সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম

কাগজ প্রতিনিধি: সৈয়দ আশরাফ সশরীরে আমাদের মাঝে থাকতে পারছেন না। কিন্তু তার ছায়া আমাদের ওপর আছে। উপস্থিত সৈয়দ আশরাফের চেয়ে অনুপস্থিত সৈয়দ আশরাফ অনেক বেশি শক্তিশালী। দলমত নির্বিশেষে সব মানুষ তাঁর জন্য দোয়া করছেন।’

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আওলাদ হোসেন এমন আবেগঘন মন্তব্য করেন জাতীয় নেতা সৈয়দ আশরাফ সম্পর্কে। কেবল আওলাদ হোসেনই নন, সৈয়দ আশরাফ এখন কিশোরগঞ্জের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছেই একটা আবেগ ও অনুভূতি সম্পন্ন নাম। রিকশা চালক থেকে মুদি দোকানি, চাকরিজীবী থেকে ব্যবসায়ী সব শ্রেণির মানুষই তাঁর পক্ষে একাট্টা। তাদের মতে, অগণিত মানুষের দোয়া ও ভালোবাসাতেই সৈয়দ আশরাফ ক্রমান্বয়ে সুস্থ হয়ে উঠছেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন। তাঁকে কিশোরগঞ্জ-১ (সদর-হোসেনপুর) আসনে মনোনয়ন দেওয়ায় জনগণ উত্ফুল্ল ও আনন্দিত। এ জন্য দলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। প্রতীক বরাদ্দের পর নেতা-কর্মীরা নিজ উদ্যোগে প্রচারণায় নেমে পড়েছেন। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই কাঁঠালিয়া গ্রামের রিকশাচালক আবদুল লতিফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আশরাফ ভাই অসুস্থ। শুনেছি তিনি বিদেশে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তিনি দেশে না থাকলেও তাঁর মতো একজন ভালো মানুষের পক্ষে নির্বাচন করা আমাদের দায়িত্ব। কিশোরগঞ্জ শহরের চর শোলাকিয়া সবুজবাগ এলাকার মুদি দোকানি শফিকুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সৎ মানুষ সৈয়দ আশরাফের পক্ষেই আছি। একই এলাকার ঠিকাদার আজিজুল ইসলাম রতন বলেন, সৈয়দ আশরাফের জন্য আমরা দোয়া করছি। এবারের নির্বাচনে তার জন্য মানুষের সহানুভূতিই তাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংকার আদিলুজ্জামান বলেন, সৈয়দ আশরাফ শান্তি ও উন্নয়নের প্রতীক। তার কারণে আমরা শান্তিতে বসবাস করতে পারছি। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে তার চাচাতো ভাই সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, তিনি আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থ। পুরোপুরি সুস্থ হতে আরও মাসখানেক সময় লাগবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা এবং চিকিৎসকদের পরামর্শে পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার পরই তাঁকে দেশে নিয়ে আসা হবে। কিশোরগঞ্জের নানা শ্রেণি পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা সবাই সৈয়দ আশরাফের অপেক্ষায় রয়েছেন। কখন তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসবেন, আবারও দল ও রাজনীতির হাল ধরবেন, সেই অপেক্ষায় সবাই।