সদরুল আইন: বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয় লাভ করলে উপহার হিসেবে মন্ত্রীত্বের দুর্লভ সম্মানের অধরা গোলাপটি ধরা দেবে উন্নয়ন বঞ্চিত শ্রীপুরের জন মানুষের জীবনে এমন হিসেব নিয়ে নির্বাচনের মাঠে সক্রিয় ছিল ৭ লাখ জনতা।

দিন রাতের অক্লান্ত সাধনা, কুটিল চক্রান্তের হাজার সমুদ্র আর অসংখ্য সাহারা পেরিয়ে মনোনয়নের সোনার হরিণ স্পর্শ করতে পারলেও প্রিয় নেতা ইকবাল হোসেন সবুজ মন্ত্রী হবেন এমন প্রত্যাশার সলিল সমাধী রচনা হয়েছে আজ।

প্রত্যাশার স্বপ্নীল সাগর বেলায় অপূর্ণ রয়ে গেল ইকবাল হোসেন সবুজের মন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন। অধরা প্রেয়সী হয়ে আলেয়ার মত সুদুরে মিলিয়ে গেল প্রিয় নেতা মন্ত্রী হয়ে উন্নয়নের ছোঁয়ায় সমতা এনে মানবিক উপশহর দ্রুত বাস্তবায়ন করবেন এমন প্রত্যাশা।

৩ লাখ ৫ হাজার ভোটেরও বেশি ব্যবধানে বিজিত হওয়ায় সবুজকে ঘিরে মন্ত্রীত্বের যে স্বপ্ন রচনা করেছিল শ্রীপুরবাসি আজকে তার অপমৃত্যূ হল। এমপি হয়ে পরিবর্তন আনার সাধ পূর্ণ হলেও মন্ত্রীত্বের ডাক না পাওয়ায় শ্রীপুরের অগনিত মানুষ আজ লালিত স্বপ্ন হারিয়েছে। নিরব আধার আর বেদনার চাদরে ঢেকে গেছে স্বপ্নের সাগর সৈকত।প্রিয় নেতা সবুজ মন্ত্রী হচ্ছেন না বলে অনেকেই চোখের জল ফেলেছেন নিরবে।

নিয়তির নির্মম সত্য মেনে নিতে বাধ্য হতে হয়। মেনে না নিয়ে উপায়ও থাকে না। এক জীবনে হয়ত সব প্রাপ্তি ঘটেও না।সব আকাঙ্খা কখনোই পূরণও হয় না। পাওয়া না পাওয়ার জীবন বেলায় দাড়িয়ে হয়ত ইকবাল হোসেন সবুজ এগিয়ে যাবেন নতুন কোন স্বপ্ন নিয়ে অনাগত আগামির দিকে। আশাভঙ্গের বেদনা নিয়ে হয়ত শ্রীপুরের জনগন আবার অপেক্ষা করবে ২০২৩ সালের নির্বাচনের পাণে।