সদরুল আইন: অগ্রিম নমিনেশন প্রাপ্তির ঘোষণা দিয়ে বারবার প্রকাশ্যে মিষ্টি খেয়ে শেষমেষ মনোনয়ন প্রাপ্তিতে ব্যর্থ হয়ে কিছুদিন চুপচাপ থেকে এবার বিকল্প পথে হাটছেন গাজীপুর-৩ অাসনের বিতর্কিত সাবেক সাংসদপুত্র জামিল হাসান দুর্জয়।

উল্লেখ্য, গাজীপুর-৩ অাসন থেকে ৩০ বছর পর প্রার্থি পরিবর্তন করে এ্যাড. রহমত অালীর স্থলে এবার অা’লীগ মনেনয়ন দেয় জেলা অা’লীগের নন্দিত সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজকে।তিনি ৩ লাখ ৪৫ হাজারেরও বেশি রেকর্ড সংখ্যক ভোট পেয়ে বিজিত হন।

নমিনেশন ঘোষণার পর শ্রীপুরের সাধারন মানুষ মনে করেছিল সব বিভেদ ভুলে সাংসদপুত্র দুর্জয় জেলা অা’লীগের যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে তার দায়িত্বের অংশ হিসেবে ইকবাল হোসেন সবুজের পাশে এসে নৌকার পক্ষে কাজ করবেন।কিন্তু তিনি শেখ হাসিনার নির্দেশ উপেক্ষা করে অা’লীগ প্রার্থির পক্ষে বা নৌকার প্রচারণায় একদিনের জন্যও অংশ নেননি।

জনশ্রুতি রয়েছে, দুর্জয় তার উত্তরার বাসায় বসে গোপন অালোচনার মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থি ইকবাল সিদ্দিকীকে ১০ কোটি টাকা দিয়ে সাংসদ ইকবাল হেসেন সবুজ যাতে নির্বাচনে জয়লাভ করতে না পারে বা কম ভোট পেয়ে মন্ত্রী হতে না পারে তার জন্য সব ধরনের চেষ্টা চালান পর্দার অাড়ালে থেকে।কিন্ত বাস্তবে তিনি ইকবাল হোসেন সবুজের রেকর্ড বিজয় রোধ করতে পারেননি এবং ব্যর্থ হয়ে বিদেশ পাড়ি জমিয়েছিলেন।

রাজনৈতিক শিষ্টাচার না মানা, জেলা অা’লীগের যুগ্ম সম্পাদক এই পরিচয় না দেওয়া, কুটিল ষড়যন্ত্র ও দুর্নীতির মহানায়ক দুর্জয় একাদশ নির্বাচনে মনোনয়নে ব্যর্থ হয়ে পর্দার অাড়ালে থাকলেও তার বহু অনুসারিকে দিক নির্দেশনা দিয়ে প্রবেশ করান সবুজের রাজনীতিতে।নির্বাচনের প্রশ্নে দলিয় বিভেদ এড়াতে সে সময় সবুজ এদের ফুলের তোড়া গ্রহন করলেও এরাই বর্তমানে ভয়ংকর হয়ে উঠছে শ্রীপুরের বিভিন্ন এলাকায়।এমনকি দীর্ঘদিনের সবুজ অনুসারী একজন শীর্ষ নেতা ও জনপ্রতিনিধির বিতর্কিত কর্মকান্ড এবং দুর্জয়ের চিহৃিত ক্যাডারদের অাশ্রয় প্রশ্রয় দেওয়ায় বিভেদ ও বিতর্কিত হয়ে পড়ছে সবুজের রাজনীতি।

ইকবাল হোসেন সবুজ এদের সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত থাকলেও কৌশলগত কারনে এখনো এদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্লাস মাইনাসেরর দৃশ্য মঞ্চায়ন দেখেনি শ্রীপুরবাসি।

সাবেক সাংসদপুত্র দুর্জয় তার পিতার অাসনের সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজকে অভিনন্দন না জানালেও, একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তার দাৃয দায়িত্ব পালন না করলেও, গাজীপুর-২ অাসনের সাংসদ যুব ও ক্রিড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ অাহসান রাসেলকে প্রিয় সহচর উপজেলা চেয়ারম্যান অাব্দুল জলিল, অাহসান উল্লাহকে সাথে নিয়ে ফুল দিয়ে ১১ জানুয়ারি অভিনন্দন জানিয়েছেন। তার এ ধরনের রাজনৈতিক শিষ্টাচারবর্জিত কর্মকান্ড অাগামি দিনে শ্রীপুরের রাজনীতিতে গভীর ষড়যন্ত্রের ইঙ্গিত বহন করছে বলে রাজনৈতিক সচেতন মহল মনে করছেন।

রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, সবুজকে ঘায়েল করতে তাকে অভিনন্দন না জানিয়ে, নির্বাচনে তার পাশে না থেকে নিজের কফিনে নিজেই পরেক মেরেছেন দুর্জয়।এর সাথে অাজ তিনি যে খেলাটা শুরু করলেন তাতে তার খায়েশ পূরণ তো হবেই না বরং রাজনীতিতে তিনি তার নিজের সমাধী নিজেই রচনা করলেন।