িগ্রাম-৪ আসন থেকে নির্বাচন করার কথা ভাবছি। আমি কাজ করলে তাঁদের জন্যই করব বলেই তাঁদের এত উৎসাহ।’

ইমরান বলেন, ‘আমি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা নির্বাচন করার বিষয়ে আমাকে সম্মতি দিয়েছেন। আমি যেহেতু কোনো দলের নই, তাই কোনো দল থেকে নির্বাচন করার প্রশ্নই আসে না। আমি নির্বাচন করলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করব। স্রোতের বিপরীতে হাঁটাই আমার কাজ। নির্বাচনেও সেভাবে আমাকে পাবে সাধারণ মানুষ। তাদের কল্যাণের জন্যই আমি নির্বাচন করব। আর এলাকায় আমার যে জনপ্রিয়তা আছে, তাতে আমি আমার বিষয়ে আশাবাদী।’

ইমরান আরও বলেন, দু–এক দিনের মধ্যেই এ বিষয়ে আমি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেব। দেশের বাইরে কোথায় গিয়েছিলেন? জানতে চাইলে ইমরান বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আমন্ত্রণে সে দেশে গিয়েছিলাম। সেখানে দেড় মাস থেকে গত ১১ সেপ্টেম্বর দেশে এসেছি।’

২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার রায়কে কেন্দ্র করে ব্লগারস অ্যান্ড অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট নেটওয়ার্কের আহ্বানে আর সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণে শাহবাগে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়। এর মুখপাত্র হন ইমরান এইচ সরকার। এ আন্দোলন পরে সারা দেশে ও দেশের বাইরে ছড়িয়ে পড়ে। পরে প্রচণ্ড আন্দোলনের মুখে সরকার আইন সংশোধন করে। এরপর আপিলের রায়ে কাদের মোল্লার ফাঁসি হয়।